অভিযোগ, পাল্টা-অভিযোগে সরগরম রাজশাহী

সিলেট নগরীর সবখানেই চোখে পড়বে এমন দৃশ্য ছবির কপিরাইট BBC Bangla
Image caption সিলেট নগরীর সবখানেই চোখে পড়বে এমন দৃশ্য

বাংলাদেশে আগামী সপ্তাহে রাজশাহী, সিলেট ও বরিশালের নির্বাচন নিয়ে সরগরম হয়ে উঠেছে জাতীয় রাজনীতি। রাজশাহীতে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে অভিযোগ পাল্টা অভিযোগে উত্তপ্ত হয়ে উঠছে নির্বাচনী পরিবেশ।

নৌকা আর ধানের শীষের পক্ষে শ্লোগান আর পাল্টা শ্লোগানে বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলীয় এই শহরটি এখন মুখরিত। মেয়র পদের জন্য আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মনোনীত প্রার্থীসহ মোট পাঁচজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

আগামী সোমবার একজন মেয়র আর দুশোরও বেশি কাউন্সিলর নির্বাচিত করতে ভোট দেবেন নগরীর তিন লাখেরও বেশি ভোটার।

কিন্তু এই শহরেরই একজন সংস্কৃতি কর্মী মনিরা রহমান বলছেন নানা ঘটনায় নির্বাচনের উৎসবমুখর পরিবেশ ক্রমাগত উত্তেজনায় রূপ নিচ্ছে।

তিনি বলেন, "অনেকের মধ্যেই একটা ভয় তৈরি হয়েছে যে আমার ভোট আমি দিতে পারবো কি-না। সরকারী দল অতি উৎসাহ থেকে উত্তেজনাকর অবস্থা তৈরি করে ফেলেছে"।

কিন্তু রাজশাহীর সাংবাদিক আনোয়ার আলী বলছেন নির্বাচনী তৎপরতায় সরকারী দলকে যতটা দেখা যায় ঠিক ততোটা চোখে পড়ছে না অন্য প্রার্থীদের কার্যক্রম।

তিনি বলেন, "শহরের সর্বত্রই সরকারি দলের প্রার্থীর পোস্টার চোখে পড়ে। প্রেসগুলোতে দেখছি বিএনপি প্রার্থীর পোস্টার লিফলেট স্তূপ হয়ে আছে। তারা সেগুলো লাগাতে পারছে না"।

আজই নিজের নির্বাচনী ইশতেহার প্রকাশ করে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল অভিযোগ করেছেন যে তার দলের অন্তত একশ নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

পরে বিবিসিকে তিনি বলেন একটি একতরফা নির্বাচনের পরিবেশ তৈরি করতে চাইছে সরকারি দল।

তিনি বলেন, "সরকারি দল একতরফা নির্বাচন করতে চায়। এখানে নির্বাচন কমিশনের কোন কর্মকাণ্ড নেই। পুলিশ গোটা নির্বাচনকে করায়ত্ত করে নির্বাচনকে ভীতিকর অবস্থায় ফেলেছে। নির্বাচনের দিন কী হবে জানি না"।

আরো পড়ুন:

বাংলাদেশে নির্বাচন নিয়ে আস্থার সংকট কি বাড়ছে?

সিলেট নির্বাচন: আলোচনায় 'জামায়াত-বিএনপি বিরোধ'

তবে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বিরোধী দলীয় প্রার্থীর অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছেন সরকারী দল আওয়ামী লীগের প্রার্থী খায়রুজ্জামান লিটন।

তিনি বলেন বিরোধী দল নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানো বা নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার পাঁয়তারা করছে।

এমন অভিযোগ আর পাল্টা অভিযোগে সরগরম এই শহরটি।

বেসরকারি সংস্থা সুজনের রাজশাহী জেলা সভাপতি আহমদ শফিউদ্দিন বলছেন মেয়র পদ নিয়ে জাতীয় রাজনীতির উত্তাপ টের পাওয়া যাচ্ছে।

তবে এখনো যে অবস্থা তাতে উদ্বিগ্ন হবার মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়নি বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি।

তবে উত্তাপে গুরুত্ব না দিয়ে রাজশাহীর সহকারী রিটার্নিং অফিসার আতিয়ার রহমান বলছেন নির্বাচনের সব প্রস্তুতিই সম্পন্ন করেছেন তারা।

সম্প্রতি হয়ে যাওয়া গাজীপুর ও খুলনা সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনের পর এবার রাজশাহীসহ তিনটি সিটির নির্বাচন শেষ পর্যন্ত কেমন হয় সেদিকেই এখন সবার আগ্রহ।

বিরোধী দলের সংশয় থাকলেও মিস্টার রহমান বলছেন তারা একটি ভালো নির্বাচন করবেন বলেই আশা করছেন।

বিবিসি বাংলায় আরো পড়তে পারেন:

চুম্বনের ভাইরাল সেই ছবি নিয়ে বিতর্কের ঝড়

সৌদিতে নারী শ্রমিক নির্যাতনের কেন সুরাহা নেই?

বাংলাদেশে ছাত্রীদের নিয়ে মন্তব্য করে নেপালি মন্ত্রীর পদত্যাগ

Image caption সিলেটে মেয়র নির্বাচনের প্রচারণা

চিঠিপত্র: সম্পাদকের উত্তর