বাংলাদেশ স্যাটেলাইট: বাণিজ্যিকভাবে কতটা সফল হবে?

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট যখন মহাকাশে যাবে, তার গ্রাফিক্স চিত্র ছবির কপিরাইট BANGLADESH COMMUNICATION SATELLITE COMPANY LIMITED
Image caption বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের গ্রাফিক্স চিত্র

মহাকাশে উৎক্ষেপণের অপেক্ষায় রয়েছে বাংলাদেশের বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট।

এই স্যাটেলাইট তৈরি এবং উৎক্ষেপণের পুরো প্রক্রিয়ায় প্রায় তিন হাজার কোটি টাকা খরচ করেছে বাংলাদেশ সরকার।

বাংলাদেশ সরকার বিষয়টি ন্যাশনাল প্রাইড বা জাতীয় গৌরবের অংশ হিসেবেই দেখছে। যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা থেকে যখন এই স্যাটেলাইট মহাকাশের দিকে ছুটবে তখন সে মুহূর্তটি উদযাপন করার জন্য সরকারের দিক থেকে নানা আয়োজন করা হয়েছে।

এর আগে পৃথিবীর ৫৬টি দেশ মহাকাশে স্যাটেলাইট পাঠিয়েছে।

এখন প্রশ্ন হচ্ছে, এই স্যাটেলাইট থেকে বাণিজ্যিকভাবে লাভবান হবার সম্ভাবনা কতটা? কী কাজে লাগবে এই স্যাটেলাইট?

প্রযুক্তির সাথে সংশ্লিষ্টরা বলছেন, কয়েকটি ক্ষেত্রে এই স্যাটেলাইট কাজে লাগতে পারে।

  • প্রত্যন্ত এলাকায় টেলিযোগাযোগ এবং ইন্টারনেট সেবা বিস্তৃত করা,
  • যারা ভি-স্যাট ব্যবহার করে তথ্য আদান-প্রদান করছেন তাদের কাজে,
  • বাংলাদেশের টেলিভিশন চ্যানেলগুলোর সম্প্রচারের জন্য, এবং
  • ডিটিএইচ সেবা অর্থাৎ বর্তমানে কেবল টিভির যে সংযোগ আছে সেটির মান উন্নয়ন করা।

ইন্টারনেট ব্যবসার সাথে জড়িত সিরাজুল হায়দার বলছেন, "সবচেয়ে বেশি সুবিধা হবে কেবল টিভির ক্ষেত্রে। ট্রিপল প্লে- অর্থাৎ ডিশ, ইন্টারনেট ও কলিং- এ তিনটি সেবা একসাথে ডিটিএইচ এর মাধ্যমে পাওয়া যাবে। এতে করে প্রত্যন্ত এলাকায় এই সুবিধা ছড়িয়ে দেয়া সম্ভব হবে।"

ধারণা করা হচ্ছে, বাংলাদেশের টেলিভিশন চ্যানেলগুলো বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের একটি বড় গ্রাহক হবে।

বেসরকারি টেলিভিশন মালিকদের সংগঠন বা অ্যাটকোর সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং একাত্তর টিভি'র ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোজাম্মেল হক বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশের টিভি চ্যানেলগুলো অ্যাপস্টার সেভেন নামের একটি বিদেশি স্যাটেলাইট ব্যবহার করছে।

তিনি বলেন, বিদেশি স্যাটেলাইট ভাড়া বাবদ বাংলাদেশের প্রতিটি টেলিভিশন স্টেশন মাসে ২৪ হাজার ডলার খরচ করে। সেই হিসেবে বাংলাদেশের সবগুলো টেলিভিশন চ্যানেলের বিদেশি স্যাটেলাইট ভাড়া বাবদ প্রতি মাসে মোট খরচের পরিমাণ প্রায় ১৫ লাখ ডলার।

বিবিসি বাংলায় আরও পড়তে পারেন:

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের যে সাতটি তথ্য না জানলেই নয়

আটকে গেল বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের উৎক্ষেপণ

Image caption শনিবার বাংলাদেশ সময় ভোররাত ২টা ১৪ মিনিটে বঙ্গবন্ধু ১ স্যাটেলাইট আবার উৎক্ষেপণের উদ্যোগ নেওয়া হবে।

বাংলাদেশের টিভি চ্যানেলগুলো কি এ স্যাটেলাইট ভাড়া নেবে?

"আমরা অবশ্যই নেব। যেমন ধরুন, ভাড়া বাড়িতে থাকলাম। কিন্তু বাড়িটা কখনো আমার হলো না। কিন্তু বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটে ভাড়া দিলে সেটি থেকে বাংলাদেশের আয় হবে," বলছিলেন মোজাম্মেল হক।

বাংলাদেশের টেলিকম খাতের একজন বিশেষজ্ঞ আবু সাইয়িদ খান বলেন, বাংলাদেশ এবং আন্তর্জাতিক বাজার লক্ষ্য করে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটে বিনিয়োগ করা হয়েছে।

এই স্যাটেলাইটের জন্য যে টাকা খরচ হয়েছে, আগামী সাত বছরের মধ্যে সে খরচ উঠে আসবে বলে মনে করে বাংলাদেশ সরকার।

মি: খান মনে করেন, "যদি পেশাদারিত্বের সাথে পরিচালনা করা হয়, তাহলে এ বিনিয়োগ উঠে আসা কষ্টকর ব্যাপার নয়।"

চ্যালেঞ্জ কোথায়?

