পাকিস্তানে নির্বাচন তারপরও অভ্যূত্থানের ভয়

পাকিস্তান ছবির কপিরাইট AFP

পাকিস্তানে আজ ১১তম জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। কিন্তু দেশটিতে নিরঙ্কুশ গণতন্ত্রের স্বপ্ন আবারও ফিকে হয়ে যাবে, এমনটা আশংকা করা হচ্ছে।

৭০ বছরের ইতিহাসে দেখা যায়, পাকিস্তানে কখনও আপাতদৃশ্যের গণতন্ত্র এসেছে। আবার পালাবদল করে এসেছে পুরোপুরি সামরিক সরকার।

এই দুই ধরণের ব্যবস্থা যেন বারবার পালাবদল করেছে।

আর এই প্রক্রিয়ার মাঝে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে পাকিস্তানের সাথে আন্তর্জাতিক অঙ্গনের দ্বন্দ্ব এবং পাকিস্তান হয়ে উঠেছে জঙ্গী এবং সন্ত্রাসীদের আশ্রয়স্থল।

এবারের নির্বাচন নিয়ে যে পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে, সেটাকে কেউ কেউ 'গণতান্ত্রিক অভ্যূত্থানের' ঝুঁকি হিসেবে দেখছেন।

বিবিসি বাংলায় আরও পড়ুন:

যে পীররা প্রভাবিত করেন পাকিস্তানের নির্বাচন

পাকিস্তানের এবারের নির্বাচন সর্ম্পকে যা জানা জরুরী

আপনার ডিভাইস মিডিয়া প্লেব্যাক সমর্থন করে না
পাকিস্তানে নির্বাচন নিয়ে যে পাঁচটি তথ্য জানা দরকার

সেজন্য বরাবরের মতো এবারও সন্দেহ করা হচ্ছে পাকিস্তানের সামরিক বাহিনীকে।

অতীতে পাকিস্তানের সেনাবাহিনী সরাসরি অভ্যূত্থান ঘটিয়েছে, আর তা নাহলে বিশেষ ক্ষমতা ব্যবহার করে নির্বাচিত সরকারের পতন ঘটিয়েছে।

পাকিস্তানের সেনাবাহিনী বিভিন্ন সময় নির্বাচিত সরকারের পতন ঘটিয়ে নির্বাচনের প্রক্রিয়ায় এমন কৌশল নিয়েছে, যেন সেই সরকার আবার ক্ষমতায় আসতে না পারে।

এসব বিশেষ ক্ষমতা ব্যবহার বন্ধ হয়েছিল ২০০৮ সালে।সে কারণে পাকিস্তানে প্রথমবারের মতো একটি নির্বাচিত সরকার ২০১৩ সালে তাদের মেয়াদ শেষ করতে পেরেছিল।

তখন থেকেই আবার পাকিস্তানের গণতন্ত্রের স্রোত উল্টোদিকে বইতে শুরু করেছে।

সমালোচকরা বলছেন, সামরিক প্রশাসন অতীতের মতো এখন আবার পূর্ণ ক্ষমতা ফিরে পেতে পুরোনো কৌশলের আশ্রয় নিচ্ছে।

Image caption ১৯৪৭ থেকে সামরিক ও বেসামরিক নেতৃত্বের পালাবদল হয়েছে পাকিস্তানে

সন্দেহের পিছনে তিনটি কারণ

পাকিস্তানের সামরিক বাহিনী যে সন্দেহের কেন্দ্রে এসেছে, সেজন্য তিনটি ঘটনাকে প্রমাণ হিসেবে বলা হচ্ছে।

প্রথমত, আদালত সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফসহ বেছে বেছে বিদায়ী সরকারের কয়েকজনকে অভিযুক্ত করেছে। আইন বিশেষজ্ঞদের অনেকে বলেছেন, পাকিস্তানে বিচার বিভাগ বিভিন্ন আইন ব্যবহার করে বিদায়ী সরকারের ডানা কেটে দিয়ে বিরোধী পক্ষগুলোর জন্য সুযোগ তৈরি করছে।

ইসলামাবাদ হাইকোর্টের বিচারপতি শওকত আজিজ সিদ্দিকীর বক্তব্যেও বিষয়গুলো উঠে এসেছে।

গত রোববার রাওয়ালপিন্ডি বার এসোসিয়েশনের অনুষ্ঠানে বিচারপতি সিদ্দিকী বলেছেন, গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই বিচারবিভাগে হস্তক্ষেপের চেষ্টা করছে। নওয়াজ শরিফকে যেন মুক্তি দেয়া না হয়, সেজন্য সংস্থাটি চাপ সৃষ্টি করে বলে তিনি উল্লেখ করেছেন।

