আইপিএল ২০১৯: বাটলারকে আশউইনের মানকড় আউট সঠিক নাকি ভুল?

ক্রিকেট, আইপিএল ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption বাটলার এনিয়ে দ্বিতীয় বারের মতো এভাবে আউট হলেন

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ- আইপিএলে সোমবার রাতের ম্যাচে কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের রাভিচান্দ্রান আশউইন রাজস্থান রয়্যালসের জস বাটলারকে বিশেষ একটি উপায়ে আউট করেন।

স্পিনার আশউইন খেয়াল করেন ইংল্যান্ডের উইকেট রক্ষক ব্যাটসম্যান বাটলার তার বল ছাড়ার আগে বোলিং প্রান্তের ক্রিজ ছেড়ে বের হন।

তখন আশউইন বেল ফেলে দেন এবং আপিল করেন আম্পায়ারের কাছে।

এই সিদ্ধান্ত থার্ড আম্পায়ার দেন এবং সেটা বাটলারের বিপক্ষে যায়।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল- আইসিসি, এমন আউট হবার পর তাদের টুইটার পেজে একটি প্রশ্ন রাখে।

বাটলারকে মানকড় আউট করার ক্ষেত্রে কি সঠিক কাজ করেন আশউইন?

সেখানে ৭২ শতাংশ বলেন 'না'।

আরো পড়ুন:

ক্রিকেটারদের মানসিক সহায়তা দেয়ার উদ্যোগ

বাফুফে কর্মকর্তা কিরণকে গ্রেফতারে ফিফার উদ্বেগ

৮০৭ রান, ৪৬ ছক্কা: বিশ্ব ক্রিকেটে এমন ম্যাচ আর কয়টি আছে?

ছবির কপিরাইট TWITTER
Image caption আইসিসির অনলাইন জরিপে ৭২ শতাংশ ভোট পড়ে আশউইনের বিপক্ষে

তবে এর আগেও বাটলার একই উপায়ে আউট হন।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ২০১৪ সালে একটি ওয়ানডে ম্যাচে সাচিত্রা সেনানায়েকে বাটলারকে নন-স্ট্রাইক প্রান্তে আউট করেন।

কে কী বলছে?

আইপিএলে এই ঘটনার পুনরাবৃত্তির পর সাবেক ক্রিকেটার ও ধারাভাষ্যকাররা নিজ নিজ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাদের মতামত প্রকাশ করেন এই আউট নিয়ে।

শেন ওয়ার্ন, অস্ট্রেলিয়ার কিংবদন্তী লেগ স্পিনার লেখেন, অধিনায়ক হিসেবে ও মানুষ হিসেবে আশউইনের এমন কাজ হতাশাজনক।

"সব অধিনায়কই আইপিএলের দেয়ালে সই করেন এবং খেলার স্পিরিট ধরে রাখার ব্যাপারে সম্মত হন," ওয়ার্নের মতে এমন কাজ ক্রিকেটের নীতির বিরুদ্ধে।

ছবির কপিরাইট TWITTER
Image caption টুইটারে আশউইনের সমালোচনা করেন শেন ওয়ার্ন
ছবির কপিরাইট Twitter
Image caption টুইটারে আশউইনের সমালোচনা করেন ডেল স্টেইন

ধারাভাষ্যকার ও ক্রিকেট বিশ্লেষক হারশা ভোগলে অবশ্য নিয়মের কথা বলেন, "এই নিয়মটি খেলার স্পিরিট ধরে রাখার জন্যই তৈরি হয়েছিল, যখন একজন ব্যাটসম্যান তার রান পূরণ করতে ছয় ইঞ্চি কম দৌঁড়ায়।"

নিউজিল্যান্ডের সাবেক ক্রিকেটার স্কট স্টাইরিস অবশ্য থার্ড আম্পায়ারের সিদ্ধান্তকে প্রশ্নবিদ্ধ করেন, "এটা বাটলারের বা আশউইনের দোষ না, আশউইনের আপিল করাই যথার্থ ছিল, এটা থার্ড আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত যেটা হওয়ার কথা ছিল ডেড বল।"

ইংল্যান্ডের ওয়ানডে দলের অধিনায়ক এউইন মরগ্যান বলেন, "আশউইন এটা নিয়ে অনুতাপে ভুগবেন, আমি বিশ্বাস করতে পারছিনা যা দেখছি, শিশুদের জন্য বাজে উদাহরণ হয়ে থাকবে এটা।"

ছবির কপিরাইট TWITTER
Image caption হারশা ভোগলে এই বিতর্কে আশউইনের পক্ষ নেন

আইন কী বলে?

ক্রিকেটের আইন প্রণয়ন করার কমিটি মেরিলিবন ক্রিকেট ক্লাব বা এমসিসি ২০১৭ সালের নভেম্বর মাসে এই আইন প্রনয়ণ করে যে নন-স্ট্রাইকে থাকা ব্যাটসম্যান যদি বল ছাড়ার আগেই ক্রিজ ছেড়ে দেয় সেক্ষেত্রে বোলার বেল ফেলে আউট করতে পারেন।

আগের আইনে ছিল, বোলার কেবলমাত্র বোলিং করার আগ মুহূর্তে এভাবে রান আউট করার চেষ্টা করতে পারবেন, কিন্তু এখন যে বোলিংয়ের যে কোনো সময় এটা করা যাবে।

নন-স্ট্রাইকে থাকা ব্যাটসম্যান যাতে আগেই ক্রিজ না ছাড়ে সেজন্যই এই আইন করা হয়।

"এমনভাবে রান আউট করার চেষ্টা করলে যদিও বোলার সমালোচিত হন, তবু ব্যাটসম্যান এই ক্ষেত্রে একটা সুবিধা নেয়ার চেষ্টা চালায়," এমসিসি।

ছবির কপিরাইট RAJASTHAN ROYALS
Image caption গতকালের ম্যাচে খেলা শুরুর আগে আশউইন ও রাহানে

মানকড় নাম যেভাবে এলো

১৯৪৭ সালের ১৩ই নভেম্বর, ইন্ডিয়া ও অস্ট্রেলিয়ার মধ্যকার সিডনি টেস্টে ভিনু মানকড় বিল ব্রাউনকে রান আউট করেন বোলিং করার সময়।

তিনি শেষ পর্যন্ত বল ছাড়েননি এবং বেল ফেলে দেন, যার ফলে ব্রাউন আউট হন।

এই সফরে ব্রাউন দুইবার এইভাবে আউট হন।

ব্রাউনকে আউট করার আগে অবশ্য সতর্ক করেন মানকড়।

সেসময় অস্ট্রেলিয়ান গণমাধ্যমে ভিনু মানকড়ের সমালোচনা করা হয়।

এই ঘটনার পর থেকে এভাবে কেউ আউট হলে সেটাকে 'মানকড়' বলা হয়।

বিবিসি বাংলার অন্যান্য খবর:

যৌন শিক্ষা: বাংলাদেশে কি পড়ানো হচ্ছে শ্রেণী কক্ষে

নির্ভয়া ধর্ষণ: আলোচনার বাইরেই রয়ে গেলেন যে নারী

মস্তিষ্কে নতুন কোষ তৈরি হয় জীবনভর

সম্পর্কিত বিষয়