সেক্সটয়, বিড়াল, আইপ্যাড- পুনর্ব্যবহারের জন্য দেয়া অদ্ভুত সব জিনিস

বিড়াল স্কিপি
Image caption গত ১৩ বছর ধরে রিসাইক্লিং কেন্দ্রে বসবাস করছে স্কিপি

নতুন বছরের শুরুর দিকে ঘর পরিষ্কার করতে গিয়ে অনেকের মনেই প্রথম প্রশ্নটি জাগে, এটা কি আবার ব্যবহার করা যাবে?

একসময়ের প্রিয় কাপড়চোপড় বা আসবাবপত্র ছাড়াও ব্রিটেনে পুনর্ব্যবহারের করার বাক্সে ফেলা এরকম অনেক জিনিসপত্র পাওয়া গেছে, যা বেশ আলাদা ধরণের।

যেমন গত সপ্তাহেই নেথ পোর্ট ট্যালবটে রিসাইক্লিং প্লান্ট খালি করে ফেলতে হয়েছিল, কারণ পুনর্ব্যবহারের জন্য পাওয়া জিনিসপত্রের মধ্যে যুদ্ধকালীন একটি বোমা ছিল বলে সন্দেহ করা হয়েছে।

এখানে এমন আরো কিছু দ্রব্যের উল্লেখ করা হলো, যেগুলো ব্রিটেনের ওয়েলসের রিসাইক্লিং বক্সে পাওয়া গেছে।

বিড়াল

ক্রিসমাসের আগে আগে অবধারিত মৃত্যুর হাত থেকে একটি বিড়াল শাবক উদ্ধার করেন নেভ মরিস, যিনি পেমব্রোকমায়ারের একটি বর্জ্য পরিশোধন কেন্দ্রে কাজ করেন।

যে মেশিনে বর্জ্য ভেঙ্গেচুরে মেশানো হয়, সেটির ভেতর হালকা শব্দ পেয়ে তিনি দেখতে যান কি রয়েছে।

তখন একটি ব্যাগের ভেতর বেড়াল ছানাটিকে দেখতে পান।

মি. মরিস বলছেন, তিনি বিড়ালটিকে নিজের বাড়িতে নিয়ে যেতে পারেননি, কারণ সেখানে তার একটি কুকুর রয়েছে।

Image caption স্কিপির সঙ্গে মি. মরিস

বিড়ালটিকে একজনের বাড়িতে দিয়ে দেয়া হয়। কিন্তু পাঁচদিন পরে সে আবার সেই কেন্দ্রে ফিরে আসে। পরে তার নাম দেয়া হয় স্কিপি।

গত ১৩ বছর ধরে এই কেন্দ্রেই রয়েছে স্কিপি নামের বিড়ালটি। সেখানকার সবাই মিলে তার দেখাশোনা করে এবং উপহার কিনে দেয়।

শহরজুড়ে সে বেশ বিখ্যাত হয়ে গেছে। অনেকেই ফোন করে তার খোঁজখবর নেয়।

ভেড়া, গিরগিটি খরগোশ

কেয়েরফিলির কর্মীরা হতবাক হয়ে পড়েন যখন তারা দেখতে পান, পুনরায় ব্যবহারের জন্য পাঠানো জিনিসপত্রের মধ্যে একটি মৃত ভেড়া রয়েছে।

তবে পুরনো জিনিসপত্রের পাওয়া এটাই একমাত্র মৃত পশু নয়। বিভিন্ন সময় এই কেন্দ্রের কর্মীরা মৃত গিরগিটি এবং খরগোশও পেয়েছে।

ছবির কপিরাইট STEPHEN BARNES
Image caption কেয়েরফিলির কর্মীরা পুনরায় ব্যবহারের জন্য জিনিসপত্রের মধ্যে বেশ কয়েকবার মৃত পশু পেয়েছেন

পশু গর্ভফুল

পয়োসের একটি পুনর্ব্যবহার কেন্দ্রের কর্মীরা যখন বাড়ির কিছু জিনিসপত্রের মধ্যে পশুর গর্ভ ফুল বা নাড়ি দেখতে পান, তখন সবাই হতবাক হয়ে যান।