গত বছর দুর্নীতির অভিযোগে সুপ্রিমকোর্টের আদেশে ক্ষমতাচ্যুত হন নওয়াজ শরিফ।নিম্ন আদালত তাঁকে দশ বছরের সাজা দিয়েছেন।কিছুদিন আগে তিনি দেশে ফিরে জেলে গেছেন।

এদিকে, বিচারপতি সিদ্দিকী এমন বক্তব্যও দিয়েছেন যে, তিনি আইএসআই এর বিরুদ্ধে সত্য কথা বলতে ভয় পাননা।

তিনি বলেছেন, "আমাকে যদি মেরে ফেলতেও চায়, তারপরও আমি ভয় পাই না।"

দ্বিতীয়ত, এবার নিষিদ্ধঘোষিত জঙ্গী সংগঠনগুলোকে নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় অংশ নেয়ার সুযোগ দেয়া হয়েছে। বিশ্লেষকরা বলছেন, কর্তৃপক্ষ জঙ্গীদের কর্মকান্ড দেখেও না দেখার ভান করছে।

তৃতীয়ত, ভোটের প্রক্রিয়ায় বা তা পরিচালনার জন্য সেনাবাহিনীকে ব্যাপক ক্ষমতা দেয়া হয়েছে।

Image caption পাকিস্তানের নির্বাচনে প্রধান তিন প্রতিদ্বন্দ্বী নওয়াজ শরীফ, ইমরান খান এবং বিলাওয়াল ভট্টো।

এসবের কিছু কিছু আলামত ইতিমধ্যেই দেখা গেছে।

নওয়াজ শরিফের পাকিস্তান মুসলিম লীগের অনেক প্রার্থীকে দল ছেড়ে সাবেক ক্রিকেটার ইমরান খানের দল তেহরিক-ই-ইনসাফে যোগ দিতে অথবা স্বতন্ত্র প্রার্থী হতে বাধ্য করা হয়েছে।

যারা দল ছাড়ার টোপে রাজি হননি, তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা হয়েছে বা তাদের হয়রানি পোহাতে হচ্ছে।

প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টোর দল পাকিস্তান পিপলস পার্টিও চাপে রয়েছে।দলটির সিনিয়র কয়েকজন সদস্যের বিরুদ্ধে অর্থ পাচারের অভিযোগ নতুন করে তোলা হয়েছে।

বামপন্থী আওয়ামী ন্যাশনাল পার্টির গুরুত্বপূর্ণ একজন প্রার্থী গত সপ্তাহে পেশোয়ারে আত্নঘাতী হামলায় নিহত হয়েছেন।একই ধরণের হামলায় আরও দু'জন প্রার্থী নিহত হয়।

বেলুচিস্তানে ধর্মনিরপেক্ষতায় বিশ্বাসী একজন প্রার্থি গিজেন মারিকে গৃহবন্দি হিসেবে থাকতে হচ্ছে।

কিন্তু পাশের নির্বাচনী এলাকাতেই জঙ্গী সম্পৃক্ততা আছে, এমন একজন প্রার্থী শফিক মেঙ্গাল নির্বিঘ্নে নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়েছেন।

তার মতো নিষিদ্ধ জঙ্গী সংগঠনগুলোর অনেক প্রার্থী নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে।

গণমাধ্যমও অজানা কর্তৃপক্ষ থেকে চাপের মধ্যে রয়েছে। নির্বাচনের বাছাই করা কিছু খবর প্রচারে তাদের বাধ্য করা হচ্ছে।

নির্বাচনের ফলাফল কোনো একটি দলের পক্ষে যাবে, তা স্পষ্ট নয়। ফলে কে প্রধানমন্ত্রী হবেন, তাতে প্রভাব খাটানো সুযোগ থাকে।

এমন পরিস্থিতি তৈরির পিছনেও সামরিক বাহিনীর কৌশল রয়েছে বলে বিশ্লেষকরা মনে করছেন।

আর এই প্রেক্ষাপটে নিরঙ্কুশ গণতন্ত্র আসলে অনেক দূরে বলেই বলা হচ্ছে।

আসলে গণতন্ত্রের আড়ালে সামরিক শক্তির অধীনে একটা শাসন ব্যবস্থা বা একটা অভ্যূত্থান হচ্ছে- এই ভয় কাজ করছে বিশ্লেষকদের মাঝে।

আরো পড়ুন:

আপনার ডিভাইস মিডিয়া প্লেব্যাক সমর্থন করে না
পাকিস্তানে নারী ভোটারদের সংখ্যা এত কম কেন?

চুম্বনের ভাইরাল সেই ছবি নিয়ে বিতর্কের ঝড়

বাংলাদেশে ছাত্রীদের নিয়ে মন্তব্য করে নেপালি মন্ত্রীর পদত্যাগ

সম্পর্কিত বিষয়

চিঠিপত্র: সম্পাদকের উত্তর