উত্তর ভারতে ধুলোঝড় আর বজ্রপাতে নিহত অন্তত ৯৪

ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption রাজস্থানের ভরতপুরে ধুলোর ঝড়ে বিধ্বস্ত একটি পরিবার

ভারতের উত্তরাঞ্চলীয় তিনটি রাজ্যে ধুলোর ঝড় আর বজ্রপাতে এখনও পর্যন্ত ৯৪ জন মারা গেছেন বলে সবশেষ খবরে জানা যাচ্ছে।

বুধবার সন্ধ্যায় হঠাৎই ওই ঝড় আর বজ্রপাত শুরু হয়, সঙ্গে বেশ কিছু জায়গায় নামে প্রবল বৃষ্টি।

এই ঝড়বৃষ্টিতে সবথেকে বেশী মৃত্যু হয়েছে উত্তর প্রদেশ আর রাজস্থানে। উত্তরপ্রদেশে ৬২ জন আর রাজস্থানে ৩২ জন মারা গেছেন। শয়ে শয়ে গাছ উপড়ে পড়েছে, বহু বাড়ির ছাদ উড়ে গেছে দুই রাজ্যেই।

এদিকে উত্তরাখন্ড রাজ্যের চামোলিতেও মেঘ ভাঙ্গা বৃষ্টিতে (ক্লাউডবার্স্ট) ভূমি ধসের খবর আসতে শুরু করেছে।

ওই তিন রাজ্যে বিবিসি-র সংবাদদাতারা জানাচ্ছেন বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্তও ধুলোর ঝড় আ বজ্রপাতের প্রকোপ যে এত বড় হয়েছে, তা বোঝা যায়নি।

কিন্তু বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গেই সরকারি কর্মকর্তারা মৃতের তালিকা প্রকাশ করতে শুরু করেন।

আমাদের পেজে আরও পড়ুন:

ভারতের গুরগাঁওতে নামাজ পড়ার সময় 'জয় শ্রীরাম' বলে হামলা

বয়স ১০৪ বছর, আর বেঁচে থাকতে চান না অস্ট্রেলিয়ার এক বিজ্ঞানী

স্বামীর পাসপোর্ট দিয়ে ম্যানচেস্টার থেকে দিল্লীতে

ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption উত্তরপ্রদেশের মথুরায় বুধবার রাতের ধুলোঝড়

উত্তরপ্রদেশ সরকার বলছে আগ্রাতে সবথেকে বেশী - ৩৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়াও বিজনৌর, বেরিলি, সাহারানপুর, পিলিভিট, ফিরোজাবাদ সহ নানা জেলা থেকে এসেছে মৃত্যুর খবর।

অন্যদিকে রাজস্থান সরকার বলছে এখনও পর্যন্ত তারা ৩২ জনের মৃত্যুর কথা নিশ্চিত করতে পারছে। মরুভূমির ওই রাজ্যে বৃষ্টি বা বজ্রপাত না হলেও প্রবল বেগে ধুলোর ঝড় চলেছে।

ধুলোর ঝড়ে বহু বাড়ি ধসে পড়েছে - আর সেই বাড়িঘর চাপা পড়েই ঘুমন্ত অবস্থায় রাজস্থানে বহু লোক মারা গেছেন।

তবে ভারতীয় আবহাওয়াবিজ্ঞান দপ্তর বলছে এই প্রবল ঝড়-বৃষ্টি মোটেই অস্বাভাবিক কিছু নয়।

আবহাওয়াবিজ্ঞান দপ্তরের মহাপরিচালক কে জে রমেশ বিবিসিকে জানিয়েছেন বুধবারের এই ধুলোর ঝড় বা ব্রজ সহ বৃষ্টিপাতের মূল কারণ হল 'ওয়েস্টার্ন ডিস্টার্বেন্স' বা পশ্চিমী ঝঞ্ঝা।

সম্পর্কিত বিষয়