সংলাপ: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা 'সংবিধানসম্মত' শব্দটি জুড়ে দিয়ে শর্ত বেঁধে দিলেন?

শেখ হাসিনা এবং ড কামাল হোসেন
Image caption বৃহস্পতিবার মুখোমুখি বসতে চলেছেন শেখ হাসিনা এবং ড কামাল হোসেন

সংলাপের আমন্ত্রণ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে চিঠি দিয়েছেন ঐক্যফ্রন্ট নেতা কামাল হোসেনকে - তাতে 'সংবিধান সম্মত সকল বিষয়ে' আলোচনার কথা আছে।

এর মানে কি এই যে প্রধানমন্ত্রী সংলাপে রাজি হলেও 'বর্তমান সংবিধানে যা আছে সেভাবেই নির্বাচনের' অবস্থান থেকে নড়ছেন না?

ঐক্যফ্রন্টের প্রধান দাবি 'সংসদ ভেঙে দিয়ে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন' - যা মেনে নিলে সংবিধানে পরিবর্তন আনতে হবে এবং সরকারি দল কোনভাবেই তাতে রাজী নয় বলে বহুবার জানিয়েছে।

তাহলে প্রশ্ন: বিরোধীদের দাবি কতদূর মেনে নিতে পারেন শেখ হাসিনা? উপেক্ষিত হলে বিরোধীদের সামনেই বা বিকল্প কি?

বৃহস্পতিবার যে সংলাপ গণভবনে শুরু হচ্ছে তার পরিণতি শেষ পর্যন্ত কি দাঁড়াবে তা নিয়ে রাজনৈতিক মহলে তো বটেই, বিশ্লেষকদের মধ্যে, এমনকি সাধারণ মানুষদের মধ্যেও।

বিবিসি বাংলার ফেসবুক পাতায় পাতায় বহু পাঠক মন্তব্য করছেন, এই সংলাপ অর্থবহ কিছু বয়ে আনবে তা নিয়ে তাদের ভরসা নেই। বাপি সাইদ নামে একজন লিখছেন, "সংলাপ হবে। দাবী গুলো উপস্থাপন করা হবে। তারপর এগুলো পক্ষে বিপক্ষে চুলচেরা বিশ্লেষণ হবে। সরকারী দল একটা বা দুইটা দাবী মানবে চাইবে তাও আবার শর্ত সাপেক্ষে। ঐক্য-ফ্রন্ট ওয়াক আউট করবে। আবার ডাকা হবে এভাবে সময় ফুরিয়ে যাবে। এক দিন দু' দিন করে বৈঠক চলতে চলতে অমীমাংসিত অবস্থায় ঝুলে যাবে।"

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক এবং রাজনৈতিক ভাষ্যকার ড তারেক শামসুর রহমান বিবিসিকে বলেন, সংলাপ "ফলপ্রসূ" হবে তা তিনি নিশ্চিত করে ভাবতে পারছেন না।

কারণ, তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী ইতিমধ্যেই পরিষ্কার ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি কতটা দাবি দাওয়া মানতে পারবেন।

ছবির কপিরাইট Facebook Tareq Shamsur Rahman
Image caption 'সংবিধান সংশোধন সরকার মানবে না' - ড তারেক শামসুর রহমান

ড. রহমান বলেন, "সংবিধান সম্মত শব্দটি দিয়ে প্রধানমন্ত্রী আবারো বুঝিয়ে দিয়েছেন যে সংবিধানের ধারার বাইরে তিনি যাবেন না।"

"সাত দফার অন্য কিছু তিনি হয়তো মেনে নিতে পারেন, কিন্তু সংসদ ভেঙ্গে দিয়ে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবি তিনি মানবেন সে সম্ভাবনা নেই বললেই চলে।"

'সংবিধান সংশোধন সরকার মানবে না'

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক এবং রাজনৈতিক বিশ্লেষক ড. সৈয়দ মনজুরুল ইসলামও বলছেন, কিছু পূর্বশর্ত যে সরকার দেবে তাতে তিনি অবাক হচ্ছেন না।

"সংবিধান সংশোধন সরকার মানবে না। সুতরাং নিরপেক্ষ সরকার গঠন করে নির্বাচন করার দাবি মেনে নেয়ার সম্ভাবনা আমি দেখছি না।"

তিনি বলছেন - সাত দফার অন্য কিছু দাবি হয়তো সরকার মেনে নিতে পারে, যেমন ইভিএম ব্যবহার না করতে রাজী হতে পারে, বিরোধী নেতা-কর্মীদের মামলা সম্পর্কিত দাবি দাওয়া মেনে নিতে পারে, এমনকি ক্ষেত্র-বিশেষে সেনা মোতায়েনের কথাও হয়তো সরকার বিবেচনা করতে পারে।