তারা নিশ্চিত করেছে, যেসব দ্রব্য পুনঃ ব্যবহারের জন্য তারা উপযোগী করে তোলেন, তার মধ্যে পশুর গর্ভফুলের মতো কিছু নেই।

কৃত্রিম পা

দেখে মনে হচ্ছে, নিউপোর্টের কারো আর কৃত্রিম পায়ের দরকার নেই, অথবা তিনি নতুন একটি পেয়ে গেছেন।

কারণ প্রোসথেটিক এই কৃত্রিম পা'টি পুনরায় ব্যবহারের জন্য দিয়ে দেয়া হয়েছে।

যৌন খেলনা

গত কয়েক বছর ধরে ওয়েলসের রিসাইক্লিং সেন্টারগুলো প্রায়ই সেক্স টয় বা যৌন খেলনা পেয়ে আসছে। প্রায় ক্ষেত্রেই এসব খেলনা সুটকেসের ভেতর লুকানো থাকে।

একটি আইপ্যাড

আপনি যদি কেয়েরফিলি এলাকায় বসবাস করেন এবং একটি আইপ্যাড বেশ কিছুদিন ধরে খুঁজে না পান, তাহলে হয়তো আপনিই সেই ব্যক্তি যিনি ভুলে আইপ্যাডটি পুনর্ব্যবহারের বক্সে ফেলে দিয়েছেন।

কেয়েরফিলির কর্মীরা তাদের চোখকে বিশ্বাস করতে পারছিল না, যখন তারা নানা বাতিল জিনিসপত্রের মধ্যে একটি চালু আইপ্যাড খুঁজে পান। রবিবারের পত্রিকা দিয়ে সেটি প্যাঁচানো ছিল।

ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption নিউপোর্টের পুনর্ব্যবহারের জিনিসপত্রের বক্সের ভিতর ছিল একটি কৃত্রিম পা

পুরনো জুতার ভেতর ছয়শো পাউন্ড

একবার ভেবে দেখুন, আপনি ছয়শো পাউন্ড (ষাট হাজার টাকার কিছু বেশি) বাতিল জিনিসপত্রের বক্সে ছুড়ে ফেলছেন!

সেটাই করেছেন গাইনেডের একজন বাসিন্দা। তিনি হয়তো ভুলে গিয়েছিলেন যে, তার পুরনো জুতার ভেতর তিনি কোন একসময় ছয়শো পাউন্ড লুকিয়ে রেখেছিলেন।

তবে কিছু পরেই তিনি উপলব্ধি করতে পারেন যে, কি করেছেন। পরবর্তীতে তিনি ময়লার ভেতর থেকে কিছু টাকা উদ্ধার করতে পেরেছিলেন।

মানুষের মাথার সমান পিয়াজ

গাইনেডের একজন কর্মী চরম ভয় পান, যখন তিনি পুনর্ব্যবহারের জিনিসপত্রের ভেতর একটি কালো ব্যাগের ভেতর মানুষের মাথার মতো কিছু দেখতে পান।

তবে কাছাকাছি গিয়ে তিনি বুঝতে পারেন যে, এটা বিশাল আকারের একটি পিয়াজ, যা হয়তো স্থানীয় খামার প্রতিযোগিতার জন্য উৎপাদন করা হয়েছিল।

একটি বাতিল রাইফেল

অ্যাঙ্গলেসির রিসাইক্লিং সেন্টারের লোকজন অবাক হয়ে যান, যখন তারা বাতিল হয়ে যাওয়া জিনিসপত্রের মধ্যে একটি রাইফেল দেখতে পান।

যদিও সেটি নষ্ট করে ফেলা হয়েছিল।

তবে শুধু বন্দুকই নয়, একবার এই কর্মীরা একটি আস্ত নৌকা পেয়েছিলেন, যেটি পুনর্ব্যবহারের উপযোগী করার জন্য কেউ ফেলে গিয়েছিলেন।

সম্পর্কিত বিষয়