বাংলাদেশে ঈদ: যানজটের কারণে মহাসড়কে সন্তান প্রসব

মা ও নবজাতক ছবির কপিরাইট Sohel Talukdar
Image caption মা ও নবজাতক

বাড়ি ফিরতে গিয়ে দীর্ঘ যানজটে আটকে পড়ে একজন নারী মহাসড়কে সন্তান প্রসব করেছেন।

মঙ্গলবার ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতুর গোলচত্বর এলাকায় ওই মেয়ে শিশুটির জন্ম হয়। সড়কের ওপর জন্ম হওয়ায় শিশুটির নাম রাখা হয়েছে সরণি।

শিশুটির বাবা হাবিব হোসেন গাজীপুরে শ্রমিক হিসাবে কাজ করেন। সন্তান সম্ভবা স্ত্রীকে নিয়ে সোমবার রাতে তিনি কুড়িগ্রামে গ্রামের বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছিলেন।

কিন্তু সোমবার রাত থেকেই টাঙ্গাইল মহাসড়কে প্রচণ্ড যানজটের সৃষ্টি হয়। উত্তরবঙ্গের যাত্রীদের এ সময় চরম ভোগান্তিতে পড়তে হয়।

একপর্যায়ে যমুনা সেতুর টোলপ্লাজা বন্ধ করেও দেয়া হয়েছি। বিক্ষুব্ধ যাত্রীরা একজন ম্যাজিস্ট্রেটের গাড়িতে আগুন জ্বালিয়ে দেন।

হাবিব হোসেন বিবিসি বাংলাকে বলছেন, ''সোমবার রাতে বাড়ির দিকে রওনা হয়েছিলাম। বাসে উঠতেও অনেক দেরি হইছে। যমুনা সেতুর অনেক আগে থেকে লম্বা যানজট শুরু হয়। দীর্ঘসময় যানজটে আটকে থাকা আর গাড়িতে বসে থাকার ফলে আমার স্ত্রীর প্রসব বেদনা শুরু হয়। একপর্যায়ে পানি ভাঙ্গতে শুরু করলে বাস থেকে নেমে পথের পাশেই শুয়ে পড়েন।''

এ সময় বাসযাত্রীদের সহযোগিতায় পথের ওপরেই তার স্ত্রী একটি কন্যা শিশুর জন্ম দেন।

বিবিসি বাংলার অন্যান্য খবর:

নিউজিল্যান্ড ও বাংলাদেশের যত মিল-অমিল

ঈদের চাঁদ নিয়ে সরগরম ফেসবুক

কী ধরণের পুরুষ পছন্দ বাংলাদেশের মেয়েদের?

আড়ং বন্ধের পর বদলি নাটক, সামাজিক মাধ্যম সরগরম

স্থানীয় সাংবাদিক সোহেল তালুকদার বলছেন, ওই ভদ্রমহিলার প্রসব বেদনা উঠতে দেখে একজন যাত্রী সরকারি জরুরি সহায়তা নম্বর ৯৯৯ ফোন করে সহায়তা চান। ফোনটি স্থানীয় ভূয়াপুর থানার ওসি কাছে গেলে তার অনুরোধে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে একটি অ্যাম্বুলেন্স আর দুইজন সেবিকাকে সেখানে পাঠানো হয়।

কিন্তু তারা পৌঁছানোর আগেই সড়কের ওপর সন্তান প্রসব হয়ে যায় বলে তিনি জানান। পরে মা ও মেয়েকে চেকআপ করে তারা চিকিৎসা সেবা দেন।

সোহেল তালুকদার জানাচ্ছেন, সড়কে সন্তান প্রসবের এই ঘটনার পর দরিদ্র পরিবারটির সাহায্যে অনেক বাসযাত্রী এবং পথচারীরা এগিয়ে আসেন।

পরে তাদের আর্থিক সহযোগিতায় পরিবারটিকে একটি গাড়ি ঠিক করে দেয়া হয়। কয়েক ঘণ্টা পরে তারা ওই গাড়িতে করে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা হন।