সংসদ নির্বাচন: সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কড়া নজরদারির নির্দেশ নির্বাচন কমিশনের

সামাজিক যোগাযোগে মাধ্যমে কড়া নজরদারীর নির্দেশ নির্বাচন কমিশনের
Image caption সামাজিক যোগাযোগে মাধ্যমে কড়া নজরদারীর নির্দেশ নির্বাচন কমিশনের

বাংলাদেশের নির্বাচন কমিশন সোমবার দেশটির সব মোবাইল অপারেটর এবং বিটিআরসিকে নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচনকে ঘিরে যাতে কোন প্রকার অপপ্রচার, গুজব এবং নির্বাচনকে ক্ষতিগ্রস্ত করে এমন কিছু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে থাকলে সেগুলো খুঁজে বের করতে।

নির্বাচন প্রক্রিয়া যাতে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ব্যবহার করে ব্যহত না হয় সেবিষয়ে আলোচনা করতে মোবাইল অপারেটর এবং বিটিআরসির সাথে নির্বাচন কমিশন বৈঠক করে।

এই বৈঠকে সব মোবাইল অপারেটরের প্রতিনিধি উপস্থিত থাকলেও বিটিআরসির কেউ উপস্থিত ছিল না।

নির্বাচন কমিশনের সচিব হেলালউদ্দিন আহমদ সাংবাদিকদের জানিয়েছেন সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ব্যবহার করে নির্বাচন প্রক্রিয়াকে কেউ ক্ষতিগ্রস্ত করার চেষ্টা করলে দেশের প্রচলিত আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তবে মোবাইল অপারেটর এবং বিটিআরসি কীভাবে এই কাজটি করবে সে ব্যাপারে কিছু জানা যায় নি।

সচিব হেলালউদ্দিন আহমদ বৈঠকের পর সাংবাদিকদের জানিয়েছেন যে মোবাইল অপারেটর অথবা আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থাগুলোকে ২৪ ঘণ্টা কমিশনের সাথে যোগাযোগে রাখতে হবে।

কমিশন যদি মনে করে যে হঠাৎ করে কোন গুজব শুরু হয়েছে এবং তারা যদি প্রয়োজন মনে করে তবে কমিশন তাৎক্ষনিক-ভাবে তাদেরকে নির্দেশনা দিতে পারবে। এবং সেভাবে তাদেরকে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

১৬ দিন আগে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকে নির্বাচন কমিশন প্রায় প্রতিদিন বিভিন্ন সংস্থার সাথে বৈঠক করছে।

এরই ধারাবাহিকতায় আজকের বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়। এবারের নির্বাচন এমন একটা সময়ে হচ্ছে যখন এর আগের যেকোন নির্বাচনের তুলনায় ব্যাপক হারে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ব্যবহার হচ্ছে।

বিবিসি বাংলায় আরো পড়ুন:

রাজনীতি নিয়ে মাশরাফির ব্যাখ্যায় আলোচনার ঝড়

স্বামীর হাতে ধর্ষণ: বাংলাদেশে এক নারীর অভিজ্ঞতা

ট্রাম্পকে টুইটারে জ্ঞান দিয়ে ভাইরাল আসামের তরুণী