নতুন সম্রাট নতুন যুগ: যেভাবে মাত্র একটি শব্দে জাপানকে বর্ণনা করা হয়

নতুন সম্রাটের যুগের নাম দেখাচ্ছেন জাপানের মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব ছবির কপিরাইট Reuters
Image caption নতুন সম্রাটের যুগের নাম 'রেইওয়া', দেখাচ্ছেন জাপানের মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব

আপনার দেশের ভবিষ্যত বর্ণনা করার জন্য যদি একটি মাত্র শব্দ বেছে নিতে বলা হয়, সেটা কী হতে পারে?

ঠিক এই শব্দটি খুঁজতে শুরু করেন জাপানের কর্মকর্তারা যখন সম্রাট বদল হয়ে যায়, নতুন একটি যুগের সূচনা হয়।

জাপানের প্রত্যেক সম্রাটের রাজত্বের একটি নাম আছে, যেটি খৃষ্টীয় বর্ষপঞ্জির পাশাপাশি ব্যবহার করা হয়।

সম্রাট পরিবর্তনের পর ১লা এপ্রিল নতুন রাজত্বের নাম ঘোষণা করা হয়।

জাপানের নতুন সম্রাটের রাজত্বের নাম ঘোষণা করা হয়েছে 'রেইওয়া', যার বাংলা করলে দাঁড়ায় 'শৃঙ্খলা এবং শান্তি'।

এই প্রথমবারের মতো জাপানের একটি প্রাচীন কবিতা থেকে এই নামটি নেয়া হয়েছে।

এর আগে সম্রাট আকিহিতোর যুগের নাম ছিল 'হেইসেই', যার অর্থ 'শান্তি অর্জন'।

আরো পড়ুন:

যে দেশে বৃদ্ধরা ইচ্ছে করে কারাগারে যেতে চায়

বিদেশি কর্মীরা স্থায়ী হতে পারবে জাপানে

ছবির কপিরাইট Reuters
Image caption জাপানের যুবরাজ নারুহিরো ১লা মে থেকে সম্রাট হিসাবে দায়িত্ব নিতে যাচ্ছেন, পাশে তার স্ত্রী প্রিন্সেস মাসাকো

কেন একেকটি যুগের নামকরণ?

এর একটির উত্তর বাস্তবের সঙ্গে মিলবে, আরেকটি জড়িত দর্শনের সঙ্গে।

সম্রাটের যুগের নাম মুদ্রায়, সংবাদপত্রে, ড্রাইভিং লাইসেন্স এবং দাপ্তরিক সব কাগজপত্রে মুদ্রিত হবে। সেই সঙ্গে এটা একটা যুগকে তুলে ধরবে, যেভাবে নব্বই দশক বা ভিক্টোরিয়ান যুগকে বর্ণনা করা হয়।

জাপানের সম্রাটের রাজনৈতিক কোন ক্ষমতা নেই, তবে তিনি দেশের সর্বোচ্চ প্রতীক হিসেবে বিবেচিত হন।

বর্তমান সম্রাট, ৮৫ বছরের আকিহিতোর 'হেইসেই' যুগ শুরু হয়েছিল ১৯৮৯ সালে।

ফলে ২০১৯ সালে এসে এই যুগের বয়স দাঁড়াচ্ছে ৩১ বছর। তার যুগ 'শান্তি অর্জন'-এর মূল উদ্দেশ্য ছিল দেশের ভেতরে এবং বাইরে ভালো সম্পর্ক গড়ে তোলা।

এর আগের যুগ ছিল 'শোউয়া' যার মানে ' সমৃদ্ধ শান্তি'। জাপানের যুদ্ধকালীন সম্রাট হিরোহিতোর এই যুগ ছিল ৬৪ বছর ধরে, যা বিশ্বযুদ্ধ এবং তার পরে জাপানের ঘুরে দাঁড়ানোর পুরো সময়টা জুড়ে চলেছে।

বিবিসি বাংলার অন্যান্য খবর:

খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য সম্পর্কে চিকিৎসকরা যা বলছেন

টিভি চ্যানেলগুলো কেন বিজ্ঞাপন আনতে পারছে না?

