ভারতে ধর্ষণের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো শেখাচ্ছেন যে নারী

ঊষা বিশ্বকর্মা এবং তার প্রতিষ্ঠানের একজন সদস্য
Image caption ঊষা বিশ্বকর্মা এবং তার প্রতিষ্ঠানের একজন সদস্য

"ঐ ঘটনার আগে আমি খুব সাহসী একটা মেয়ে ছিলাম। কিন্তু ঐ ঘটনা আমার আত্মবিশ্বাস নষ্ট করে দেয়।"

ভারতে মেয়েদের একটি স্কুলে আত্মরক্ষা বিষয়ক কর্মশালা পরিচালনা করার সময় নিজের সাথে হয়ে যাওয়া যৌন হয়রানির ঘটনা সম্পর্কে বলছিলেন ঊষা বিশ্বকর্মা।

মিজ. ঊষা'র বয়স যখন ১৮ বছর, তখন তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করা হয়।

"ঐ ঘটনার কারণে যেরকম মানসিক আঘাত পাই, তা কাটাতে প্রায় এক বছর সময় লেগেছিল আমার।"

মিজ. ঊষা বলেন, "আমার মনে হয়েছিল - আমি যদি ঐ ঘটনা সম্পর্কে কাউকে বলি, তাহলে আমার ঘর থেকে বের হওয়া অসম্ভব হয়ে পড়বে।"

কিন্তু দ্রুতই ঐ মানসিক অবস্থার পরিবর্তন হয় মিজ. ঊষার।

এর কিছুদিন পর থেকে তিনি যৌন হয়রানি এবং ইভ টিজিং থেকে আত্মরক্ষার উদ্দেশ্যে নারীদের জন্য কর্মশালা আয়োজন করা শুরু করেন।

"কোন মেয়ে যখন আমাকে এসে বলে যে তাকে উত্যক্ত বা যৌন হয়রানি করা হয়েছে, আমি তাকে আত্মরক্ষার কৌশল শিখতে উদ্বুদ্ধ করি।"

"বিভিন্ন পরিস্থিতির জন্য মেয়েদের বিভিন্ন রকম পদ্ধতি শিখিয়ে থাকি আমরা, যেগুলো আক্রমণের শিকার হওয়ার পর ২০ সেকেন্ডের মধ্যে কাজ করে।"

উত্তর প্রদেশের শহর লখনৌতে 'রেড ব্রিগেড' নামের এই প্রতিষ্ঠানটি ২০১১ সালে তৈরি করেন ঊষা।

শুরুতে নানা ধরণের নেতিবাচক কথা শুনতে হলেও ধীরে ধীরে মানুষ তার এই উদ্যোগকে সমর্থন করা শুরু করে।

"প্রথম দিকে মানুষ একেবারেই সমর্থন দেয়নি।"

আরো পড়তে পারেন:

নদী বন্দরে ২ নম্বর সংকেত, ৪৩ রুটে লঞ্চ বন্ধ

বাংলাদেশ বনাম দক্ষিণ আফ্রিকা: কার কী কৌশল?

আমেরিকার ভিসার জন্য নতুন নিয়ম চালু করা হলো

কুঁড়েঘর থেকে মন্ত্রিসভায়ঃ প্রতাপ সারাঙ্গি আসলে কে?

"এমনকি শুরুতে মানুষ আমাকে যৌনকর্মী বলেও হেনস্থা করতো। তারা বলতো - আমার সাথে যেই মেয়েরা কাজ করে, তারাও বাজে মেয়ে।"

কিন্তু মানুষের নেতিবাচক কথা তাদের দমাতে পারেনি।

মিজ. ঊষা বলেন, "যেই মানুষেরা একসময় আমাদের খারাপ কথা বলতো, আজ তারাই আমাদের প্রশংসা করে।"

২০১২ সালে দিল্লিতে বাসে একজন নারীকে গণধর্ষণ করার পর হত্যা করা হলে তা ভারতজুড়ে ব্যাপক জনরোষের জন্ম দেয়।

তারপর থেকে ভারতে নারীদের বিরুদ্ধে হওয়া যৌন হয়রানি এবং ধর্ষণের ঘটনায় আনুষ্ঠানিক অভিযোগ করার হার বাড়লেও এখনো অধিকাংশ ঘটনার ক্ষেত্রেই অভিযোগ করা হয় না।

উষা বলেন, "আমরা যখন কোনো মেয়েদের স্কুলে কর্মশালা পরিচালনা করতে যাই, তখন শুরুতেই মেয়েদের জিজ্ঞেস করি যে - এমন কেউ কি আছে যে কখনো হয়রানির শিকার হওনি?' আজ পর্যন্ত কোথাও একটি মেয়েও এই প্রশ্নের উত্তরে হ্যাঁ বলেনি।"

"আমাদের দেশের অবস্থা এতই খারাপ যে, প্রায় শতভাগ নারীই কখনো না কখনো যৌন হয়রানির শিকার হয়েছেন।"

সংবাদ সংস্থা থমসন রয়টার্স ফাউন্ডেশনের ২০১৮ সালের প্রতিবেদন অনুযায়ী, নারীদের বিরুদ্ধে যৌন সহিংসতার ঘটনার হিসেবে ভারত পৃথিবীর সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ দেশ।

সম্পর্কিত বিষয়