সহকর্মীদের পুরস্কার বা বখশিশ প্রতিষ্ঠানের জন্য কতটা সুফল আনে?

বিপিও, ব্যাঙ্গালুরু, কর্ণাটক, ভারত, নারী, কর্মক্ষেত্রে, ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption দিনের একটি বড় সময় কর্মক্ষেত্রে কাটাতে হয়। (ফাইল ফটো)

"অফিসে কেউ যদি সত্যিই ভাল কিছু করে থাকে তাহলে আমরা তাকে সাধারণত দুই থেকে পাঁচ পাউন্ড কিংবা তারও কিছু বেশি বখশিশ দিয়ে থাকি।"

বলছিলেন যুক্তরাজ্যে বসবাসকারী এবং সেখানকার একটি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত বেকি থর্নটন।

তিনি মনে করেন, আপনি যদি কারও কাজ সত্যিই পছন্দ করে থাকেন তাহলে সেটা প্রকাশের স্পষ্ট উপায় হতে পারে এই বখশিশ দেয়া।

যুক্তরাজ্যের কর্মক্ষেত্রে ভাল কাজের পুরস্কার হিসেবে এখন অনেক বস বা অফিস প্রধান এই টিপস বা বখশিশ দেওয়ার প্রচলন শুরু করেছেন।

যাকে তারা নাম দিয়েছেন মাইক্রো বোনাস।

আর এই কারণে এ ধরনের ব্রিটিশ প্রতিষ্ঠানগুলোয় ইতিবাচক পরিবর্তন লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

আরও পড়তে পারেন:

অফিসে কাজ না করেও তারা ভালো কর্মী?

ব্রিটেনে কর্মীদের অনেকেই একটু বেশি শিক্ষিত

‘পুরুষ বিহীন’ উৎসবে পুরুষদের প্রতি বৈষম্যের অভিযোগ

ছবির কপিরাইট BECKY THORNTON
Image caption বেকি থর্নটন

মূলত যেসব প্রতিষ্ঠানে ভাল কাজের জন্য কর্মীদের অল্প পরিমাণে হলেও টিপস দেয়ার মতো ক্ষমতা ও বাজেট রয়েছে সেখানেই প্রবৃদ্ধি চোখে পড়েছে।

এই পরিকল্পনার পেছনে জড়িত প্রধান দুটি প্রতিষ্ঠান সম্প্রতি বিবিসি রেডিও ফাইভের সরাসরি সম্প্রচারিত 'ওয়েক আপ টু মানি' নামের একটি অনুষ্ঠানে আসে।

সেখানে প্রতিষ্ঠান দুটোর কর্ণধাররা জানিয়েছেন যে, কর্মীদের ছোট ছোট নগদ পুরষ্কার প্রদানের ক্ষমতা দেয়ার কারণে যুক্তরাজ্যের ব্যবসায় বড় ধরণের প্রবৃদ্ধি দেখা গেছে।

যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক ফার্ম বোনাসলি বলেছে যে, গত ১২ মাসে ব্রিটেনের গ্রাহকদের মধ্যে তাদের স্কিম ৭৫% বেড়ে গেছে।

যার মানে হল, এখন ২৫০টি যুক্তরাজ্য-ভিত্তিক সংস্থা তাদের স্কিম ব্যবহার করছে এবং এর অন্যতম কারণ ১০ হাজারের মতো কর্মচারীকে তারা পুরস্কৃত করেছে।

বসের সঙ্গে খারাপ সম্পর্ক বাড়াতে পারে হৃদরোগের ঝুঁকি

চাকরিতে বস 'ভয়াবহ' হলে কী করবেন?

