'জার্মানির লড়াই এখন বিশ্বকাপে টিকে থাকার'- ক্ষুব্ধ জার্মান মিডিয়া

জার্মানির বিল্ড পত্রিকার ওয়েবসাইট ছবির কপিরাইট Bild Wrbsite
Image caption জার্মানির বিল্ড পত্রিকার ওয়েবসাইট

বিশ্বকাপে রোববারের ম্যাচে মেক্সিকোর কাছে তাদের চ্যাম্পিয়ন দলের পরাজয়ে ক্ষোভ, হতাশা এবং অপমান উগরে দিচ্ছে জার্মান মিডিয়া।

"অপমান," "বিশৃঙ্খলা" "লজ্জা" - জার্মানির পত্র-পত্রিকার শিরোনামগুলোতে দল সম্পর্কে এসব বিশেষণ ব্যবহার করা হয়েছে। ছাপা হয়েছে পরাজয়ের পর হতাশ, বিমর্ষ, উদভ্রান্ত জার্মান দলের ফুটবলারদের ছবি।

বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে জার্মানি গত ৩৬ বছরের মধ্যে এই প্রথম হারলো। তাও আবার যে দলটি গতবারের শিরোপাধারী। শেষবার তারা প্রথম ম্যাচে হেরেছিল ১৯৮২ সালের বিশ্বকাপে। আলজেরিয়া পশ্চিম জার্মানিকে ২-১ গোলে হারিয়েছিল।

জার্মানির সর্বাধিক বিক্রিত সংবাদপত্র বিল্ড তাদের পাতাজোড়া শিরোনামে লিখেছে -" বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের বিশৃঙ্খল রক্ষণভাগ.. বিশ্বকাপে তাদের টিকে থাকাই এখন প্রশ্ন।" বিল্ড আরো লিখেছে, "মাঠে বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের উপস্থিতি দেখা যায়নি।"

তাদের ওয়েবসাইটে বিল্ড লিখেছে - "মেক্সিকোর বিরুদ্ধে বিব্রতকর পারফরমেন্সের পর বিশ্বকাপ নিয়েই আমরা এখন উদ্বিগ্ন।"

বার্লিনের দৈনিক মরগেন পোষ্ট লিখেছে -"পথ হারিয়েছে জার্মানি।"

ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption বিভ্রান্ত, হতাশ টমাস মুলার

ফ্রাংকফুটার আলগেমাইনে পত্রিকায় কোচ ইয়াকিম লো'র কড়া সমালোচনা করা হয়েছে।

"লো কোনোভাবেই তার পরিকল্পনা বদলাতে চান না। আর তার ফলে জার্মানি এখন চাপে।"

কেন লো দ্রুতগতির উইংগার মার্কোস রিউসকে বসিয়ে রেখে শ্লথগতির মেসুত ওজিলকে খেলালেন তা নিয়ে প্রশ্ন করছে পত্রিকাগুলো। কেন ম্যানচেস্টার সিটির তারকা লিরয় সানেকে তিনি দলেই নিলেন না তা নিয়েও নতুন করে প্রশ্ন তোলা হয়েছে।

মিউনিখ থেকে প্রকাশিত সংবাদপত্র জুডডয়েচে সাইটুং লিখেছে, "অতীতের কৌশল সবসময় কাজ করেনা। গত ১২ বছর ধরে তিনি (লো) যা করছেন, তা আর চলতে পারেনা।"

আরও পড়ুন:

বিশ্বকাপের ইতিহাস বদলে দিতে পারতো ভিএআর?

‘রমজানের ঐ রোজার শেষে’ গান জনপ্রিয় কিভাবে হল?

চিঠিপত্র: সম্পাদকের উত্তর