সুন্দরী প্রতিযোগীদের ইংরেজির দক্ষতা নিয়ে মন্তব্য করে তোপের মুখে মিস ইউএসএ

সারাহ রোজ সামার্স ছবির কপিরাইট Instagram
Image caption প্রতিদ্বন্দ্বীদের ইংরেজী ভাষার দক্ষতা নিয়ে কটাক্ষ করে সমালোচিত হয়েছেন সারাহ রোজ সামার্স

সুন্দরী প্রতিযোগিতায় অন্য দুই দেশ থেকে আসা প্রতিযোগীদের ইংরেজি ভাষার দক্ষতা নিয়ে কটাক্ষ করেছিলেন মিস ইউএসএ। তার পোস্টটি সোশ্যাল মিডিয়ায় এতটাই বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করেছে যে এজন্যে তিনি এখন ক্ষমা চেয়েছেন।

ব্যাংককে এখন যে 'মিস ইউনিভার্স' প্রতিযোগিতা হচ্ছে সেখানে মিস ইউএসএ হিসেবে অংশ নিচ্ছেন সারাহ রোজ সামার্স।

ইনস্টাগ্রামে তিনি একটি ভিডিও পোস্ট করেন যেখানে দেখা যায় তিনি মিস ভিয়েতনাম এবং মিস ক্যাম্বোডিয়ার ইংরেজী নিয়ে হাসি-ঠাট্টা করছেন।

ইনস্টাগ্রামে তার ভিডিওটিতে প্রায় ৪৬ হাজার লাইক পড়ে। কিন্তু এটির জের ধরে মিস সামার্সের তীব্র সমালোচনা শুরু হয় সোশ্যাল মিডিয়ায়। মিস ভিয়েতনামের নাম হেন নিয়ে। তাঁর সম্পর্কে তিনি বলেছিলেন, "ও এত কিউট। ও ভান করে যেন অনেক ভালো ইংরেজি জানে। অথচ তার সঙ্গে অনেক কথা বলে যখন আপনি একটা প্রশ্ন করেন, তখন ও কেবল মাথা নাড়ে এবং হাসে।"

আর মিস ক্যাম্বোডিয়া সম্পর্কে তার মন্তব্য ছিল, "ও তো একদমই ইংরেজি বলতে পারে না আর এখানে দ্বিতীয় কোন ব্যক্তিও নেই যে কিনা ক্যাম্বোডিয়ার ভাষা বলতে পারে।"

মিস সামার্সের এসব কথা এতটাই বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে যে, বাধ্য হয়ে তিনি এখন সবার কাছে ক্ষমা চেয়েছেন।

আরও পড়ুন:

'মিজ ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ':যত আলোচনা-সমালোচনা

নারীবাদীরা কি আসলেই তাদের ব্রা পুড়িয়েছিলেন?

'আমি হেরে যাইনি, হেরেছে বাংলাদেশের আইন'

একজন মন্তব্য করেছেন, "এটা খুবই অদ্ভূত, আমেরিকানরা আশা করে সবাই তাদের মতো করে ইংরেজি বলবে। অথচ এই বিশ্ব কত চমৎকার, যেখানে অনেক ধরণের সুন্দর টানে এবং নানা উচ্চারণে লোকে ইংরেজি বলে।"

কেউ কেউ মিস সামার্সের এই সুন্দরী প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়ার যোগ্যতা আছে কীনা সেটা নিয়েই প্রশ্ন তুলেছেন।

একজনের মন্তব্য, "তুমি হয়তো ক্ষমা পাওয়ার যোগ্য। কিন্তু তোমায় মাথায় বিশ্ব সুন্দরীর মুকুট শোভা পায় না। তুমি কোন সংবেদনশীল নারীর ভালো উদাহরণ হতে পারো না।"