রিওয়ার্ড গেটওয়ে রেডিও ফাইভকে জানিয়েছে, সহকর্মীদের অল্প পরিমাণে নগদ অর্থ প্রদানের ক্ষমতা দেয়ার পর যুক্তরাজ্যে ব্যবসার পরিমাণ ১০০% বৃদ্ধি পেয়েছে।

বেকি থ্রনটন এর বক্তব্য, "প্রতিক্রিয়া জানানোর জন্য এটি একটি দুর্দান্ত উপায়, কারো কাজের প্রশংসা করার জন্য একে সবচেয়ে ইতিবাচক উপায় বলে মনে হয়।"

তিনি বলেন "আমি আমার টিপসের অর্থ জমাতে থাকি। যখন সেটা ১০০ পাউন্ড ছাড়িয়ে যায়, তখন সেই টাকাটা তুলে আমি নিজেকে খুশি করতে কিছু একটা করি।"

ছবির কপিরাইট CRISTINA ALDEHUELA
Image caption কর্মক্ষেত্রে যার পারফর্ম্যান্স ভাল, আজই তাকে ছোট একটি উপহার দিয়ে দেখা যেতে পারে।

'এটি কাজের গতি ফেরাতে কাজ করে'

বোনাসলি'র সহ-প্রতিষ্ঠাতা রাফায়েল ক্রাউফোর্ড-মার্কস বলছেন, এই উপহারের উদ্দেশ্য হল "কর্মীরা যেন সময়মত ভাল কাজের অর্থপূর্ণ স্বীকৃতি পায়"।

তিনি এটাকে শুধুমাত্র "টিপিং" বা বখশিশ প্রদান হিসেবে দেখতে পছন্দ করেন না।

তিনি বরং মনে করেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এই বখশিশের একটি ভিন্ন অর্থ আছে, যেখানে টিপস অনেকের মাসিক বেতনের একটি বড় অংশ গঠনে ভূমিকা রাখে।

তিনি বলেন, "কর্মচারীদের মধ্যে ভাল অভ্যাস গড়ে তুলতে এবং অন্যের কাজের স্বীকৃতি দিতে এই পুরস্কার সাহায্য করে।"

"যখন প্রত্যেক কর্মচারীর কাছে একটি থোক টাকা থাকে তখন তারা এটি সহকর্মীদের মধ্যে বিলিয়ে দিতে চান। যেটা কিনা অন্যদেরও কাজে গতি ফেরাতে উৎসাহ যোগায়।"

ছবির কপিরাইট Hindustan Times
Image caption কর্মক্ষেত্রে টিপস হিসেবে পাওয়া টাকায় অনেকেই সহকর্মীকে বাইরে খাওয়াতে নিয়ে যান।

কিন্তু যারা এই অভিজ্ঞতার মধ্যে দিয়ে গেছেন তারা সবাই যে একে সমর্থন করছেন সেটা বলা যাবেনা।

ভিক্টোরিয়া ডেভিস এমন একটি সংস্থায় কাজ করতেন যেখানে এই পদ্ধতিতে বোনাস পরিচালনা করতে হতো।

দিনশেষ সবকিছুর হিসাব রাখা মিজ ডেভিসের জন্য অনেক কঠিন হয়ে পড়তো।।

তিনি বলেন, "যদি আপনি এমন ব্যক্তি হন যিনি অন্য অনেকের চাইতে বেশি পারদর্শী, সেইসঙ্গে আপনি এই কাজটি শুধুমাত্র টিপস পাওয়ার জন্য করতে চাননা। সেক্ষেত্রে এই টিপস আমার কাছে অপব্যবহারের সুযোগ সৃষ্টির মতো।"

তার কাছেএটা বাড়তি চাপ তৈরির ব্যাপার বলে মনে হয়।

"অনেকটা স্কুলের জনপ্রিয়তা যাচাইয়ের প্রতিযোগিতার মতো। ওই কমিউনিটির মধ্যে আমি ঘেঁষতে চাইনা। ঠিক যেমন আমি এই টিপস দলের অংশ হতে চাইনা। এটি আমার কাছে বাড়তি চাপ ছাড়া আর কিছুই না। যেটা আমার প্রয়োজন নেই।"

ছবির কপিরাইট Chris Condon
Image caption তবে টিপস দেয়া-নেয়া অনেকেই পছন্দ করছেন না।

সেরা প্রমাণের লড়াইয়ের প্রতিযোগিতা

বখশিশের অর্থের পরিমাণকত হবে এবং কিভাবে এই পুরষ্কারটি দেয়া হবে- সেটা নির্ভর করে নিয়োগকর্তার ওপর।

মিটার স্বেকির নিয়োগকর্তা ১৫ পাউন্ড বরাদ্দ রাখেন শুধুমাত্র তার সহকর্মীদের টিপস দেয়ার জন্য। এভাবে বছর শেষে একজন ১০০ পাউন্ডও উত্তোলন করেছেন।

