কৃত্রিম মাংসের বার্গার, যা থেকে 'রক্ত'ও ঝরে - আর বেশি দূরে নয়

এমন কৃত্রিম মাংস তৈরি করছে কিছু কোম্পানি যা থেকে 'রক্ত' বেরোবে ছবির কপিরাইট IMPOSSIBLE FOODS
Image caption এমন কৃত্রিম মাংস তৈরি করছে কিছু কোম্পানি যা থেকে 'রক্ত' বেরোবে

সেই দিন কি তাহলে প্রায় এসে গেল, যখন এমন খাবার বিক্রি হবে দোকানে - যা তৈরি কৃত্রিম মাংস দিয়ে, কিন্তু তা থেকে আসল মাংসের মতোই 'রক্ত' বেরোয়?

সম্প্রতি কিছু কিছু দেশে 'মিট-ফ্রি' খাবার সহজলভ্য হয়ে ওঠায় বিশেষজ্ঞরা এমন কথাই বলছেন।

মানুষের খাদ্য কিভাবে পরিবেশ এবং স্বাস্থ্যের ওপর প্রভাব ফেলছে - তা নিয়ে একদিকে যেমন উদ্বেগ বাড়ছে, অন্যদিকে নিরামিষভোজী হবার প্রতি মানুষের আগ্রহ বাড়ছে।

এই ভেজিটেরিয়ানরা যে খাবার খান তাকে বলে ভেগান ফুড। বিভিন্ন মাংস-জাত খাবারের ভেগান সংস্করণ বের হতে যাচ্ছে এখন। যেমন: ভেগান সসেজ-রোল বা ভেগান বার্গার।

এতে যে মাংস ব্যবহৃত হবে - তা দেখতে চিরাচরিত মাংসের মতোই। এই 'নিরামিষ মাংসের' গন্ধ ও স্বাদও আসল মাংসের মতো। এ থেকে আসল মাংসের মতো 'রক্ত'ও বেরোয়।

এগুলো তৈরি হচ্ছে উদ্ভিদজাত প্রোটিন থেকে। সাধারণত এ কাজে ব্যবহার হচ্ছে গম, মটরশুঁটি বা আলু থেকে। আর এই মাংসের 'রক্ত' তৈরি হচ্ছে বীটের রস দিয়ে।

গরুর মাংসের রঙ এবং স্বাদ তৈরি হয় যে প্রাণীজ উপাদানটি থেকে তার নাম হচ্ছে 'হেম'। ইম্পসিবল ফুডস নামে একটি আমেরিকান ফার্ম সম্প্রতি উদ্ভিজ্জ 'হেম' তৈরি করেছে - যা কৃত্রিম মাংসকে আসলের চেহারা এনে দেবে বলেই তারা মনে করছেন।

ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption এ বছরের মধ্যেই দোকানে কৃত্রিম চিকেন নিয়ে আসার আশা করছে একটি কোম্পানি।

অন্যান্য খবর:

মানহীন খাদ্য পণ্য এতদিন পর কেন আলোচনায়?

চাকরির ইন্টারভিউতে বাজিমাত করবেন কীভাবে?

বাংলাদেশ ও কানাডার অর্থনীতির পার্থক্য কতটা?

বিজ্ঞানীরা এখন ল্যাবরেটরিতেও কৃত্রিম মাংস তৈরি করছেন। এটা তৈরি হচ্ছে প্রাণীর স্টেম সেল দিয়ে। তাদের লক্ষ্য হচ্ছে এমন স্তরের কৃত্রিম মাংস তৈরি করা যা রান্না করা বা খাওয়ার অভিজ্ঞতা হবে একেবারেই আসল মাংসের মতো - এর পার্থক্য ধরাই প্রায় অসম্ভব হবে।

এখন পাশ্চাত্যের কিছু সুপারস্টোরে একটা মাংস-মুক্ত শাখাও দেখা যাচ্ছে।

তবে কৃত্রিম মাংস দিয়ে তৈরি খাদ্য পণ্য এখনো বাজারে বা রেস্তোরাঁয় না এলেও কয়েক বছরের মধ্যেই তা পাওয়া যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

'জাস্ট' নামে একটি ফার্ম বলছে, ২০১৯ সাল শেষ হবার আগেই তারা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সুপার স্টোরগুলোতে ল্যাবরেটরিতে তৈরি করা চিকেন বা 'মুরগির মাংস' আনতে পারবে বলে তারা আশা করছে।

অবশ্য এ জন্য আমেরিকার ফুড এ্যান্ড ড্রাগ এ্যাডমিনিস্ট্রেশনের অনুমতি লাগবে।

তা ছাড়া সে অনুমতি পাওয়া গেলেও ল্যাবরেটরিতে তৈরি মাংস সম্পর্কে মানুষের যে বিরূপ ধারণা বা 'ছি ছি' করে ওঠার প্রবণতা - তা একটি বড় বাধা হবে, এমনটাই অনেকের ধারণা।

আরো পড়তে পারেন:

'ভেগান' বা 'নিরামিষাশী': দরকারি পাঁচটি তথ্য

মানুষ কী করে অন্য প্রাণীর দুধ খেতে শিখলো?