যৌন সহিংসতার দায়ে জাতিসংঘের কালো তালিকায় মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী

মিয়ানমার রোহিঙ্গা বাংলাদেশ ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption প্রায় সাত লক্ষ রোহিঙ্গা শরণার্থী বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে

সশস্ত্র সংঘাতের সময় যৌন নির্যাতন চালানোর অভিযোগে এই প্রথমবারের মতো জাতিসংঘের একটি কালো তালিকায় উঠে এসেছে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর নাম।

যুদ্ধ-সংঘাত সংশ্লিষ্ট যৌন সহিংসতার ওপর জাতিসংঘ মহাসচিবের এক রিপোর্টে এ তালিকাটি উপস্থাপন করা হয়।

নিরাপত্তা পরিষদের এজেন্ডায় যেসব সামরিক সংঘাত আছে সেখানে 'ধর্ষণ বা অন্য কোন ধরণের যৌন সহিংসতা চালানোর জন্য বা এর জন্য দায়ী পক্ষগুলোর' এই তালিকায় মিয়ানমারের সশস্ত্র বাহিনীর নাম উল্লেখ করা হয়েছে।

সোমবার নিরাপত্তা পরিষদের কাছে উপস্থাপিত এবং অনলাইনে প্রকাশিত রিপোর্টটিতে বলা হয়, মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী ২০১৬ সালের অক্টোবর এবং ২০১৭ সালের আগস্টে রাখাইন প্রদেশে রোহিঙ্গা মুসলিম সংখ্যালঘুদের ওপর যে অভিযান চালায় - সেই সময় এসব যৌন সহিংসতার ঘটনা ঘটে।

জাতিসংঘ পরে ওই অভিযানকে 'জাতিগত শুদ্ধি অভিযান' বলে বর্ণনা করে।

বিবিসি বাংলায় আরো পড়ুন:

একজনের মুখ কেটে দু'বার বসানো হলো অন্যজনের মুখ

প্রতিদিন অতিরিক্ত মদ্যপান করলে কমতে পারে আয়ু

ইউরোপে কিভাবে 'দাসপ্রথা' চালাচ্ছে উত্তর কোরিয়া ?

বাংলাদেশে অনলাইনে যৌন ব্যবসা, ব্যবসায়ী আটক

ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption একটি রোহিঙ্গা গ্রামে আগুন জ্বলছে

রিপোর্টে বলা হয়, যৌন সহিংসতা ওই অভিযানের অবিচ্ছেদ্য অংশ ছিল, যার উদ্দেশ্য ছিল হুমকি ও ভীতি প্রদর্শনের মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের দেশ ছেড়ে পালাতে বাধ্য করা এবং তারা যাতে ফিরে না আসে তা নিশ্চিত করা।

এর পর প্রায় সাত লক্ষ রোহিঙ্গা পালিয়ে সীমান্তর ওপারে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়।

রিপোর্টে রোহিঙ্গা নারীদের ধর্ষণের একাধিক ঘটনার কথা উল্লেখ করা হয়।

আপনার ডিভাইস মিডিয়া প্লেব্যাক সমর্থন করে না
মিয়ানমার সেনাদের অভিযান, হত্যা, ধর্ষণের কথা জানালো রোহিঙ্গারা

বিবিসি বাংলায় আরো পড়ুন:

পালিয়ে আসা বহু রোহিঙ্গা নারী ধর্ষণের শিকার