বাংলাদেশে টুইটারের বন্ধ করা ১৫টি একাউন্টের পেছনেও 'রাষ্ট্রীয় মদত?'

১৫টি একাউন্ট বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে টুইটার ছবির কপিরাইট Twitter
Image caption ১৫টি একাউন্ট বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে টুইটার

ফেসবুকের পর এবার টুইটারও জানিয়েছে, তারা বাংলাদেশ থেকে পরিচালিত হচ্ছিল এমন ১৫টি টুইটার একাউন্ট বন্ধ করে দিয়েছে।

এসব একাউন্ট সমন্বিতভাবে এই প্ল্যাটফর্মকে তাদের স্বার্থে অপব্যবহারের চেষ্টা করছিল বলে টুইটার জানিয়েছে।

এক বিবৃতিতে টুইটার আরও জানিয়েছে "যেসব একাউন্ট বন্ধ করা হয়েছে, সেগুলোর কোন কোনটি বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় মদতপুষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে সম্পর্কিত বলে মনে হচ্ছে।"

উল্লেখ্য এর আগে ফেসবুক জানিয়েছিল যে ভুয়া খবর প্রচারের জন্য তারা বাংলাদেশে তাদের প্ল্যাটফর্মে ৬টি একাউন্ট এবং ৯টি পেজ বন্ধ করে দিয়েছে।

ফেসবুক বলছে, এগুলোতে বাংলাদেশ সরকারের সমর্থন বিভিন্ন কনটেন্ট পোস্ট করা হচ্ছিল এবং "এর সাথে সরকার-সংশ্লিষ্ট কিছু লোকের সম্পর্ক আছে।"

ছবির কপিরাইট Newsroom.fb.com
Image caption বিবিসি বাংলার মতো করে বানানো ভুয়া খবরের পোস্ট

ফেসবুক একাউন্টগুলোর মধ্যে বিবিসি বাংলার মতো দেখতে একটি নকল একাউন্টও রয়েছে। এতে য ওয়েব ঠিকানা দেয়া হয়, তা হলো BBC-BANGLA.COM কিন্তু বিবিসি বাংলার প্রকৃত ওয়েব ঠিকানা হলো www.bbc.com/bengali

১৫টি একাউন্টের পেছনে কারা

টুইটার যে একাউন্টগুলো বন্ধ করেছে, সেগুলোর পেছনে কারা, তা নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় নানা জল্পনা চলছে।

এসব একাউন্টের পরিচয় টুইটার প্রকাশ করেনি।

তবে টুইটার বলছে, তাদের তদন্ত অব্যাহত রয়েছে এবং তা আরও সম্প্রসারিত হচ্ছে। মোট পনেরটি একাউন্টের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। তবে এসব একাউন্টের ফলোয়ারের সংখ্যা তুলনামূলকভাবে কম। বেশিরভাগ একাউন্টের ফলোয়ারের সংখ্যা ৫০ এর নীচে।

তদন্ত শেষ হলে এসব একাউন্টের বিস্তারিত তথ্য প্রকাশ করা হবে বলে জানিয়েছে টুইটার।

আরও পড়ুন:

ভুয়া ওয়েবসাইট কীভাবে চিনবেন?

বিবিসি জরিপ: কেন মানুষ ভুয়া খবর ছড়াচ্ছে

কীভাবে চেনা যাবে 'ফেক-নিউজ', ঠেকানোর উপায় কী

Foxxita #Vote নামে একজন টুইটারে মন্তব্য করেছেন, "জেনে ভালো লাগলো। এই পনেরটি একাউন্টের ব্যাপারে আমি কৌতুহলী। আমার তো মনে হয় এরকম হাজার হাজার টুইটার বট আছে। কিন্তু এটা জেনে ভালো লাগছে যে আমরা এই পনেরটি একাউন্ট থেকে নিরাপদ।"

ভুয়া টুইটার একাউন্ট ব্যবহার করে ভারতেও নির্বাচনকে প্রভাবিত করার চেষ্টা হতে পারে বলে আশংকা প্রকাশ করেছেন একজন।

Truth Prevail‏ একাউন্ট থেকে একজন লিখেছেন, "দয়া করে ভারতের একাউন্টগুলোও নিয়ন্ত্রণ করুন। আমাদের এখানে পাঁচ মাস পরেই নির্বাচন এবং এখানে প্রচুর সংখ্যায় ভুয়া বাজে একাউন্ট থাকতে পারে।"