চিকিৎসার মূল্য তালিকা মানুষের জন্য 'সুখবর': ক্যাব

ঢাকার একটি হাসপাতালে রোগীর চিকিৎসা চলছে। ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption ঢাকার একটি হাসপাতালে রোগীর চিকিৎসা চলছে।

বাংলাদেশের হাইকোর্ট সব ধরনের প্রাইভেট হাসপাতাল ও ক্লিনিক এবং ডায়াগনস্টিক সেন্টারে মূল্য তালিকা প্রদর্শনের যে নির্দেশ দিয়েছে তা সাধারণ মানুষের জন্য সুখবর বলে বর্ণনা করেছে ভোক্তা অধিকার সংগঠন।

কনজিউমার্স অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশ (ক্যাব)-এর সভাপতি গোলাম রহমান বলছেন, এই নির্দেশ স্বাস্থ্যখাতে স্বচ্ছতা বয়ে আনবে।

মঙ্গলবার এক রিট আবেদনের শুনানির সময় হাইকোর্টের এক বেঞ্চ এই আদেশ দেয়।

আগামী ১৫ দিনের মধ্যে এই আদেশ বাস্তবায়ন করার জন্য সরকার এবং স্বাস্থ্য পেশাজীবীদের প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

বিবিসির সাথে আলাপকালে ক্যাব সভাপতি গোলাম রহমান বলেন, বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক কিংবা ল্যাবরেটরিতে সাধারণ মানুষের অভিজ্ঞতা খুব সুখকর নয়।

যে সেবা নেয়ার জন্য ভোক্তারা সেখানে যান প্রায়শ সেই সেবার দাম পাল্টে ফেলা হয়।

ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption বাংলাদেশি চিকিৎসকদের ওপর আস্থার অভাবে অনেকে সুচিকিৎসার জন্য চলে যান বিদেশের হাসপাতালে।

আরো পড়ুন:

সৌদিতে নারী শ্রমিক নির্যাতনের কেন সুরাহা নেই?

ভারতে গরুর দুধের চেয়েও গোমূত্রের দাম বেশি

চুম্বনের ভাইরাল সেই ছবি নিয়ে বিতর্কের ঝড়

এর ফলে একেক হাসপাতালে একই ধরনের সেবার মূল্য ভিন্ন ভিন্ন থাকে।

তিনি বলেন, সেবার মূল্যের প্রশ্নে স্বচ্ছতা না থাকায় যে সেবার জন্য এক হাসপাতাল বা ক্লিনিকে ৩০০ টাকা নেয়া হয়, তার পাশের হাসপাতালে সেই একই সেবার জন্য ১৫০০ টাকা গুনতে হয়।

"এখন মূল্য তালিকা প্রকাশ্যে দেখা গেলে দামের তফাৎটা পরিষ্কার ধরা পড়বে," বলছেন তিনি, "ফলে সাধারণ মানুষ স্বচ্ছতার সাথে তাদের সিদ্ধান্ত নিতে পারবেন।"

তিনি জানান, ক্যাব দীর্ঘদিন ধরে ডাক্তারদের ফি'র ওপর একটি সিলিং নির্ধারণের জন্য আন্দোলন করে আসছে।

"ডাক্তারদের যোগ্যতা অনুযায়ী যেমন তাদের ফি নির্ধারণ করা দরকার, তেমনি টেস্টগুলোর জন্যও প্রাইস চার্ট থাকা প্রয়োজন।"

তবে আদালতের এই নির্দেশ আদৌ কার্যকর করা হচ্ছে কি না, সে সম্পর্কে সরকারকে সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে বলে মি. রহমান উল্লেখ করেন।

নজরদারি না থাকার ফলে হাসপাতাল-ক্লিনিকগুলো যাতে সবাই মিলে খুব বেশি দাম নির্ধারণ করতে না পারে সেদিকটাও দেখতে হবে বলে ক্যাব সভাপতি পরামর্শ দেন।

সম্পর্কিত বিষয়

চিঠিপত্র: সম্পাদকের উত্তর