যেভাবে চলবে ঢাকা দক্ষিণের বাড়িতে-বাড়িতে মশা নিধন অভিযান

মশার মাধ্যমে ম্যালেরিয়াসহ নানা ধরনের রোগ ছড়িয়ে পড়ে। ছবির কপিরাইট SPL
Image caption ডেঙ্গু, চিকুনগুনিয়া রোধে বিশেষ অভিযানের পরিকল্পনা করেছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন

স্বচ্ছ ঢাকা কর্মসূচির আওতায় চিকুনগুনিয়া প্রতিরোধ এবং এডিস মশা নিধনে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের আওতাধীন কয়েকটি এলাকায় বিশেষ পরিচ্ছন্নতা অভিযান চালানোর কথা জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সাইদ খোকন।

সম্প্রতি নগরভবনে এক মত বিনিময় সভায় মেয়র বলেছিলেন, যেসব বাড়িতে এডিস মশার লার্ভা পাওয়া যাবে, ওইসব বাড়ির মালিকদের ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে অর্থদণ্ড বা কারাদণ্ড দেয়া হবে।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে সাঈদ খোকন বিবিসিকে জানান স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া রোগের ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা চিহ্নিত করা হয়েছে। সেসব এলাকায় কিছু বাড়িঘরে মশার সম্ভাব্য প্রজননক্ষেত্র রয়েছে বলে ধারণা করছে কর্তৃপক্ষ।

মি, খোকন বলেন, "প্রাথমিক পর্যায়ে ঝুঁকিপূর্ণ চিহ্নিত বাড়িঘরে ভ্রাম্যমান আদালত যাবে, সেখানে থাকা মশার প্রজনন ক্ষেত্র ধ্বংস করবে এবং সেসব বাড়ির মালিককে প্রাথমিক অবস্থায় সতর্ক করা হবে।"

মি. খোকন বলেন এটি আপাতত সচেতনতামূলক প্রচারণা।

"একজনের অবহেলার কারণে আরেকজনের স্বাস্থ্যঝুঁকির কারণ না হয় সেজন্যই এই অভিযান পরিচালনার ব্যবস্থা করা হয়েছে।"

"সতর্ক করার পরও যদি দেখা যায় যে তারা সহযোগিতা করছেন না তখন আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে তাদের বিরুদ্ধে", বলেন মি. খোকন।

ব্যক্তিমালিকানাধীন বাড়িঘরে মশার প্রজননক্ষেত্র ধ্বংস করার পাশাপাশি পাবলিক প্লেসেও মশা নিধনের অভিযান চালানো হবে বলে জানান মেয়র মি. খোকন।

আরো পড়ুন:ঢাকায় জনস্বাস্থ্য ঝুঁকি এড়াতে সিটি কর্পোরেশন কি ব্যর্থ?

আপনার ডিভাইস মিডিয়া প্লেব্যাক সমর্থন করে না
কামান দাগানোতে কি মরছে ঢাকার মশা?
ছবির কপিরাইট ফোকাস বাংলা (ফাইল ছবি)
Image caption ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন মেয়র সাঈদ খোকন (ফাইল ছবি)

তিনি বলেন, "বিশেষজ্ঞদের মতে এডিস মশা ঘরের ভেতরে টব, চৌবাচ্চায় জমে থাকা পানির মত স্বচ্ছ পানিতে বংশ বিস্তার করে থাকে। আর বাইরে নালা, খাল, ডোবায় কিউলেক্স মশা বংশবিস্তার করে থাকে।"

"সিটি কর্পোরেশনের মধ্যে যেসব এলাকায় এরকম মশার প্রজননক্ষেত্র রয়েছে সেগুলো ধ্বংসে আমার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। এছাড়াও নিয়মিত মশার ওষুধ দেয়া হচ্ছে। এই কাজে নগারিকদের সহযোগিতা আমাদের একান্ত কাম্য।"

সাঈদ খোকন জানান মশা নিধনে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে নানাধরণের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে।

"সচেতনতা বাড়ানোর জন্য আমাদের বিভিন্ন রকম বিজ্ঞাপন প্রচারিত হচ্ছে। বিভিন্ন ধর্মের উপাসনালয়ে আমাদের অনুরোধপত্র পাঠানো হয়েছে। সেই অনুযায়ী জনগণকে সচতেন করার নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে।"

এছাড়াও আগামী ১৩ই এপ্রিল চৈত্র সংক্রান্তির দিন প্রতীকী পরিচ্ছন্নতা অভিযান পরিচালনা করা হবে সিটি কর্পোরেশনের উদ্যোগে।"

মশা নিধন অভিযান চালানোর জন্য এরই মধ্যে প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগ করা হচ্ছে বলে জানান মি.খোকন।

আরো পড়তে পারেন:

সিরিয়া থেকে কেন সৈন্য ফেরাতে পারছে না যুক্তরাষ্ট্র?

সুপারস্টার সালমান খানের বেলায় ভিন্ন বিচার?

সৌদি যুবরাজের হলিউড সফর কেমন হলো

সম্পর্কিত বিষয়