ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতোল্লা খামেনেই কি ট্রাম্পকে উস্কাতে চাইছেন?

Presentational white space

দিন কয়েক আগে আমেরিকা ও ইরানের মধ্যে সম্পর্কে গুরুতর অবনতি ঘটেছে।

ইরান তার পারমাণবিক কার্যক্রম সীমিত করলে ইরানের ওপর নিষেধাজ্ঞা স্থগিত রাখার বিষয়ে বিভিন্ন দেশের মতৈক্যে যে চুক্তি হয়েছিল, ডোনাল্ড ট্রাম্প সেই চুক্তি থেকে সরে আসার সিদ্ধান্ত ঘোষণার পর দুই দেশের মধ্যে সম্পর্কে অবনতি ঘটেছে।

মি: ট্রাম্প তার এই সিদ্ধান্ত ঘোষণা করে বলেন ওই চুক্তির "গোড়ায় গলদ'' ছিল এবং ইরানের ওপর উল্টে তিনি আরও কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছেন।

ইরান এতে হতাশ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে। কিন্তু এখন মনে হচ্ছে ইরান অন্যভাবে বা পরোক্ষে তার অসন্তোষ তুলে ধরতে চাইছে।

গতকাল শুক্রবার দেশটির সর্বোচ্চ নেতা আলাতোল্লা আলি খামেনেই তেহরানের এক বই মেলা থেকে তার ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে একটি ছবি পোস্ট করেছেন।

ছবিটি সাদামাটা - তিনি একটি বই কৌতূহল নিয়ে পড়ছেন- কিন্তু তার হাতের এই বইটি নানা প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে। বইটি মাইকেল উল্‌ফের লেখা বই ''ফায়ার এবং ফিউরি''-র ফার্সি ভাষায় অনুবাদ।

এই বইয়ে দাবি করা হয়েছিল হোয়াইট হাউসের ভেতরের অবস্থা বিশৃঙ্খল।

বইটি প্রকাশের পর মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছিলেন বইটি লেখা ''মনগড়া গল্প'' নিয়ে এবং লেখক মি: উল্‌ফ একজন ''ভণ্ড"।

বইটি জানুয়ারি মাসে প্রকাশ পাবার পর তা রীতিমত আলোড়ন সৃষ্টি করেছিল। পর্যবেক্ষকদের মন্তব্য ছিল বইটি ''বিস্ফোরক'' কারণ এই বই-এ মি: ট্রাম্পের মানসিক সুস্থতা নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছিল।

বইয়ে বলা হয়েছিল প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প একজন অধৈর্য ব্যক্তি, তিনি নীতির গভীরে যেতে অক্ষম, তিনি এক কথা বারবার বলেন, এবং তার বক্তব্য অস্বচ্ছ।

এতে আরও দাবি করা হয়েছিল যে মি: ট্রাম্প বন্ধুদের স্ত্রীদের পেছনে ছোটেন এবং তার মেয়ে ইভাঙ্কা বাবার আড়ালে বাবার চুলের স্টাইল নিয়ে ব্যঙ্গ করেন।

ইরানের সঙ্গে পারমাণবিক চুক্তি থেকে মি: ট্রাম্প আমেরিকান সমর্থন প্রত্যাহার করে নেবার পর পরই ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রৌহানি কার্যত প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে লক্ষ্য করে পরোক্ষে তির্যক মন্তব্য করেছিলন। আর দিন কয়েকপরই আয়াতোল্লা খামেনেই-এর এই ছবি পোস্ট করা হল।

বিবিসি বাংলায় আরও পড়তে পারেন:

ইরানের সাথে পরমাণু চুক্তি থেকে সরে গেলেন ট্রাম্প

ইরান পরমাণু চুক্তি: ট্রাম্পের সিদ্ধান্তে হতাশা ও ক্ষোভ

ইরান সরকারের সঙ্গে এই পারমাণবিক চুক্তিতে আমেরিকার পক্ষে সই করেছিলেন মি: ট্রাম্পের পূর্বসুরী বারাক ওবামা।

এই চুক্তিতে সম্মতি স্বাক্ষর দিয়েছিল জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের পাঁচটি স্থায়ী সদস্য দেশ- আমেরিকা, ব্রিটেন, ফ্রান্স, চীন ও রাশিয়া এবং জার্মানি।

বুধবার আয়াতোল্লা খামেনেই বলেছিলেনে মি: ট্রাম্প বহু-দেশ ভিত্তিক এই পারমাণবিক চুক্তি থেকে সরে এসে ''ভুল করেছেন''।

''প্রথম দিন থেকেই আমি বলে এসেছি: আমেরিকাকে বিশ্বাস কোরো না,'' মি: খামেনেই বলেন।

ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করা ছবিতে আরও দেখা যায় যে ধর্মীয় নেতা মিঃ খামেনেই বই বিক্রেতার সঙ্গে বই মেলায় খোশ গল্প করছেন এবং বই পড়ছেন।

বিবিসি বাংলায় আরও পড়তে পারেন:

পাকিস্তানে 'হাযারা' সম্প্রদায় 'জাতিগত নিধনের' শিকার

মহাকাশে বাংলাদেশের প্রথম স্যাটেলাইট

আলঝেইমার্স রোগ শনাক্ত করার পাঁচটি উপায়