বাংলাদেশ বন্যা: উত্তরের পাঁচটি জেলায় বন্যা পরিস্থিতি খারাপ হচ্ছে

ফাইল ছবি : ২০১৭ সালে বন্যা আক্রান্ত উত্তরের গাইবান্ধা এলাকা ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption ফাইল ছবি : ২০১৭ সালে বন্যা আক্রান্ত উত্তরের গাইবান্ধা এলাকা

উজানের পানির কারণে বাংলাদেশের উত্তরে ১৫ টি জেলার বিস্তীর্ণ এলাকা ইতিমধ্যেই পানির নিচে তলিয়ে গেছে। নতুন করে আরো কয়েকটি জেলায় তা ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে আশংকা করা হচ্ছে।

দেশটির উত্তরাঞ্চলের অন্তত পাঁচটি জেলায় আগামী কয়েকদিনে বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হবে বলে জানাচ্ছে বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র।

বিবিসির সংবাদদাতারা জানাচ্ছেন বাংলাদেশ ছাড়াও উজানে ভারতের উত্তরাঞ্চল ও নেপালে ইতিমধ্যেই বন্যা পরিস্থিতি খারাপ আকার নিয়েছে। তিনটি দেশ মিলিয়ে এর মধ্যেই ১০০-রও বেশি লোক মারা গেছে, বিহার রাজ্যে ২০ লক্ষ এবং আসামে ১০ লক্ষেরও বেশি লোক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

বাংলাদেশ উপমহাদেশের ভাটি অঞ্চলে অবস্থিত, তাই উজানে যে বন্যা হচ্ছে - সেই পানি বাংলাদেশের ভেতর দিয়েই সাগরে নামবে।

বাংলাদেশে এই মুহুর্তে উত্তরাঞ্চলের সাতটি জেলা, উত্তর পূর্বাঞ্চলে সিলেট ও আশপাশের জেলা, পার্বত্য উপজেলাগুলো সহ মোট ১৫ টি জেলার বিস্তর এলাকা ইতিমধ্যেই পানির নিচে তলিয়ে রয়েছে।

বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র থেকে জানানো হয়েছে গত ২৪ ঘন্টায় দেশের সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির কিছুটা অবনতি হয়েছে।

বিবিসি বাংলায় আরো পড়ুন:

বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ দিয়েও কেন বন্যা ঠেকানো যাচ্ছে না?

এরশাদের অবর্তমানে জাপা ‘বিলুপ্ত হতে পারে’

আদালত কক্ষে এক আসামির হাতে আরেক আসামি খুন

পাসপোর্ট করাতে পুলিশ ভেরিফিকেশন কতটা জরুরী

ছবির কপিরাইট NurPhoto
Image caption ফাইল ছবি: ২০১৭ সালে বন্যা আক্রান্ত বগুড়া জেলার ছবি

বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আরিফুজ্জামান ভূঁইয়া জানিয়েছেন, উত্তরের কয়েকটি জেলায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হবে এবং নতুন জেলাও প্লাবিত হতে পারে।

কুড়িগ্রামের সদর উপজেলার রসুলপুর এলাকার বাসিন্দা মোসাম্মত আকলিমা বেগম বলছিলেন, এলাকার অন্য বাড়ির তুলনায় তার বাড়িটি অনেক উঁচুতে হলেও গতকাল থেকে তার ঘরের মধ্যে হাঁটু পানি।

আকলিমা বেগম বলছিলেন, আশ্রয় কেন্দ্রে গবাদিপশুগুলোকে পাঠিয়ে দিয়েছেন কিন্তু ঘর পাহারা দিতে পাঁচ ছেলেমেয়ে সহ নিজেরা রয়ে গেছেন।

আরেকটি বন্যা আক্রান্ত জেলা সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার উত্তরলক্ষীপ্রসাদ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা শাবানা বেগম বলছিলেন তার স্কুলে পানি উঠেছে, ছেলেমেয়েদের পড়াশোনা বন্ধ।

বন্যা সতর্কীকরণ কেন্দ্রের কর্মকর্তারা জানাচ্ছেন - দেশে তাদের যে ৯৩টি পর্যবেক্ষণ স্টেশন রয়েছে, তার মধ্যে ৬৮টি পয়েন্টেই পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। মোট ১৪টি নদীর ২৬টি অংশে পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

এই পরিস্থিতি সামাল দিতে কর্তৃপক্ষের প্রস্তুতি কতটা? এ কথা জিজ্ঞেস করলে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো: শাহ্ কামাল বলছেন, সকল জেলায় দুর্যোগ ব্যাবস্থাপনা কমিটিগুলোর সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আপাতত খুব বড় ধরনের দুর্যোগের আশংকা তারা করছেন না।

তবে বৃষ্টি অব্যাহত থাকলে সামনে পরিস্থিতি আরো খারাপের দিকে যেতে পারে, বলেন তিনি।

আপনার ডিভাইস মিডিয়া প্লেব্যাক সমর্থন করে না
বন্যা থেকে বাঁচতে ভাসমান শস্য চাষ হচ্ছে বাংলাদেশে

সম্পর্কিত বিষয়