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটে দুটো চ্যালেঞ্জ আছে। প্রথমত; এর অবস্থান এবং দ্বিতীয়ত; এর দূরত্ব।

বাংলাদেশের টিভি চ্যানেলগুলো বর্তমানে অ্যাপস্টার নামে যে স্যাটেলাইট ব্যবহার করছে সেটি বাংলাদেশের উপরে ৯০ ডিগ্রিতে অবস্থান করছে। অ্যাপস্টার সেভেনের মাধ্যমে একদিকে দুবাই এবং অন্যদিকে মালয়েশিয়া পর্যন্ত সম্প্রচারের সুবিধা পাওয়া যাচ্ছে।

মোজাম্মেল হক বলেন, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের অবস্থান হবে ইন্দোনেশিয়ার উপর ১১৯ ডিগ্রিতে এবং বাংলাদেশ থেকে ৪৫ ডিগ্রি অ্যাঙ্গেলে এই স্যাটেলাইট থাকবে। ফলে এই স্যাটেলাইটের মাধ্যমে মধ্যপ্রাচ্য পর্যন্ত সরাসরি পৌঁছনো সম্ভব হবে না। আরেকটি স্যাটেলাইটের মাধ্যমে মধ্যপ্রাচ্যে পৌঁছাতে হবে।

কিন্তু তারপরেও এ বিষয়টিকে খুব বড় কোন সমস্যা হিসেবে দেখছেন না মি: হক।

"এটা আমাদের মাথার উপরে হলে একদিকে আমরা দুবাই এবং অন্যদিকে মালয়েশিয়া পর্যন্ত চলে যেতে পারতাম।"

কিন্তু সিগন্যাল যথেষ্ট ভালো হলে এটি কোন সমস্যা নয় বলে মি: হক মনে করেন। তিনি বলেন, টেলিভিশন চ্যানেলগুলো বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট তিনমাস পরীক্ষামূলক-ভাবে ব্যবহার করতে পারবে।

সম্প্রচার মানের দিক থেকে সন্তুষ্ট হলেই তারা এই স্যাটেলাইট পাকাপাকিভাবে ব্যবহার করবেন বলে উল্লেখ করেন তিনি।

ছবির কপিরাইট JEWEL SAMAD
Image caption ধারণা করা হচ্ছে, বাংলাদেশের টেলিভিশন চ্যানেলগুলো বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের একটি বড় গ্রাহক হবে।

স্যাটেলাইট কোন পজিশনে থাকবে সেটির জন্য আইটিইউ (ইন্টারন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন ইউনিয়ন) থেকে বরাদ্দ নিতে হয়।

"কিন্তু আমাদের মাথার উপরের জায়গাটা নিয়ে তদানীন্তন সরকারগুলো আইটিইউকে বারবার তাগাদা দেয়া সত্ত্বেও বাংলাদেশের জন্য বরাদ্দ করা জায়গা কী হবে কোন সরকার ২০০৮-১০ এর আগ পর্যন্ত সেটি নিয়ে চিন্তাও করেনি। সেজন্য আমাদের উপরে জায়গা আমরা পাইনি," বলছিলেন মি: হক।

বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটে মোট ৪০টি ট্রান্সপন্ডারের মধ্যে অর্ধেক বিভিন্ন দেশের কাছে ভাড়া দেবার পরিকল্পনা আছে। বাকি অর্ধেক অর্থাৎ ২০টি ট্রান্সপন্ডার ব্যবহার করবে বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠানগুলো।

এর মধ্যে ১২টি ট্রান্সপন্ডার বরাদ্দ রয়েছে ডিটিএইচ (ডাইরেক্ট টু হোম) কোম্পানির জন্য। কিন্তু সে দুটি কোম্পানি যদি এ স্যাটেলাইট ভাড়া না নেয়, তাহলে এটির অর্ধেক অব্যবহৃত থেকে যাবে বলে উল্লেখ করেন মি: হক।

তিনি বলছেন, ডিটিএইচ কোম্পানিগুলোর বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট ভাড়া নেবার সম্ভাবনা আপাতত দেখা যাচ্ছে না।

সীমাবদ্ধতা কোথায়?

টেলিকম বিশেষজ্ঞ আবু সাইয়িদ খান মনে করেন, স্যাটেলাইট পরিচালনার ক্ষেত্রে বাংলাদেশের সীমাবদ্ধতা একটাই। সেটা হচ্ছে পরিচালনা কার্যক্রম।

তিনি মনে করেন, এখানে প্রযুক্তি কোন বিষয় নয়। বরং প্রযুক্তির উপর ভিত্তি করে ব্যবসা পরিচালনা করাটাই হচ্ছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। প্রযুক্তিগত দিক থেকে কোনই আশংকা নেই।

পরিচালনা যদি ঠিক মতো হয় তাহলে সাফল্য 'অবধারিত' বলে মনে করেন মি: খান।

উদাহরণ দিয়ে মি: খান বলেন, "বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স বোয়িং এবং এয়ারবাসের প্রযুক্তি ব্যবহার করে। সে প্রযুক্তি এমিরেটস বা সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্স তারাও ব্যবহার করে। অতএব এখানে প্রযুক্তি কোন বিষয় নয়। এখানে ব্যবসা পরিচালনার ধরণটাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।"

তিনি বলেন, বাংলাদেশের স্যাটেলাইট ব্যবহার করে বিদেশি কোম্পানিগুলো যদি লাভের সম্ভাবনা দেখতে পায় তাহলে তারা অবশ্যই সিটে ভাড়া নেবে।

বিবিসি বাংলায় আরও পড়ুন:

ট্রাম্প-কিম শীর্ষ বৈঠক হবে ১২ই জুন সিঙ্গাপুরে

কোন সে বাহনে চড়ে বেড়াতে যান কিম জং আন?

সিরিয়ায় তীব্র আকার নিয়েছে 'ইসরায়েল-ইরান' যুদ্ধ