পবিত্র নদী হিসেবে বিবেচিত গঙ্গার তীরে ঘটা যে ধর্ষণের ভিডিও নিয়ে ভারতে চলছে তোলপাড়

গঙ্গা নদীতে গোছল করছেন অনেকে ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption ধর্ষণের ঘটনাটি পবিত্র বলে বিবেচিত গঙ্গা নদীর পাশে হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে (ফাইল ছবি)।

ভারতের পাটনায় হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের কাছে পবিত্র বলে বিবেচিত গঙ্গা নদীর পাশে একজন নারীকে ধর্ষণের ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার পর দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

পুলিশ বলছে, ওই দুই ব্যক্তি পালাক্রমে ওই নারীকে নির্যাতন করেছে এবং তা ভিডিও করেছে।

জানা যাচ্ছে, রবিবার ভোরে গঙ্গা নদীতে স্নান করার সময় ওই দুই ব্যক্তি তাকে ধরে নিয়ে যায়।

ভিডিওতে শোনা যায়, গঙ্গা নদীর পবিত্রতা রক্ষার জন্য ধর্ষণকারীদের অনুরোধ করছেন নির্যাতনের শিকার নারী - শ্রদ্ধা ও সম্মান হিসাবে যে নদীকে তিনি 'মা' বলেও উল্লেখ করেন।

পুলিশ বলছে, যে মোবাইল ফোনে ওই ঘটনা ভিডিও করা হয়, সেটি জব্দ করে ফরেনসিক ল্যাবরেটরিতে পাঠানো হয়েছে।

তবে পুলিশ কিভাবে এই ঘটনার কথা জানতে পেরেছে, তা নিয়ে পরস্পরবিরোধী তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। পুলিশ দাবি করেছে, অনলাইনে ভিডিওটি ছড়িয়ে পড়ার পরেই তারা এই ঘটনা কথা জানতে পারে।

তবে স্থানীয় খবরে বলা হচ্ছে যে, ধর্ষণের শিকার হওয়ার পর থানায় গিয়েছিলেন ওই নারী, কিন্তু মামলা না নিয়ে তাকে ফিরিয়ে দেয়া হয়।

বিবিসি বাংলার অন্যান্য খবর:

কোটা বহালের দাবিতে রাতে ঢাকার শাহবাগ অবরোধ

'ভূমিকম্পে তরল মাটিতে ডুবে যেতে পারে ঢাকার বাড়িঘর'

একটি ধর্ষণের ঘটনা ও বাংলাদেশের স্বর্ণ নীতিমালা

ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption ভারতে ধর্ষণের প্রতিবাদে বিক্ষোভের পর আইনে অনেক কড়াকড়ি আনা হয়েছে, তা সত্ত্বেও এ ধরণের ঘটনা পুরোপুরি বন্ধ হয়নি।

স্থানীয় পুলিশের কর্মকর্তা আনন্দ কুমার বুধবার বলছেন, ''ওই ভয়াবহ ঘটনার পর থেকে তিনি বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছিলেন এবং ঘটনা সম্পর্কে কাউকেই জানাননি।''

ওই নারী এবং তার ওপর হামলাকারীরা একই গ্রামের বাসিন্দা বলে তিনি জানিয়েছেন। এখন ওই নারী এ বিষয়ে অভিযোগ দিতে রাজি হয়েছেন।

পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ভারতে প্রতি ১৩ মিনিটে একজন নারী ধর্ষণের শিকার হন, কিন্তু এ নিয়ে সামাজিক ট্যাবুর কারণে অনেক ঘটনাই চাপা পড়ে থাকে।

২০১২ সালে দিল্লিতে একজন ছাত্রীকে বাসে ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনা এবং এরপর ব্যাপক বিক্ষোভের পর থেকে দেশটিতে যৌন সহিংসতার বিরুদ্ধে কড়াকড়ি পদক্ষেপ বেড়েছে।

এরপর মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে ধর্ষণ বিরোধী শক্ত আইন জারি করে দেশটির সরকার।

সম্পর্কিত বিষয়