ব্রিটেনে কখনো না এলেও ব্রিটিশ সেনা হওয়া যাবে

কমনওয়েলথ দেশগুলোর পতাকা নিয়ে কুচকাওয়াজ ছবির কপিরাইট PA
Image caption কমনওয়েলথ দেশগুলোর পতাকা নিয়ে কুচকাওয়াজ

কমনওয়েলথভুক্ত কোনো দেশের কোনো নাগরিক কখনই ব্রিটেনে না এলেও, তার দেশে বসেই ব্রিটিশ সেনাবাহিনীতে যোগ দিতে পারবেন।

ব্রিটিশ সেনাবাহিনীতে সৈন্যের ঘাটতি দিনে দিনে এতটাই বাড়ছে যে নিয়োগের রীতি শিথিল করার এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

ফলে, ভারত এবং বাংলাদেশ সহ ৫৩টি কমনওয়েলথভুক্ত দেশের নাগরিকরা জীবনে কখনো ব্রিটেনে বসবাস না করলেও ব্রিটিশ সেনাবাহিনীতে যোগদানের জন্য আবেদন করতে পারবেন। নিজের দেশে বসেই আবেদন করা যাবে।

এ ব্যাপারে সরকারের সিদ্ধান্ত আগামী সপ্তাহেই ঘোষণা করা হতে পারে।

ব্রিটেনের সেনাবাহিনীতে কমনওয়েলথের নাগরিকরা সবসময়ই যোগ দিতে পারেন। তবে শর্ত রয়েছে যে আবেদন করার আগে তাকে অন্তত পাঁচ বছর ব্রিটেনে বসবাস করতে হবে।

১৯৯৮ সালে এই বাধ্যবাধকতা তুলে দেওয়া হলেও ২০১৩ সালে সেই নীতি আবারো কার্যকর করা হয়।

অবশ্য কমপক্ষে পাঁচ বছর বসবাসের শর্ত কিছুটা শিথিল করা হয় ২০১৬ সালে। সে বছর থেকে পাঁচ বছর বসবাস না করেও বছরে বড়জোর ২০০ জন কমনওয়েলথ নাগরিককে ব্রিটিশ সেনাবাহিনীতে যোগদানের সুযোগ দেওয়া হচ্ছে।

তবে সেই শর্তও এখন তুলে নেওয়া হচ্ছে।

ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption নেটো বাহিনীতে ব্রিটিশ গোর্খা (নেপালি) সেনা

সেনাবাহিনীতে লোকের ঘাটতি চরমে

ব্রিটেনের সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী এবং বিমান বাহিনীতে লোকের ঘাটতি ৮,০০০ ছাড়িয়ে গেছে।

কমনওয়েলথ দেশগুলো থেকে নিয়োগের শর্ত শিথিলের ফলে বছরে অতিরিক্ত ১৩৫০ জন সৈন্য নিয়োগ করা সম্ভব হবে বলে ব্রিটেনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় আশা করছে।

২০১৭ সালে এমপিদের এক রিপোর্টে সেনাবাহিনীতে লোক নিয়োগের সঙ্কট সম্পর্কে সাবধান করা হয়েছিল।

কারণ হিসাবে তখন বলা হয়েছিল, ব্রিটেনে শারীরিক স্থূলতার প্রবণতা বেড়ে যাওয়া এবং জাতিগত সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় সেনাবাহিনীতে নিয়োগ দিন দিন কঠিন হয়ে পড়েছে।

এশীয় এবং কৃষ্ণাঙ্গদের সেনাবাহিনীতে যোগ দেওয়ার বিষয়ে উৎসাহিত করার সুপারিশ করা হয়েছিল ঐ রিপোর্টে ।

পরিস্থিতি সামাল দিতে এখন কমনওয়েলথভুক্ত দেশগুলো থেকে নিয়োগের শর্তও শিথিলের সিদ্ধান্ত হলো।

আরও পড়ুন:

ইরানের তেল রপ্তানি শূন্যে নামাতে চান ট্রাম্প

'সংবিধানসম্মত' সমঝোতাতেই রাজী হবে ঐক্যফ্রন্ট?