প্রীতিভাজনেষু: আপনাদের কাছে আমাদের দায়বদ্ধতা

MANJUNATH KIRAN ছবির কপিরাইট MANJUNATH KIRAN

আপনাদের চিঠিপত্রের আসর প্রীতিভাজনেষু এখন শুধুই অনলাইনে। তাই আপনারা আমাদের কাছে ইমেইল, অনলাইন কিংবা ফেসবুকে যেসব বার্তা অথবা চিঠি পাঠাবেন, সেগুলো এখন থেকে আমাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হবে। বিবিসি বাংলার ফেসবুক পাতায় যেগুলো শেয়ার করা হবে। আমাদের অনুষ্ঠান সম্পর্কে আপনাদের মতামত, মন্তব্য কিংবা কোন প্রশ্ন থাকলে সেগুলো জবাব দেয়ার চেষ্টা করা হবে।

মেনহাজুল ইসলাম তারেক, "মন-তার" আন্তর্জাতিক বেতার শ্রোতা সংঘ, পার্বতীপুর, দিনাজপুর

প্রিয় বিবিসি বাংলা -আপনারা গত ১লা মার্চ যখন প্রবাহ ও পরিক্রমা বন্ধের ঘোষণা ৩১শে মার্চ পর্যন্ত একনাগাড়ে প্রচার করে গেলেন, তখন থেকে জল অনেক ঘোলা হয়েছে এ নিয়ে। কিন্তু সম্পাদক সাহেব একটিবারের জন্যও বলেননি যে, ঐ দুটি বাংলা অধিবেশনের পরিবর্তে ইংরেজি অধিবেশন প্রচারিত হবে! এটা শ্রোতাদের সাথে প্রতারণা ছাড়া আর কিছুই ছিলো না; আর সেসময় প্রীতিভাজনেষু বাদ দিয়ে যেসব ফিচার অনুষ্ঠান থাকার কথা ছিলো, তার একমাত্র ফোন ইন ছাড়া কোনটাই শুনতে পাচ্ছি না। বিবিসি বাংলা'র রেডিও অনুষ্ঠানের আপনারা যে বারোটা বাজিয়েছেন, তা বুঝতে কি আরও বাকী থাকে?

আমাদের কাজের ধরন বদলে যাচ্ছে। তাই বদলে যাচ্ছে কাজের মাধ্যম। কিন্তু তাতে বিবিসি বাংলার বারোটা বেজেছে কিনা, সেটা বলার সময় বোধ হয় এখনও আসেনি। আমাদের দুটি অধিবেশন বন্ধ হওয়ার সাথে সেখানে ইংরেজি অনুষ্ঠান প্রচারে আপনার কী সমস্যা হচ্ছে তা ঠিক বুঝতে পারছি না। আর সেটা আপনাদের সাথে কিভাবে প্রতারণা করা হলো, সেটাও বোধগম্য নয়। যেহেতু আপনি একটি বেতার শ্রোতা সংঘের সাথে আছেন, তাই আপনার নিশ্চয় ধারণা আছে যে আন্তর্জাতিক রেডিও হিসেবে বিবিসি এটা করে থাকে। আর ফিচার অনুষ্ঠানগুলো বন্ধ করার ব্যাপারেও কোন বিভ্রান্তি থাকার কথা নয়। তবুও আপনার অবগতির জন্য জানাচ্ছি, শুধুমাত্র বিশেষ প্রতিবেদনটি আপনি রেডিওতে শুনতে পাবেন। বাকি সব ফিচার অনুষ্ঠান এখন থেকে শুধু অনলাইনে।

মোঃ তারিফ হাসান, মাগুড়া ফুলের ঘাট, নীলফামারী

বিবিসি'র দুটি বাংলা অনুষ্ঠান বন্ধ করে হঠাৎ ইংরেজি অনুষ্ঠান সম্প্রচার কেন এবং বিবিসি এই ইংরেজি অনুষ্ঠান কত বছর সম্প্রচার করা হবে? আশা করি তা বিস্তারিত জানাবেন।

ইংরেজি অনুষ্ঠান হঠাৎ করে প্রচার করা হচ্ছে না। বিবিসির সাথে বাংলাদেশ বেতারের যে চুক্তি রয়েছে সেই চুক্তি অনুযায়ী, যে সময়ে বাংলা অনুষ্ঠান থাকবে না, সেই সময়ে ইংরেজি অনুষ্ঠান প্রচার করা হবে।

ছবির কপিরাইট OLI SCARFF

শামস আফরীন, ফেসবুক

বিবিসি বাংলায় রাত ১০:৩০-এর নিউজ এখন হয় না কেন?

