বাংলাদেশের সরকারি চাকরিতে কোটা বাতিলের সুপারিশ সচিব কমিটির, তবে মুক্তিযোদ্ধা কোটা নিয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি

এ বছর এপ্রিলে কোট সংস্কারের দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষোভ (ফাইল ফটো) ছবির কপিরাইট NURPHOTO
Image caption এ বছর এপ্রিলে কোট সংস্কারের দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষোভ (ফাইল ফটো)

বাংলাদেশে সরকারি চাকরিতে কোটা ব্যবস্থা সংস্কারের জন্য গঠিত সচিব পর্যায়ের একটি কমিটি তাদের প্রাথমিক প্রস্তাবনায় প্রায় সব ধরণের কোটা বাতিল করার সুপারিশ করেছে।

তবে এই কমিটি সবচেয়ে আলোচিত কোটা, অর্থাৎ মুক্তিযোদ্ধা কোটা থাকবে কি থাকবে না, সে ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি আদালতের এ সংক্রান্ত একটি রায় থাকার কারণে।

সোমবার মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকের পর ঢাকায় সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রিপরিষদ সচিব শফিউল আলম বলেন, "আমাদের কমিটির সুপারিশ হলো কোটা প্রায় উঠিয়ে দেয়া, মেধাকে প্রাধান্য দেয়া।"

"তবে কোর্টের একটি ভারডিক্ট আছে, সুপ্রীম কোর্টের, যে মুক্তিযোদ্ধা কোটা প্রতিপালন করতে হবে, সংরক্ষণ করতে হবে এবং যদি খালি থাকে তাহলে খালি রাখতে হবে," জানান সচিব।

মি. আলম বলেন, এ বিষয়ে সরকার আদালতের কাছে মতামত চাইবে।

তিনি বলেন, যদি আদালত এটিকেও মওকুফ করে দেয়, তাহলে কোনো ধরণের কোটা থাকবে না। আর আদালত যদি রায় দেয় ঐ অংশটুকু সংরক্ষিত রাখতে হবে তাহলে ঐ অংশটুকু বাদ দিয়ে বাকি সব উন্মুক্ত করে দেয়া হবে।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, আদালত থেকে যে রায় দেয়া হয়েছিল, সেটি তারা পুরোপুরি বিশ্লেষণ করতে সক্ষম হননি, তাই এ বিষয়ে আদালতের মতামত চাওয়া হবে।

বাংলাদেশে প্রথম শ্রেণীর সরকারি চাকরিতে এখন সব মিলিয়ে ৫৬ শতাংশ কোটা রয়েছে।

সম্প্রতি শিক্ষার্থীরা পুরো কোটা ব্যবস্থা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলন করলেও কোটার একটি বড় অংশ, অর্থাৎ ৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধার সন্তান এবং তাদের নাতি-নাতনিদের জন্য সংরক্ষিত থাকায় সেটি নিয়েই সবচেয়ে বেশী আলোচনা হচ্ছে।

এর বাইরে নারীদের জন্য ১০ শতাংশ, অনগ্রসর জেলার বাসিন্দাদের জন্য ১০ শতাংশ, ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর জন্য ৫ শতাংশ আর প্রতিবন্ধীদের জন্য এক শতাংশ কোটা বর্তমান ব্যবস্থায় সংরক্ষিত রাখা হয়েছে।

এই ব্যবস্থা সংস্কারের দাবিতে বেশ কয়েক মাস ধরে আন্দোলন করছেন শিক্ষার্থীরা। আন্দোলনের প্রেক্ষাপটে গত ১১ই এপ্রিল বাংলাদেশের জাতীয় সংসদে দেয়া একটি ঘোষণায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পুরো কোটা ব্যবস্থা বাতিলের ঘোষণা দেন।

তবে গত ১২ই জুলাই তিনি আবার সংসদে বলেন, মুক্তিযোদ্ধা কোটার বিষয়ে হাইকোর্টের আদেশ থাকায় সেটি সরকারের পক্ষে পরিবর্তন করা সম্ভব নয়।

পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর জন্য সংরক্ষিত কোটা সম্পর্কে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, "আমরা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখেছি ওনারা অগ্রসর হয়ে গেছেন।"

"আমাদের এখন সময় হয়েছে, আমরা এখন উন্মুক্ত প্রতিযোগিতায় যাবো," বলেন মি. আলম।

খুব শিগগিরই কমিটির চুড়ান্ত রিপোর্ট দেয়া হবে বলেও তিনি জানান।

আরো পড়তে পারেন:

সরকারি চাকুরিতে কোটা কি রাখতেই হবে?

'কোটা বাতিল নিয়ে কোন আফসোস থাকবে না'

চাকরিতে কোটা নিয়ে এত ক্ষোভের কারণ কী?

সম্পর্কিত বিষয়