মার্কিন সেনেটের ফ্লোরে দশ দিনের শিশু, ইতিহাস সৃষ্টি মায়ের

দশ দিন বয়সী শিশু কন্যাকে নিয়ে সিনেটে ভোটে অংশ নিয়ে ইতিহাস গড়লেন ইলিনয়ের সিনেটর ডাক ওয়ার্থ। ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption দশ দিন বয়সী শিশু কন্যাকে নিয়ে সেনেটের ভোটে অংশ নিয়ে ইতিহাস গড়লেন ইলিনয়ের সেনেটর ট্যামি ডাকওয়ার্থ

ইলিনয়ের সেনেটর ট্যামি ডাকওয়ার্থ দশ দিন বয়সী শিশুকে কোলে নিয়ে মার্কিন সেনেটের একটি ভোটাভুটিতে অংশ নিয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করেছেন।

৫০-বছর বয়সী এই সেনেটর ওয়াশিংটন ডিসিতে নিজের কার্যালয়ে যখন ছিলেন, তখন তাঁর প্রসব বেদনা ওঠেছিল। তখন তাঁর কার্যালয়ের কাছের একটি হাসপাতালে তাকে নেয়া হলে তিনি একটি কন্যাশিশুর জন্ম দেন।

তাঁর কোলে যখন নবজাতক, তখন মার্কিন সেনেটে নাসার প্রশাসক মনোনয়ন সহ গুরুত্বপূর্ণ কিছু বিষয়ে ভোট হওয়ার কথা ছিল।

তিনি এক টুইট বার্তায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছিলেন যে নবজাতক নিয়ে কিভাবে সাংবিধানিক দায়িত্ব পালন করবেন?

"আমাকে হয়তো সেনেটে ভোট দিতে হবে। তাই আমি নিশ্চিত করেছি যে মাইলির কাপড় সেনেট ফ্লোরের ড্রেস কোড ভঙ্গ করবে না কারণ তার একটি জ্যাকেট আছে।"

নিয়ম রয়েছে যে মার্কিন সেনেটের ফ্লোরে যেতে হলে ব্লেজার পড়তে হবে। অন্যদিকে, শিশুদের নিয়ে মার্কিন সেনেট সদস্যদের চেম্বারে আসা নিষিদ্ধ ছিল।

তবে মাত্র একদিন আগেই এই নিয়মের পরিবর্তন করা হয়।

ছবির কপিরাইট Tammy Duckworth Tweet
Image caption ট্যামি ডাকওয়ার্থ সেনেটে ভোটে অংশ নিতে পারবেন কিনা, তা নিয়ে উদ্বেগ তুলে ধরে তাঁর শিশু কন্যার কাপড়ের ছবিও প্রকাশ করেছিলেন

বুধবার মার্কিন সেনেট শিশুদের চেম্বারে আসার অনুমতি দিয়ে নতুন নিয়ম পাশ করে।

ইলিনয় থেকে নির্বাচিত ডেমোক্র্যাট সেনেটর ট্যামি ডাকওয়ার্থ এই সুযোগ পেয়ে এক বিবৃতিতে সেনেটের সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।

"আমি আমার সহকর্মীদের ধন্যবাদ জানাই, বিশেষ করে নীতি নির্ধারণী কমিটির নেতৃস্থানীয়দের। নতুন অভিভাবকদের যে অনেক সময় শিশুকে নিয়েও কর্মস্থলে দায়িত্ব পালন করতে হয়, সেটিকে তারা স্বীকৃতি দিয়েছেন।"

ভোটের পর সেনেটের অন্য সদস্যরা ট্যামি ডাকওয়ার্থের কাছে এসে তাঁকে শুভেচ্ছা জানান।

সেনেটের নীতি নির্ধারণী কমিটির চেয়ারম্যান রয় ব্লান্ট বলেছেন, "একজন বাবা বা মা হওয়া সহজ কাজ নয়। সেনেটের নিয়মনীতি দিয়ে সেই কাজ আরও কঠিন করার কোন মানে হয় না।"

সেনেটর ট্যামি ডাকওয়ার্থ ইতিহাস সৃষ্টি করেছেন, এ কথা লিখে তাঁর সহকর্মীদের অনেকেই টুইট করেছেন।

বিবিসি বাংলায় আরও পড়তে পারেন:

নিখোঁজের ৪০ বছর পর স্বজনের কাছে ফেরালো ইউটিউব

'বাংলাদেশের প্রতি শ্রদ্ধা না থাকলে সম্পর্ক খারাপ হবে'

ভারতে লোকেরা টয়লেটে যায় না কেন?

সম্পর্কিত বিষয়