স্থানীয় নির্বাচনে রাজধানী আঙ্কারায় হারলেন এরদোয়ান

সফল বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরাও ব্রেক্সিট নিয়ে সংকটে

ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption স্বেচ্ছায় দায়িত্ব ছেড়ে দিচ্ছেন সম্রাট আকিহিতো

এটা কিভাবে বাছাই করা হয়?

পণ্ডিত ও বিশেষজ্ঞদের পরামর্শে তৈরি করা একটি ছোট্ট তালিকা থেকে এই নতুন যুগের নাম বেছে নেয় জাপানের মন্ত্রিসভা।

কোন ক্রমেই যাতে ১লা এপ্রিলের আগে এই যুগের নাম প্রকাশ হয়ে না যায়, সেজন্য মন্ত্রিসভার সদস্যরা সভা শুরু হওয়ার আগে তাদের ফোন এবং স্মার্ট ওয়াচ বাইরে রেখে যেতে হয় বলে জানা গেছে। আনুষ্ঠানিকভাবে ওই যুগের নাম ঘোষণা না করা পর্যন্ত তাদের সভাকক্ষেই থাকতে হয়।

সাধারণত চীনের প্রাচীন গল্প-কবিতা থেকে যুগের নামটি বাছাই করা হয়। সাধারণত নতুন যুগের নামকরণ করা হয় যখন একজন সম্রাট মারা যান এবং নতুন একজন সিংহাসনে আরোহণ করেন।

তবে এবার বিষয়টি বেশ আলাদা। কারণ সম্রাট আকিহিতো তার সন্তান, যুবরাজ নারুহিতোর জন্য নিজেই সিংহাসন ত্যাগ করছেন। নতুন সম্রাটের যুগ শুরু হবে ১লা মে থেকে।

জাপানের নিক্কেই সংবাদ মাধ্যমের তথ্য মতে, গত ৩০ বছরে প্রতিবছর অন্তত একবার নাম বাছাইয়ের অনুশীলন করা হয়েছে।

যখন যুগের নামটি বেছে নেয়া হয়, তখন মন্ত্রিসভা একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে, যেখানে বর্তমান সম্রাট সাক্ষর করেন।

ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption ২০১৯ সালের জন্য জাপানী ক্যালেন্ডার, যার আরেক নাম 'হেইসেই ৩১'

কত মানুষ এই 'সম্রাটের যুগ' ব্যবহার করেন?

বলা হচ্ছে, জাপানে বৈশ্বিক প্রভাব বেড়ে যাওয়ার কারণে এই 'সম্রাটের যুগের' ব্যবহার কমে আসছে।

দেশের এক-তৃতীয়াংশ মানুষ এখন এই পদ্ধতি ব্যবহার করে, যা ১৯৭৫ সালে ছিল ৮২ শতাংশ।

যেহেতু উভয় ক্যালেন্ডারেই পশ্চিমা দিনপঞ্জি ব্যবহার করা হয়, ফলে অনেক মানুষ দুইটাই পাশাপাশি ব্যবহার করেন।

তবে একজন ব্যক্তিতে এই যুগের নাম বহন করে যেতে হবে। তিনি হলেন বিদায়ী সম্রাট আকিহিতো।

রাজত্ব শেষ হয়ে যাওয়ার পরে জাপানের সম্রাটদের তাদের যুগের নামে নামকরণ করা হয়। সুতরাং ধারণা করা হচ্ছে যে, সম্রাট আকিহিতোর নতুন নাম হবে সম্রাট হেইসেই, যেমনটা হয়েছিল তাঁর পিতা হিরোহিতোর, সম্রাট শোউয়া।