এ সপ্তাহের সাক্ষাৎকার: সোহানা সাবা
আপনার ডিভাইস মিডিয়া প্লেব্যাক সমর্থন করে না

এ সপ্তাহের সাক্ষাৎকার

বাংলাদেশের সিনেমা ও টেলিভিশন নাটকের সুপরিচিত অভিনেত্রী সোহানা সাবা।

ক্ল্যাসিক্যাল নাচের তালিম নিয়েছেন প্রায় ১৪ বছর।

অভিনয়ের পাশাপাশি নাচের শিক্ষকও।

বাংলাদেশের পাশাপাশি অভিনয় করেছেন কোলকাতার চলচ্চিত্রেও।

বিবিসি বাংলাকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন এ মূহুর্তে ছোট ও পর্দায় অভিনয় নিয়েই ভীষণ ব্যস্ত তিনি।

১৯৮৫ সালে জন্ম নেয়া সোহানা সাবা স্কুল কলেজে পড়ার পর স্নাতক পড়েছেন ফ্যাশন নিয়ে।

তার মতে, "খুব ছোটবেলা থেকে ক্যারিয়ার শুরু। নাচ, র‍্যাম্পে হাঁটা, কোরিওগ্রাফি। র‍্যাম্পে হাঁটার সময় যেসব ডিজাইনের কাপড় পড়ে হাঁটতাম তখন মনে হতো এর চেয়ে ভালো ডিজাইনতো আমিই করতে পারি"।

শুরুতে মায়ের ডিজাইন করা কাপড় করে র‍্যাম্পে হাঁটতেন তিনি।

"বড়ো হতে হতে ডিজাইন করা শুরু করলাম এবং প্রশংসাও পেতে থাকলাম। এরপরে ইচ্ছে ছিলো চারুকলায় পড়বো কিন্তু তা আর হয়ে উঠেনি। পড়ে ফ্যাশন নিয়ে পড়ালেখা করলাম"।

কিন্তু ফ্যাশন নিয়ে কোন কাজ করেছেন কি-না জানতে চাইলে তিনি বলেন, "আমি নিজের ডিজাইন নিজেই করি। অর্থাৎ ফ্যাশন ডিজাইনার সাবা অভিনেত্রী সোহানা সাবার ড্রেস বা সেট ডিজাইন করে। সেক্ষেত্রে প্রশংসাই পাই"।

পাঁচ বছর বয়স থেকেই ক্লাসিক্যাল ডান্স শিখেছেন। ছায়ানট ও বাফা থেকে। মোট ১৪ বছরের নাচের তালিম।

মডেল হিসেবেও কাজ করেছেন আয়না চলচ্চিত্র করার আগে।

"শুধুমাত্র একটাই টার্গেট ছিলো আমি যেনো পরিচিত হই। আমাকে যেনো লোকজন চিনে। এবং আমি অভিনয় করে যাই। তবে সব যা শিখেছি তার পেছনের গল্প হচ্ছে আমার মায়ের। মা নাচ ও গান করতেন। কিন্তু সেটি চালিয়ে যেতে পারেননি। আমাকে ওই স্বপ্ন থেকেই নাচে ভর্তি করা হলো আমাকে। আর আমার ভাইকে তবলায়। তবে মনে হয় অভিনেত্রী হতেই পৃথিবীতে আমার জন্ম"।

চলচ্চিত্রের মাধ্যমেই কিভাবে যাত্রা শুরু হলো জানতে চাইলে তিনি বলেন, "আমি আসলে একটা টার্নিং পয়েন্ট খুঁজছিলাম। আয়নার প্রস্তাব যখন পাই তখন কলেজে পড়ি। তখন ছিলো অশ্লীল সিনেমার যুগ। যখন কবরী আপা প্রস্তাব দেন তখন আমি চাচ্ছিলামনা যে আমাকে নিক। কিন্তু উনি দুশো মেয়ের মধ্যে থেকে আমাকে নেন। পড়ে মনে হয়েছে সব মিলে ভালো কিছু হয়েছে। ওই সময় আমি ২৩টার মতো বাণিজ্যিক ছবিতে অভিনয়ের প্রস্তাব পেয়েছিলাম"।

কোলকাতার চলচ্চিত্রে অভিনয় প্রসঙ্গে তিনি জানান যে সেখানে একটা সিনেমা রিলিজ হয়েছে আরও দুটিতে সাইন করা আছে। কাজ করছি বেশ কয়েকটিতে।

হলিউডের নামকরা অভিনেত্রী শিল্পীরা অনেকেই কাজের ক্ষেত্রে যৌন হয়রানির অভিযোগ করছেন, বাংলাদেশেও কি এমন পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হয়?

এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, "আমি তেমন কিছুর মুখোমুখি হইনি। কারণ আমি এগুলো ফেস করতে চাইনি। প্রথমেই ঠিক করেছিলাম এমন কিছু হলে কাজ করবোনা। আমি সম্মানের সাথেই কাজ করেছি। ঢালাওভাবে বলার কিছু নেই। প্রতিটি মানুষের টার্গেট পর্যন্ত যাওয়ার নিজস্ব স্টোরি আছে"।

"তবে নাম না বলে মিডিয়ার মেয়ের কথা বললে আমি মোটেও গ্রহণ করবোনা"।

নিজের ব্যক্তিজীবনের কিছু ঘটনার বর্ণনা দিয়ে তিনি বলেন, "আমি যখন ছোট ছিলাম যখন আমাকে নিয়ে খুব ব্যস্ত তখন আমি বিয়ে করে ফেললাম। আমি ঠিক মতো সংসার করলাম, একটা বাচ্চা হলো আমি ট্রাই করলাম কিন্তু করতে পারলামনা তখন সবাই বললো আমি ক্যারিয়ারের জন্য এটা করেছি। এসব নিয়ে আমি মাথা ঘামাইনি"।

বিয়ে করে ভুল করলে সেটাও আমার ব্যাপার, আমি কাউকে কৈফিয়ত দিতে রাজী নই।

নিজের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, "আমি অভিনয় করে যেতে যাই। আমি চাই শেষ দিন পর্যন্ত যেনো সুস্থ ভাবে বেঁচে থাকতে পারি"।

সাক্ষাৎকার নিয়েছেন সংবাদদাতা রাকিব হাসনাত।