সুচিকিৎসার জন্য খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেয়ার দাবি

ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption খালেদা জিয়া

বাংলাদেশে বিএনপির কারাবন্দী নেত্রী খালেদা জিয়াকে অবিলম্বে মুক্তি দিয়ে তাঁর সুচিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছে দলটি।

শুক্রবার ঢাকায় এক সংবাদ সম্মেলনে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জানান, ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দী খালেদা জিয়া এখন অসুস্থ। অবিলম্বে ব্যক্তিগত চিকিৎসকের মাধ্যমে তাঁর স্বাস্থ্য পরীক্ষার ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান তিনি।

"তার ব্যক্তিগত যে চিকিৎসক রয়েছেন, সেই ব্যক্তিগত চিকিৎসকের মাধ্যমে তার স্বাস্থ্য পরীক্ষার ব্যবস্থা করতে হবে। তাদের সুপারিশ অনুযায়ী পরবর্তী চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে।"

আরো পড়ুন:

'খালেদা জিয়ার কারাবাস দীর্ঘ করার চেষ্টা চলছে'

শুধু বিএনপিকেই সমাবেশে বাধা দেয়ার অভিযোগ

খালেদা জিয়ার দীর্ঘ কারাবাস, কোন পথে এগোবে বিএনপি?

তিনি বলেন, খালেদা জিয়াকে কারাগারে যে অবস্থায় রাখা হয়েছে, তাতে তাঁর স্বাস্থ্যের অবনতি হচ্ছে বলে তারা আশংকা করছেন।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, এ পর্যন্ত খালেদা জিয়ার সব চিকিৎসা যেহেতু দেশের বাইরে হয়েছে, সেজন্যে তাকে জামিন দিয়ে চিকিৎসার জন্য বাইরে পাঠানোর ব্যবস্থা করতে হবে।

পরে অবশ্য আবার তিনি একথার ব্যাখ্যা দিয়ে বলেন, কারামুক্তির পর খালেদা জিয়া নিজেই সিদ্ধান্ত নেবেন দেশে নাকি বিদেশে চিকিৎসা করাবেন।

উল্লেখ্য, গত বুধবার খালেদা জিয়াকে একটি দুর্নীতির মামলায় আদালতে আনার কথা ছিল। কিন্তু সেদিন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী জানান, অসুস্থতার কারণে তাকে আদালতে হাজির করা যায়নি।

এরপর বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ২৯শে মার্চ বৃহস্পতিবার কারাগারে খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে যান। কিন্তু কারা কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে তাকে জানানো হয়, খালেদা জিয়া অসুস্থ, তাই সাক্ষাৎ করা যাবে না।

কোন অমানবিক আচরণ করা হবে না: ওবায়দুল কাদের

খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বিএনপির দাবির জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, যদি খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার দরকার হয়, সরকার অবশ্যই ব্যবস্থা নেবে। এখানে কোন রকমের দ্বিধা-দ্বন্দ্বের ব্যাপার নেই।

"খালেদা জিয়া জেলে আছেন বলে সরকার তার প্রতি অমানবিক আচরণ করতে পারে না। আমাদের সরকার সেরকম সরকার নয়।"

তিনি আরও বলেন, চিকিৎসকরা যদি বলেন যে দেশে খালেদা জিয়ার চিকিৎসা সম্ভব নয়, সেক্ষেত্রে তাকে বিদেশেও পাঠানো যেতে পারে।