'ইসলাম বিদ্বেষ কমছে, তবে পরিস্থিতি উদ্বেগজনক'-ওআইসি

এ বছর মার্চে বার্লিনের একটি মসজিদে আগুন-বোমা হামলার পরদিন মুসলিম মহিলারা সেখানে নামাজ পড়ছেন। ছবির কপিরাইট Adam Berry
Image caption এ বছর মার্চে বার্লিনের একটি মসজিদে আগুন-বোমা হামলার পরদিন মুসলিম মহিলারা সেখানে নামাজ পড়ছেন।

বিশ্বজুড়ে মুসলিমদের ওপর অত্যাচার, নির্যাতন এবং মুসলিম বিদ্বেষের নজরদারি করে গত ১০ বছর ধরে প্রতিবছর একটি রিপোর্ট প্রকাশ করছে আইসিসি।

তাদের সর্বশেষ বছরের বাৎসরিক রিপোর্টে (২০১৭-১৮ সালের জুলাই-এপ্রিল) ওআইসি বলছে, আগের বছরের তুলনায় বিশ্বজুড়েই ইসলাম বিদ্বেষ কিছুটা কমেছে, কিন্তু পরিস্থিতি এখনও আতঙ্কিত হওয়ার মতো।

মিয়ানমারে মুসলিমদের ওপর সেদেশের সরকারের বিদ্বেষের বিষয়টিও বিশেষভাবে উল্লেখ করা হয়েছে। পাশাপাশি, ইউরোপের বিভিন্ন দেশ সহ যুক্তরাষ্ট্র, দক্ষিণ কোরিয়া, চীন ও ভারতে মুসলিমদের ওপর নানা সহিংস ঘটনার উল্লেখ করা হয়েছে।

ওআইসি বলছে- অনেকে দেশে মুসলিমরা সুবিচার চাওয়ার সুযোগই পাচ্ছেনা, ফলে সেসব জায়গা থেকে তথ্য জোগাড় কঠিন হয়ে পড়ছে।

তবে একই সাথে ওআইসি বলছে, গতবছরের তুলনায় সামগ্রিকভাবে ইউরোপ আমেরিকায় কিছুটা ইতিবাচক লক্ষণ চোখে পড়েছে।

ছবির কপিরাইট ROBYN BECK
Image caption জনমতের চাপে অনেকটাই ব্যর্থ হয়েছে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের মুসলিম বিরোধী নীতি

যুক্তরাষ্ট্রে ইসলাম বিদ্বেষ কিছুটা কমার কারণ হিসাবে "যুক্তরাষ্ট্রে বর্ণ ও ধর্ম বিদ্বেষ নীতির ব্যর্থতা, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের ঘনিষ্ঠ সহযোগীদের মধ্যে ভাঙনের" বিষয়টি বিশেষভাবে উল্লেখ করা হয়েছে।

অন্যান্য কারণের মধ্যে বলা হয়েছে- ইউরোপের প্রধান কয়েকটি দেশের নির্বাচনে দক্ষিণ পন্থি ইসলাম বিদ্বেষী দলগুলোর পরাজয়, ধর্মীয় বিদ্বেষের বিরুদ্ধে সরকারি পদক্ষেপ এবং বিভিন্ন ধর্মের মধ্যে সৌহার্দ বাড়ানোর প্রয়াস।

এ মাসের ৫-৬ তারিখে বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকায় ওআইসি পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সম্মেলন হওয়ার কথা। সেখানেই ওআাইসির রিপোর্টটি নিয়ে বিস্তারিত কথাবার্তা হবে।

আরো পড়ুন: ভারতে শিখ ও হিন্দুরা মিলে মসজিদ তৈরি করলো