কারণ, রাতের অধিবেশন পরিক্রমা এখন আর সম্প্রচার করা হয় না। আপনার হয়তো জানা নেই যে বিবিসির চারটি অধিবেশনের মধ্যে প্রভাতী এবং পরিক্রমা অনুষ্ঠান দুটি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। তবে সকালের আয়োজন প্রত্যূষা এবং সন্ধেবেলার আয়োজন প্রবাহ ঠিকই প্রচারিত হচ্ছে। আপনি বিবিসি বাংলার ওয়েবসাইট থেকেও অনুষ্ঠানগুলো শুনতে পাবেন। ওয়েবসাইটের ঠিকানা: www.bbcbangla.com আর বিবিসির প্রবাহ অনুষ্ঠান এখন ফেসবুক লাইভ-এও সম্প্রচার করা হচ্ছে। আমাদের ফেসবুক পাতা

য়সাল আহমেদ সিপন, ঘোড়াদাইড়, গোপালগঞ্জ

বিবিসি বাংলা বিভাগের প্রিয়জনেরা - দীর্ঘদিন যাবত বিবিসি বাংলা শুনছি । এখন লাইভ স্ট্রিমিংও দেখছি ফেসবুকে। কিন্তু মাঝে মধ্যে লাইভের মধ্যে হাত দিয়ে ইশারা করা হচ্ছে। এই ইশারার মধ্যে কি কোন বিশেষ সংকেত রয়েছে?

এটি রেডিও অনুষ্ঠানের একটি কৌশল। স্টুডিওতে অনুষ্ঠানের উপস্থাপক যখন একটি প্রতিবেদন কিংবা সাক্ষাৎকার আপনাদের সামনে হাজির করেন তার আগে তিনি একটি 'কিউ' পড়েন। কিউ পড়ার পর রিপোর্ট কিংবা ইন্টার্ভিউয়ের অডিও ফাইলটি চালানোর জন্য তিনি হাতের ইশারা দেন। স্টুডিওর অন্যপাশে শব্দ-যন্ত্রী সেই ইশারা দেখে অডিওটি চালিয়ে দেন। রেডিও উপস্থাপকদের কাজের জন্য নানা ধরনের হাতের ইশারা সংকেত হিসেবে ব্যবহার করতে হয়। এক সময় বিবিসি থেকে শুধুমাত্র হাতের ইশারা শেখানোর জন্য প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা ছিল। অনেকটা নাচের ক্লাসের মতো ছিল সেই ট্রেনিং।

হাসান মীর, রাণীবাজার, রাজশাহী

আমার দুটি কৌতূহলের জবাব দেবেন। প্রথমত, প্রবাহ অনুষ্ঠান অনলাইনে সরাসরি শোনা আর রেডিওতে এফএম ব্যান্ডে শোনার মধ্যে এক মিনিটের তফাত হয় কেন? দুই, যখন সরাসরি শুনি, অনেক সময় কথাগুলো কেটে কেটে যায়, কখনওবা একই কথা দুই-তিন বার রিপিট হয়, অথচ রেডিও সেটে নির্ভুল শোনা যায়। এর রহস্য কি?

আপনি একই অনুষ্ঠান শুনতে দুটি মাধ্যমকে ব্যবহার করছেন -- এফএম এবং মোবাইল ইন্টারনেট। স্টুডিও থেকে এফএম তরঙ্গে সম্প্রচার হওয়া সময়ের মধ্যে ৫-১০ সেকেন্ডের একটা 'টাইম ডিলে' বা তফাত থাকে। এটি রেডিও শ্রোতারা টের পান না। এরপর (ঝড়-বৃষ্টি না থাকলে) সিগনালটি কোন ধরনের বাধা ছাড়াই আপনার রেডিও সেট পর্যন্ত পৌঁছায়। কিন্তু মোবাইল টেলিফোন কিংবা ডেস্কটপ থেকে ইন্টারনেটের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শোনার সময় সেই সিগনাল অনেকগুলো সার্ভার হয়ে আপনার কাছে পৌঁছায়। ফলে বিভিন্ন পর্যায়ে 'বাফারিং' হয়। এতে 'টাইম ডিলে' ঘটে। এছাড়া আপনার হ্যান্ড-সেট যখন স্থানীয় মোবাইল টাওয়ারের সাথে যোগাযোগ করে তখনও বাফারিং ঘটতে পারে। আপনার হ্যান্ড-সেটের মেমরি কম থাকলেও এটা ঘটতে পারে। আশা করি কিছুটা ব্যাখ্যা করতে পেরেছি।

শামসুল হক, নরসিংদী

বিবিসি বাংলার প্রবাহ অনুষ্ঠান কি রেডিওতে শুনতে পাওয়া যায়? আর কয়টায় প্রচার করা হয়? দয়া করে জানাবেন।

বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় এফএম ব্যান্ডে বিবিসি বাংলার অনুষ্ঠান শুনতে পারেন। পাশাপাশি আমাদের ওয়েবসাইট থেকেও প্রবাহ অনুষ্ঠানটি শুনতে পাবেন। ওয়েবসাইটের ঠিকানা ওপরে দেয়া আছে। এছাড়া প্রতিদিন প্রবাহ প্রতিদিন ফেসবুকে লাইভ স্ট্রিম করা হচ্ছে।

মাহবুব রহমান মামুন, দারিয়াপুর,গাইবান্ধা

বিবিসি বাংলার ঢাকার নতুন স্টুডিও কোথায় করা হচ্ছে? প্রীতিভাজনেষুর অডিও চাই। এটা আমাদের সকল শ্রোতার দাবি।

