ইউরোপের নিষধাজ্ঞার পরেই রাখাইনের শীর্ষ সেনা কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করলো মিয়ানমার

মিয়ানমার সেনাবাহিনী ছবির কপিরাইট AFP
Image caption ইউরোপের নিষধাজ্ঞার পরেই মিয়ানমারের অন্যতম শীর্ষ সেনা কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করা হলো।

রোহিঙ্গা নিপীড়নের দায়ে অভিযুক্ত মিয়ানমারের একজন শীর্ষ সামরিক কর্মকর্তা মং মং সোয়ে-কে সেনাবাহিনী থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে।

সম্প্রতি ইউরোপীয় ইউনিয়ন মিয়ানমারের শীর্ষ সাত সেনা কর্মকর্তাদের উপর নিষেধাজ্ঞা দিয়ে যে তালিকা প্রকাশ করেছিল সেখানে এ সামরিক কর্মকর্তার নাম অন্তর্ভুক্ত ছিল।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং কানাডার পক্ষ থেকে এ নিষেধাজ্ঞা কার্যকরী করার কয়েক ঘন্টা পরেই সামরিক বাহিনী থেকে তাকে বরখাস্তের ঘোষণা আসলো।

আরো পড়ুন:

আন্তর্জাতিক আদালতকে দেওয়া পর্যবেক্ষণে যা বলা হল

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে দেরি হলে কী করবে বাংলাদেশ?

রোহিঙ্গা নির্যাতন: মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সাফাই

Image caption রোহিঙ্গাদের গ্রামে আগুন দিয়ে বহু বাড়ি জ্বালিয়ে দেয়া হয়েছে।

মেজর জেনারেল মং মং সোয়ের উপর গত বছরের ডিসেম্বর মাসে আমেরিকার তরফ থেকেও নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছিল।

গত বছরের শেষ দিকে সে সামরিক কর্মকর্তাকে রাখাইন অঞ্চল থেকে সরিয়ে নেয়া হয়েছিল।

এছাড়া অপর একজন শীর্ষ সেনা কর্মকর্তা স্বাস্থ্যগত কারণ দেখিয়ে পদত্যাগ করেছেন।

সেনাবাহিনীর কমান্ডার-ইন-চীফের দপ্তর থেকে দেয়া এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে ,রাখাইন অঞ্চলে ২০১৬ এবং ২০১৭ সালে মিয়ানমারের পুলিশের উপর রোহিঙ্গা সালভেশন আর্মির আক্রমণের সে অঞ্চলের 'নিরাপত্তা পকিল্পনা' যথাযথভাবে ব্যবস্থাপনা করতে ব্যর্থ হওয়ায় জেনারেল মং মং সোয়ে-কে সামরিক বাহিনী থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের নিষেধাজ্ঞার কারণে তাদের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে।

এছাড়া মিয়ানমার সামরিক বাহিনীর সাথে কোন রকম সামরিক সহযোগিতা করবে না ইউরোপীয় ইউনিয়ন।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের নিষেধাজ্ঞার তালিকায় থাকা আরেকজন শীর্ষ সামরিক কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট জেনারেল অং কেও জ-কে একমাস আগে স্বাগত কারণে পদত্যাগের সুযোগ দেয়া হয়েছে।

তিনিও রাখাইন অঞ্চলের নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিলেন।

ইউরোপীয় ইউনিয়ন বলেছে মিয়ানমারের যেসব সেনা এবং পুলিশ কর্মকর্তার উপর নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে তারা রাখাইন অঞ্চলে রোহিঙ্গাদের উপর নির্যাতন, হত্যা, যৌন সহিংসতা এবং অগ্নিসংযোগের জন্য দায়ী।

রাখাইন অঞ্চলে রোহিঙ্গাদের হত্যা, নারীদের ধর্ষণ এবং অগ্নিসংযোগ থেকে বাঁচতে ২০১৬ এবং ২০১৭ সালে দুই দফায় সাত লাখের বেশি রোহিঙ্গা মুসলমান বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে।

বিবিসি বাংলায় আরো পড়তে পারেন:

উত্তর কোরিয়ার রহস্যময় এক হোটেলের কাহিনী

আর্জেন্টিনার ভাগ্য নির্ভর করছে আইসল্যান্ডের উপর

এরদোয়ানের বিজয়ে কেন খুশি ইসরায়েল আর ইরান

রোহিঙ্গাদের জমি নিচ্ছে রাখাইন সরকার, কেটে নিচ্ছে ফসল

আপনার ডিভাইস মিডিয়া প্লেব্যাক সমর্থন করে না
বিশেষ সাক্ষাৎকারে প্রিয়াঙ্কা চোপড়া

চিঠিপত্র: সম্পাদকের উত্তর