লোকসভা নির্বাচন: ভারতের ১০০ স্মার্ট সিটি প্রকল্পের প্রতিশ্রুতি কতটা পূরণ হলো?

ভারতে নগরায়ন বাড়ছে দ্রুত গতিতে ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption ভারতে নগরায়ন বাড়ছে দ্রুত গতিতে।

ভারতের শহুরে জনগোষ্ঠীর সংখ্যা ক্রমশ বাড়ছে এবং ধারণা করা হচ্ছে আগামী দশকেই এর সংখ্যা হবে ৬০কোটির বেশি।

দেশটির সরকার তাই দেশ জুড়ে কিছু শহরকে আধুনিকায়নের পরিকল্পনা করে বড়সড় বিনিয়োগ পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে।

ভারতের নির্বাচনকে সামনে রেখে বিবিসির রিয়েলিটি চেক প্রধান রাজনৈতিক দলগুলোর দাবি ও প্রতিশ্রুতির বিষয়গুলো পরীক্ষা করে দেখছে।

২০১৫ সালে ভারতের সরকার পাঁচ বছরে ১০০ শহরকে স্মার্ট সিটি হিসেবে গড়ে তোলার অঙ্গীকার করে।

বাস্তবতা: প্রকল্পের সময়সীমা বিলম্বিত হয়েছে কারণ কর্মসূচির শুরুতে শহরগুলোকেই চিহ্নিত করা যায়নি। আর খুব অল্প পরিমাণ অর্থই বরাদ্দ করা হয়েছে।

স্মার্ট সিটি আসলে কী?

ভারতের সরকারের কথায় স্মার্ট সিটির একক কোনো সংজ্ঞা নেই।

কিন্তু এর অঙ্গীকার ছিলো নির্ধারিত একশ শহরের জীবনমান উন্নয়নে বেশি অর্থ বরাদ্দ হবে।

সরকারের স্মার্ট সিটি মিশনের আওতায় যে একশ শহরকে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে তার শেষ তালিকাটি এসেছে মাত্র ২০১৮ সালে অর্থাৎ গত বছর।

ফলে মূল প্রকল্প পিছিয়ে গিয়েছে এবং নতুন সময়সীমা হয়েছে ২০২৩ সালে।

আরো পড়তে পারেন:

চিকিৎসা না পাওয়ার অভিযোগ মসজিদে হামলাকারীর

ভারতীয় নির্বাচন: চায়ের গ্লাসেও 'চৌকিদার' স্লোগান কেন?

এক নারীর দুই জরায়ু থেকে জন্মালো তিন সন্তান

ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption ভারতের সরকার পাঁচ বছরে ১০০ শহরকে স্মার্ট সিটি হিসেবে গড়ে তোলার অঙ্গীকার করেছিলো।

প্রজেক্টগুলো কি বাস্তবায়ন হচ্ছে?

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সরকার পাঁচ হাজারেরও বেশি প্রকল্প অনুমোদন করেছে যার জন্য ব্যয় হবে প্রায় ২৯ বিলিয়ন ডলার।

সরকার বলছে, ৭১৫ টি প্রকল্প বাস্তবায়ন হয়েছে আর ২ হাজার ৩০৪টি প্রকল্প বাস্তবায়নের আওতায় রয়েছে।

যদিও সরকারি তথ্য থেকেই দেখা যায়, বরাদ্দ ও প্রকৃত ব্যয়ের মধ্যে অনেক পার্থক্য রয়েছে।

জানুয়ারিতে অবশ্য সরকার স্বীকার করেছিলো যে মোট বরাদ্দের মাত্র ২১ শতাংশ বাস্তবায়ন হয়েছে।

যদিও এ অর্থ ব্যয় নিয়েও অনেক প্রশ্ন রয়েছে।

হাউজিং ও ল্যান্ড রাইটস নেটওয়ার্ক নামের একটি এনজিও স্মার্ট সিটি মিশনকে নাম দিয়েছে স্মার্ট ছিটমহল প্রকল্প হিসেবে।

বিশ্লেষকদের যুক্তি - নতুন প্রকল্পে যত জোর দেয়া হচ্ছে স্থানীয় প্রতিষ্ঠানগুলোকে শক্তিশালী করার জন্য ততটা মনোযোগ নেই।

সরকার বলছে, এজন্য তারা নানা প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করছে।

সরকারের দাবি, গত বছর থেকে স্মার্ট সিটি প্রকল্প গতি পেয়েছে।

সরকারের একজন মন্ত্রী হরদিপ সিং পুরি অবশ্য বিবিসিকে বলছেন, ২০১৯ সালের মধ্যে ৫০টি শহরের কাজও যদি শেষ হয় তাহলে সেটিও হবে বিশ্বের এ ধরণের কাজগুলোর মধ্যে সবচেয়ে দ্রুত গতির বাস্তবায়ন।

আরো পড়তে পারেন:

ঢাকার সব বহুতল ভবন পরিদর্শন করা হবে: মন্ত্রী

ঢাকার অবৈধ ভবনগুলো টিকে আছে কীভাবে

সম্পর্কিত বিষয়