ট্যাম্পারিং কেলেঙ্কারি থেকে কীভাবে শিক্ষা নিতে পারে বাংলাদেশ?

ক্যামেরায় ধরা পড়েন অসি ব্যাটসম্যান ব্যাংক্রফ্ট ছবির কপিরাইট SKY SPORTS
Image caption ক্যামেরায় ধরা পড়েন অসি ব্যাটসম্যান ব্যাংক্রফ্ট

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে কেপটাউন টেস্টে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের বল ট্যাম্পারিং নিয়ে বিস্তর আলোচনা-সমালোচনা চলছে ক্রিকেট বিশ্বে।

অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ডের গণমাধ্যম ধারণা করছে, স্মিথ ও ওয়ার্নার প্রতারণার শাস্তি হিসেবে আজীবন নিষিদ্ধও হতে পারেন।

বাংলাদেশের ক্রিকেট মহলেও এই ঘটনাই এখন প্রধান আলোচ্য বিষয়।

বাংলাদেশের বোলাররা বল ট্যাম্পারিং নিয়ে কতটা সচেতন? বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড বিসিবি কতটা সতর্ক?

বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের সাবেক পেস বোলার ও বিসিবির বর্তমান মিডিয়া কমিটির পরিচালক জালাল ইউনুস বিবিসি বাংলাকে বলেন - ক্রিকেটে এটা অনেক দিন ধরেই চলে আসছে এবং বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের এই ব্যাপারটায় সম্পূর্ণ নিরুৎসাহিত করা হয়।

"এটা তো নতুন কিছু না। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের এটার যে আইন আছে সেটা নিয়ে আমাদের প্রতিটা ক্রিকেটার অবগত আছে। এটা একটা বড় অপরাধ, অনেকটা অবৈধ বোলিং অ্যাকশনের মত"।

মি. ইউনুসের মতে, বল ট্যাম্পারিং নির্ভর করে খেলার গুরুত্বের ওপর। "বড় বড় আন্তর্জাতিক ম্যাচে বল নিয়ে কারসাজি করার চেষ্টা করা হয়। সেক্ষেত্রে জয়-পরাজয়ও নির্ধারণ করে এমন ঘটনা"।

তিনি বলেন, "অস্ট্রেলিয়া, ভারত ও পাকিস্তানের ক্রিকেটাররা এটা করেছে। ঘরোয়া ক্রিকেটে এটা কমই দেখা যায়, জয়ের তাড়না থেকেই এটা করে থাকে"।

বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা যে জয়ের তাড়নায় এ ধরনের কারসাজি করবে না তার গ্যারান্টি কী? এই প্রশ্নের জবাবে জালাল ইউনুস বিবিসি বাংলাকে বলেন, "এদিক থেকে অন্তত আমরা বলতে পারবো আমাদের ক্রিকেটাররা সচেতন। এখন পর্যন্ত এমন কোনো অভিযোগ বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের বিরুদ্ধে আসেনি"।

তিনি যোগ করেন, "যখনই আন্তর্জাতিক সিরিজ হয়, টিম ম্যানেজমেন্ট এটা নিয়ে আলোচনা করে। এমনকী নির্দিষ্ট কোনো দলের ট্যাম্পারিং করার ইতিহাস থাকলেও আমরা তাদের বিপক্ষে খেলার সময়েও ট্যাম্পারিং নিয়ে আমাদের ছেলেদের নিরুৎসাহিত করে থাকি।'

ছবির কপিরাইট STR
Image caption সংবাদ সম্মেলনে বল নিয়ে কারসাজির কথা স্বীকার করেন অস্ট্রেলিয়ান ক্রিকেটাররা

সম্পর্কিত বিষয়