ভারতে মানুষ-মারা বাঘিনীকে বাঁচানোর আবেদন খারিজ হলো আদালতে

ভারত বন্যপ্রাণী বাঘ ছবির কপিরাইট Frédéric Soltan
Image caption ভারতের অভয়ারণ্যগুলোয় চেষ্টা চলছে বাঘের সংখ্যা বাড়ানোর

ভারতে মানুষ-মারা একটি বাঘিনীকে যেন গুলি করে হত্যা না করা হয়, এ মর্মে করা এক আপিল আবেদন খারিজ করে দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট।

কর্মকর্তারা বলছেন, মহারাষ্ট্র রাজ্যে বনভূমির কাছে গরুছাগল চরানোর সময় পাঁচজন গ্রামবাসী নিহত হয়েছে ওই বাঘিনীটির হাতে।

আদালত বলেছে, বনরক্ষীরা যদি বাঘটিকে ধরতে ব্যর্থ হয় এবং গুলি করে হত্যা করতে বাধ্য হয় তাহলে আদালত এতে হস্তক্ষেপ করবে না।

বনরক্ষীরা বাঘটিকে ধরার পরিকল্পনা করার পর বন্যপ্রাণী সংরক্ষণকর্মীরা আদালতে আপীল করেন যে, বাঘিনীটির প্রতি দয়া দেখানো হোক। ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে একে প্রাণভিক্ষার আবেদন বলে অভিহিত করা হয়।

সংরক্ষণকর্মীরা বলেন, বন বিভাগ এটা প্রমাণ করতে ব্যর্থ হয়েছে যে গ্রামবাসীদের মৃত্যুর জন্য বাঘিনীটিই দায়ী।

ভারতে কিছু সংবাদমাধ্যমে বলা হয়, বাঘিনীটির হাতে অন্তত ১৩ জন নিহত হয়েছে।

তবে বিশেষজ্ঞরা বলেন, একটি মাত্র বাঘের হাতে এত লোক আক্রান্ত হওয়া খুবই অস্বাভাবিক।

ভারতে প্রাণী সংরক্ষণ নীতির ফলে বাঘের সংখ্যা এখন বাড়ছে কিন্তু বনভূমির পরিমাণ কমে আসায় তাদের সাথে মানুষের সংঘাতও বাড়ছে।

আরো পড়ুন:

আজান শুনে সোনার মলাটওয়ালা কোরানটি নেয়নি চোরেরা

আসামের 'অবৈধদের' বাংলাদেশে পাঠানোর হুমকি

বাংলাদেশেই সবচেয়ে দ্রুত বাড়ছে 'অতি ধনীর' সংখ্যা

সম্পর্কিত বিষয়