এজিলিটি স্কেলসের প্রতিষ্ঠাতা এবং ব্যবস্থাপনা সম্পর্কিত বিভিন্ন বইয়ের লেখক জার্গেন অ্যাপেলো তার কর্মীদের পুরস্কার দেয়ার ব্যাপারে একটি প্রকল্প উপস্থাপন করেছেন।

ছবির কপিরাইট Vyacheslav Prokofyev
Image caption কাজের স্বীকৃতি দেয়ার দারুণ উপায় হতে পারে এই মাইক্রো বোনাস।

প্রতি মাসে কোম্পানিটি যে পয়েন্ট মুনাফা করে সেই পয়েন্টগুলোর মূল্য নির্ধারণ করা হয়।

তিনি স্বীকার করেছেন যে এই প্রকল্পটি, জনপ্রিয়তা প্রতিযোগিতায় পরিণত হওয়ার ঝুঁকি রয়েছে: "এটিকে প্রতিযোগিতায় রূপ নেয়া থেকে ঠেকানো যাবেনা। কারণ আমরা ইতিমধ্যেই ঐতিহ্যগত পদ্ধতির প্রতিযোগিতার মধ্যে রয়েছি।"

"কারণ এই প্রতিযোগিতায় যিনি বসের কাছে সবচেয়ে পরিচিত তাকেই বিজয়ী করা হয়, যা দিনশেষে একটি খারাপ পদ্ধতি হিসাবে প্রমাণিত হয়।"

তিনি আরও জানান, আমরা গবেষণা করে দেখার চেষ্টা করছি যে, তাদের কাজের সাথে, অন্তর্মুখী এবং বহির্মুখী ব্যক্তিত্বের কোন সম্পর্ক আছে কি-না। সেটার ভিত্তিতে কে কেমন পয়েন্ট পেতে পারে আমরা সেটা ঠিক করছি।

ছবির কপিরাইট Vladimir Gerdo
Image caption অনেক সহকর্মী একে অন্যকে নানা ধারণের উপহার দিয়ে থাকেন।

তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া

ব্যবসার অনিশ্চিত পরিণতি সম্পর্কে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছেন মনোবিজ্ঞানী জুলি ওয়েকার এবং কর্মক্ষেত্রের সুস্থতা বিষয়ে বিশেষজ্ঞ রবার্টসন কুপার।

তারা বলেন,"আমি দেখতে পারি যে এটি কীভাবে বিশাল প্রভাব ফেলতে পারে এবং একইসঙ্গে আনন্দদায়কও হতে পারে। কিন্তু এই নীতি যদি অফিসের কাজের সংস্কৃতির সাথে খাপ না খায় তাহলে এটি বেশ নেতিবাচক হতে পারে।"

"উদ্দেশ্য যে ভাল এতে কোন সন্দেহ নেই, এটি লোকেদের অনুপ্রাণিত করতে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া জানানোর দারুণ উপায়।"

এর অর্থ হল আপনাকে ভাল কাজের স্বীকৃতির জন্য একজন ব্যবস্থাপকের ওপর নির্ভরশীল হতে হচ্ছেনা।

যা লোকেদের খারাপ পরিচালকদের নেতিবাচক প্রভাব থেকে মুক্ত করতে পারে।

কিন্তু তারপরও এখানে জনপ্রিয়তার প্রতিযোগিতা হওয়ার ঝুঁকি থেকে যায়।

ছবির কপিরাইট JOHANNES EISELE
Image caption ভাল কাজের জন্য উৎসব তো হতেই পারে।

এর পিছনে যে কারণই থাকুক না কেন এবং আপনি এটি পছন্দ করেন বা নাই করেন, জনসম্পদের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞ চার্টার্ড ইন্সটিটিউট অফ পারসোনেল অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট বিবিসিকে জানায় যে, এইসব স্কিমে প্রবৃদ্ধি দেখা গেছে।

এই আমেরিকান নিয়ম বা সুযোগ খুব শীঘ্রই আপনার কাছাকাছি কর্মক্ষেত্রেও চলে আসতে পারে।

তাই নিজের সেরা সহকর্মী কারা তা আজ থেকেই বের করা শুরু করুন।