Image caption আন্তর্জাতিকভাবে একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচন যাতে হতে পারে, সেটা প্রধানমন্ত্রী চাইছেন - ড সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম

ড. ইসলাম মনে করেন, সংবিধানের ভেতরে থেকেই নির্বাচন-কালীন একটি সরকার নিয়ে হয়তো প্রধানমন্ত্রী বিবেচনা করলেও করতে পারেন।

"আপনার হয়তো মনে আছে ২০১৪ সালের নির্বাচনের আগে শেখ হাসিনা খালেদা জিয়াকে টেলিফোন করে প্রস্তাব দিয়েছিলেন, বিএনপির কিছু নেতাকে মন্ত্রীসভায় জায়গা দেওয়া যেতে পারে, সেরকম কোনো ফরমুলা হয়তো আবারো সামনে আনা হতে পারে।"

"সরকারের বাইরের কিছু লোককে টেকনোক্র্যাট কোটায় উপদেষ্টা হিসাবে নিয়োগ করার কথা সরকার ভাবতে পারে। সংবিধান সংশোধন না করে, সংসদ না ভেঙ্গেই সরকারে সে ধরনের পরিবর্তন আনা সম্ভব।"

কিন্তু বিরোধী জোটের প্রধান দাবিই হচ্ছে সংসদ ভেঙ্গে দিয়ে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে হবে। তার জন্য প্রয়োজন সংবিধান সংশোধন।

জাতীয় ঐক্য-ফ্রন্ট নেতা ড কামাল হোসেন আজও (মঙ্গলবার) বিবিসির কাছে ইঙ্গিত দিয়েছেন সংবিধান সংশোধনের দাবি তারা তুলবেন। তিনি বলেন, "তারাই হীন স্বার্থে সংবিধানে সংশোধনী এনেছে ... সংবিধান এবং আইন পরিবর্তন তো কোনা ব্যাপারই না, এক মিনিটেই তা হতে পারে।"

আরও পড়ুন:

যে দুটি ইস্যুতে হোঁচট খেতে পারে সংলাপ

ইন্দিরা গান্ধী যেভাবে গুলিতে ঝাঁঝরা হয়েছিলেন

দাবি আদায় না হলে কী করবে বিরোধীরা?

কিন্তু শেখ হাসিনার সরকার যদি সংবিধান প্রশ্নে অনড় থাকে, তাহলে পরিণতি কি দাঁড়াবে? ঐক্য ফ্রন্ট, বিশেষ করে বিএনপি, কি তারপরও নির্বাচন করবে?

ড তারেক শামসুর রহমান বলছেন, বিরোধীরা নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত।

"আমি আপনাকে একশ ভাগ নিশ্চিত করে বলতে পারি বিএনপি নির্বাচনের জন্য প্রস্তুত। যেটা হবে, সংলাপে দাবি-দাওয়া পূরণ না হলে তারা মানুষজনকে বলবে দেখুন আমরা সরকারের কাছে গিয়েছিলাম, কিন্তু তারা কিছু দিলনা, এখন আপনারাই বিবেচনা করুন।"

তবে ড. মনজুরুল ইসলাম বলছেন, সরকার একটা সমঝোতার চেষ্টা করবে বলে তিনি মনে করেন।

"এবারের নির্বাচনটি আন্তর্জাতিকভাবে একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচন যাতে হতে পারে, সেটা প্রধানমন্ত্রী চাইছেন।"

সিনিয়র সাংবাদিক আবেদ খান বলছেন, এই সংলাপ রাজনীতিতে "মুখ দেখাদেখি" বন্ধের মত অসহনীয় একটি পরিবেশ বদলাতে সাহায্য করবে বলে তার বিশ্বাস।

"তাছাড়া আলোচনার টেবিলে যে কোনো কিছুই হতে পারে। যা অতীতে কখনো হয়নি, তাও হতে পারে। আশাবাদী হওয়ার কারণ যে একেবারেই নেই, তা নয়।"

এটা ঠিক যে সাত-দফা দাবিতে সংলাপের প্রস্তাব দেওয়ার পরদিনই সরকারের তা মেনে নেওয়া এবং চারদিনের মাথাতেই সংলাপের দিন-ক্ষণ-স্থান চূড়ান্ত করা নিয়ে অনেকটাই বিস্মিত বিরোধী জোট।

জাতীয় ঐক্য ফ্রন্টের অন্যতম নেতা মাহমুদুর রহমান মান্না বিবিসির কাছে স্বীকারই করলেন যে সরকারের কাছ থেকে এত দ্রুত সাড়া তারা আশা করেননি।