চকবাজার অগ্নিকাণ্ড: এতো দাহ্য পদার্থ নিয়ে বিস্ফোরক পরিদপ্তর যা বলছে

রাসায়নিক দ্রব্য ছবির কপিরাইট Allison Joyce
Image caption পুরনো ঢাকার শ্যামপুরে একটি ডাইং ফ্যাক্টরিতে পেইন্ট এবং অন্যান্য রাসায়নিক দ্রব্য মজুত করা।

২০১০ সালে পুরনো ঢাকার নিমতলীতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে শতাধিক মানুষ পুড়ে নিহত হবার ঘটনার পর উচ্চমাত্রার দাহ্য পদার্থ মজুতে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছিলো। তারপরেও চকবাজারে একই ঘটনা ঘটলো।

বাংলাদেশের বিস্ফোরক পরিদপ্তর বলছে, বুধবার রাতে চকবাজারে যে অগ্নিকাণ্ড হয়েছে সেটি বিভৎস রূপ পেয়েছে উচ্চ মাত্রার রাসায়নিক দাহ্য পদার্থের কারণেই।

প্রধান বিস্ফোরক পরিদর্শক মো: সামসুল আলম বিবিসি বাংলাকে বলছেন, নিমতলীর ঘটনার পর এ ধরণের দাহ্য পদার্থের দোকান বা গোডাউন তখন সরিয়ে নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছিলো।

"আমরা তখন ২৯টি ক্যামিকেলের একটি তালিকাও করেছিলাম যেগুলো রাখা যাবেনা। এসব ক্যামিকেল উচ্চ মাত্রার দাহ্য পদার্থ। সাম্প্রতিক সময়ে সিটি কর্পোরেশনের সাথে মিলে আমরা অভিযানও চালিয়েছিলাম।"

তিনি বলেন, গত বছরেও উচ্চ মাত্রার কেমিক্যাল রাখতো এমন প্রমাণ পাওয়ার পর অনেকের লাইসেন্স স্থগিত করেছে সিটি কর্পোরেশন।

"এমনকি যে ভবনটিতে আগুন লেগেছিল সেটিতেও রাসায়নিক দ্রব্য ও দাহ্য পদার্থ রাখার কোন অনুমতি ছিল না," তিনি জানান।

"যেমন ধরুন প্লাস্টিক দানা। এর আগুন খুবই ভয়াবহ হয়। প্লাস্টিক ফাইবার কিংবা পারফিউম। ওখানে শত শত স্প্রে থাকলে আগুন লাগলে কিভাবে নিয়ন্ত্রণ করবেন?"

এগুলোর বিরুদ্ধে গত সপ্তাহেও অভিযান চালানো হয়েছে বলে জানান তিনি।

প্রসঙ্গত চকবাজার রাসায়নিক ও প্লাস্টিকের ব্যবসার একটি বড় কেন্দ্র। দোকান ছাড়াও এখানে এ ধরণের দ্রব্যের মজুত রাখেন অনেকে।

যদিও ২০১০ সালের নিমতলীর দুর্ঘটনার পর এ ধরণের দ্রব্যের অনুমোদন হীন মজুতের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিলো কর্তৃপক্ষ।

সামসুল আলম বলছেন, "নিষেধাজ্ঞা মানলে বা এটি বাস্তবায়ন করা গেলে আজ এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হতোনা"।

আরো পড়ুন:

প্রত্যক্ষদর্শীর বর্ণনায় চকবাজারের আগুন

ছবিতে পুরনো ঢাকার চকবাজারের আগুন

ভয়াবহ আগুনে নিহত ৭৮, স্বজনরা লাশ পাবেন কিভাবে?

'বিচ্ছিন্নভাবে কিছু লোকের ডেডবডি দেখতে পাচ্ছি'

নিমতলী আগুনের পর পদক্ষেপ কী নেয়া হয়েছিলো?

নিমতলীর আগুনের পর পুরনো ঢাকায় আবাসিক এলাকায় থাকা রাসায়ণিকের গুদাম সরিয়ে ফেলার জন্য সরকারের বেঁধে দেওয়া সময় শেষ দিন ছিলো ওই বছরের ৩০শে সেপ্টেম্বর।

এরপর এ সম্পর্কিত একটি টাস্কফোর্সের ব্যবস্থা নেয়ার কথা।

এরপর সিটি কর্পোরেশন থেকে বারবার অভিযান চালানো হলেও খুব বেশি নিয়ন্ত্রণে আনা যায়নি উচ্চ মাত্রার দাহ্য পদার্থগুলোর।

ফলে পুরনো ঢাকার চকবাজারসহ বেশ কিছু এলাকায় বেশ জমজমাটই রয়ে গেছে রাসায়নিক দ্রব্য ও প্লাস্টিক দানার ব্যবসা।

আপনার ডিভাইস মিডিয়া প্লেব্যাক সমর্থন করে না
পুরনো ঢাকার চকবাজারে ভয়াবহ আগুনের দৃশ্য

সম্পর্কিত বিষয়