সংসদ নির্বাচন: সরকারি কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে বিএনপি নেতা তারেক রহমান বললেন, জনগণের বুকে গুলি চালাবেন না

ফেসবুকে ভিডিও বার্তা দিচ্ছেন তারেক রহমান। ছবির কপিরাইট BNP Facebook Page
Image caption ফেসবুকে ভিডিও বার্তা দিচ্ছেন তারেক রহমান।

লন্ডনে রাজনৈতিক আশ্রয়ে থাকা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপার্সন তারেক রহমান ভোটের দিন জনগণের ইচ্ছার বিরুদ্ধে না দাঁড়ানোর জন্যে বাংলাদেশের সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের প্রতি আহবান জানিয়েছেন।

জনগণকে তাদের পরিবারের অংশ হিসেবে উল্লেখ করে তিনি বলেছেন, "আপনারা গণতন্ত্রের বিপক্ষে দাঁড়াবেন না। প্রজাতন্ত্রের আইনকে উপেক্ষা করবেন না। জনগণের বুকে গুলি চালাবেন না।"

বিএনপির ফেসবুক পাতায় পোস্ট করা এক ভিডিও বার্তায় তিনি এসব কথা বলেন।

বাংলাদেশের সংবাদ মাধ্যমে তারেক রহমানের বক্তব্য প্রচারের ওপর আদালতের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তাই বিরোধী দল বিএনপি মি. রহমানের বক্তব্য প্রায়শই সোশ্যাল মিডিয়াতে প্রচারের চেষ্টা করে থাকে।

তারেক রহমানের মা বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া দুর্নীতির মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত হয়ে জেলে যাওয়ার পর তিনি দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হয়েছেন।

দুর্নীতির দুটি মামলায় এবং ২১শে অগাস্ট গ্রেনেড হামলার মামলাতেও তারেক রহমানের সাজা হয়েছে।

এই প্রেক্ষিতে মি. রহমান লন্ডন থেকে দলটিকে পরিচালনা করার চেষ্টা করছেন । স্কাইপের মাধ্যমে তিনি নির্বাচনে মনোনয়নপ্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকারও নিয়েছেন।

এনিয়ে নির্বাচন কমিশনের কাছে আপত্তিও জানিয়েছে আওয়ামী লীগ। তাদের বক্তব্য: বাংলাদেশের আইন অনুযায়ী মি. রহমান একজন পলাতক আসামী - ফলে পলাতক একজন ব্যক্তি প্রার্থী বাছাইয়ে অংশ নিচ্ছেন, এখানেই তাদের আপত্তি।

জবাবে নির্বাচন কমিশন বলেছে, আইনে এবিষয়ে কিছু উল্লেখ না থাকার কারণে তাদের করণীয় কিছু নেই।

Image caption মনোয়নপত্র বিক্রি করার সময় বিএনপির অফিসের সামনে নেতা-কর্মীদের ভিড়

লন্ডনেই ভিডিওটি রেকর্ড করা হয়েছে যা ফেসবুকে পোস্ট করা হয়েছে ২৭শে নভেম্বর, মঙ্গলবার।

ভিডিওটিতে তারেক রহমান আরো বলেছেন, তার দল যদি সরকার গঠন করে তাহলে অন্যায়ভাবে বা রাজনৈতিক কারণে কোন সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারীর চাকরি যাবে না।

ভোটের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, "প্রশাসনের যাদেরকে অপকর্ম করতে বাধ্য করা হয়েছে বা এখনও বাধ্য করা হচ্ছে তাদের সামনে এখন একটি সুযোগ এসেছে।"

সোশাল মিডিয়াতে অপ্রচারের বিরুদ্ধে তিনি তার দলের নেতাকর্মী, সমর্থক ও প্রশাসনকে সতর্ক করে দিয়েছেন। বলেছেন, মিথ্যা, বানোয়াট ও কাল্পনিক খবর দিয়ে প্রশাসনকেও বিভ্রান্ত করার চেষ্টা চালানো হবে। এবিষয়ে যাতে সকলে সতর্ক থাকেন।

তিনি আরো বলেন, বর্তমানে ক্ষমতাসীন সরকার দেশে ভয়ের সংস্কৃতি চালু করেছে। কিন্তু তিনি প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন তার দল ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট সরকার গঠন করলে দেশ থেকে এই ভয় দূর করার সর্বাত্মক চেষ্টা চালাবে।

"যাতে মানুষ কথা বলতে পারে, দেশের যেকোনো জায়গায় বুক ফুলিয়ে চলাফেরা করতে পারে।"

এজন্যে ভোটের দিন ভয়ভীতিকে উপেক্ষা করে তিনি দলে দলে ঘর থেকে বেরিয়ে এসে ভোটাধিকার প্রয়োগ করার আহবান জানান।

ছবির কপিরাইট BNP FACEBOOK PAGE
Image caption স্কাইপে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার নিচ্ছেন তারেক রহমান

আরো পড়তে পারেন:

বিএনপি অফিসের স্কাইপ সংযোগ 'ব্লক' করলো কে?

তারেক রহমানের ভিডিও কনফারেন্স: আইনে কী আছে?

বিএনপি অফিসের স্কাইপ সংযোগ 'ব্লক' করলো কে?

ভোট কেন্দ্রগুলোতে ভোট ডাকাতি রোধ এবং প্রত্যেকটি ব্যালট বক্সকে নিরাপদ রাখার আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, "ব্যক্তি স্বাধীনতায় বিশ্বাসীদের জন্যে এটা একটা সুযোগ। এবং অধিকার।"

তারেক রহমান বিএনপির নেত্রী এবং তার মা খালেদা জিয়াকে সকলের মা হিসেবে উল্লেখ করে বলেছেন, অন্যায়ের সাথে আপোষ করেননি বলেই তিনি এই বয়সেও কারাগারে রয়েছেন। খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থাকার কথা বলেছেন তিনি।

"মায়ের মুক্তির জন্যে আপনারা কি পারবেন না সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করতে? ৩০শে ডিসেম্বর পর্যন্ত নিজেদের ঐক্যকে হিমালয়ের মতো সুদৃঢ় রাখতে?"

নির্বাচনে অংশগ্রহণ করাকে আন্দোলনের কৌশল হিসেবে উল্লেখ করে তিনি বলেছেন, মনোনয়ন প্রত্যাশী চার হাজার নেতার সাথে তিনি কথা বলেছেন। কিন্তু এবার সবাইকে মনোনয়ন দেওয়া সম্ভব হবে না। কারণ ২০ দলীয় জোট ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সাথে একজোট হয়ে এবার বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে।

সেকারণে তিনি কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্তকে সকল কিছুর বিনিময়ে বাস্তবায়ন করার জন্যে দলের নেতাকর্মীদের প্রতি আহবান জানান।

"আমরা যদি একে অপরের সমালোচনা নিয়ে ব্যস্ত থাকি তাহলে বর্তমান স্বৈরাচার সরকার আগামী দিনে যখনই সুযোগ পাবে আমাদের ওপর নির্যাতনের মাত্রা আরো বহুগুণ বাড়িয়ে দেবে," বলেন তিনি।

আরো পড়তে পারেন:

বেঁচে থাকার জন্যে কেন ৫৩৬ খৃস্টাব্দ ছিল সবচেয়ে ভয়াবহ?

শেখ তন্ময়কে নিয়ে হইচই, তিনি কতটা জানেন?

বাংলাদেশে ক্রীড়াঙ্গনে নারী খেলোয়াড়রা কতটা নিরাপদ