বিবিসি বাংলার নতুন অফিস এখনও চুড়ান্ত করা হয়নি। আর প্রীতিভাজনেষুর অডিও প্রচারের কোন পরিকল্পনা আপাতত নেই। আপনাকে ধন্যবাদ।

মেশকাত রায়হান ম্যারিন, ফেসবুক

প্রিয় বিবিসি নিউজ বাংলা কর্তৃপক্ষ, আপনাদের ওয়েবপেজ ফেসবুক ফ্রি বেসিক'স এর মাধ্যমে গতকাল থেকে ব্রাউজ করা সম্ভব হচ্ছে না। দয়া করে সমস্যাটির সমাধান করুন। ধন্যবাদ।

সমস্যাটি আমাদের জানানোর জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। এই সমস্যা সম্পর্কে আমরা অবগত ছিলাম না। এখন নিশ্চয় খতিয়ে দেখবো।

নীল আকাশ, ফেসবুক

বিবিসি বাংলা থেকে প্রচারিত সব খবর যুক্তিসংগত মনে করতাম। কিন্তু আজ বিবিসি বাংলার ফেসবুক পাতায় একটি খবর দেখলাম, ইন্টারনেট আবিষ্কার নিয়ে লেখা একটি খবর, যা পড়ে মনে হল বিবিসি বাংলা অন্যদের মতো রূপকথার গল্প প্রচার শুরু করেছে। দয়া করে বলবেন কেন এই গল্প প্রচার করা হলো?

আপনি বোধহয় এই রিপোর্টটি সম্পর্কে বলছেন: 'ইন্টারনেট আবিষ্কার হয়েছে মহাভারতের যুগে: ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী'

আসলে একটু ধৈর্য সহকারে পড়লেই বুঝতে পারতেন কেন আমরা এই রিপোর্টটি তৈরি করেছি।

সম্রাট ব্যানার্জি, খুলনা

বাংলাদেশ তথা আমাদের এই উপমহাদেশে ধর্ষণ খুব ভয়াবহ হারে বেড়েছে। প্রায় প্রত্যেক দিনই কোন না কোন রেপ এর সংবাদ কানে আসে। কিন্তু, এর জন্য শাস্তি হচ্ছে এমন ঘটনা নজিরবিহীন। আশা করি, এর উপর আপনরা বিশ্লেষণধর্মী প্রতিবেদন প্রকাশ করবেন।

উপমহাদেশে ধর্ষণ এবং যৌন নির্যাতনের ঘটনা বাগে চেয়ে বেড়েছে তাতে কোন সন্দেহ নেই। পাশাপাশি যৌন নিপীড়ন এবং ধর্ষণের ঘটনা সম্পর্কেও লোকে আগের চেয়ে বেশি জানতে পারছে। অনেকেই এর জন্য ফেসবুক, টুইটের মত সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমকে ব্যবহার করছে। এমনকি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও সোশাল মিডিয়ার ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে। এ সম্পর্কে আমরা নিয়মিতই প্রতিবেদন, সাক্ষাৎকার, বিশ্লেষণ ইত্যাদি ব্যবহার করছি। আশা করি আপনি সেগুলো দেখছেন।

মো. অপু খন্দকার, সাভার

বিবিসি নিউজ বাংলাতে কি জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করার সুযোগ আছে? দয়া করে জানাবেন।

না ভাই, সেই সুযোগটি নেই বলে দু:খিত। আমাদের কোন জেলা প্রতিনিধি নেই। ঢাকার বাইরে বাংলাদেশের কোথাও আমাদের কোন শাখাও নেই।

গাজী আবু সাঈদ, খুলনা

মহান মে দিবসের আগে বিবিসি বাংলার কাছে অনুরোধ রইলো বাংলাদেশের রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল সমূহের শ্রমিকদের মানবেতর জীবন যাপন নিয়ে একটা প্রতিবেদন প্রচার করা হোক।। বিশেষ করে খুলনাস্থ খালিশপুর ও দৌলতপুর জুট মিলের শ্রমিকগন বর্তমানে সব চেয়ে বেশী নিগ্রহের শিকার হচ্ছেন।

আপনার অনুরোধ নিশ্চয় আমরা বিবেচনা করে দেখবো। আপনাকে ধন্যবাদ।

এ সপ্তাহে যাদের ইমেইল, ফেসবুক মেসেজ পেয়েছি:

সোনিয়া রিফাত, ঢাকা

মাকসুদা জাহান, ফেসবুক

রাবেল আহমেদ, ঢাকা

কাজী আমজাদ হোসেন আবির চট্টগ্রাম

আদম হোসেন, কুয়ালালামপুর

মেহেদি হাসান, ফেসবুক

আমাদের সাথে যোগাযোগের ঠিকানা:

ইমেইল: bengali@bbc.co.uk

ফেসবুক: www.facebook.com/BBCBengaliService/

টুইটার: https://twitter.com/bbcbangla

সম্পর্কিত বিষয়