ক্ষুদে বয়স থেকেই যেসব শিশুরা উপার্জন করছে কোটি কোটি অর্থ

শিশু ছবির কপিরাইট Getty Images

বিশ্বের সবচেয়ে ধনী কয়েকজন শিশুর নাম সামনে এসেছে - যাদের প্রায় অর্ধেক উপার্জন করছে লাখ লাখ পাউন্ড।

এই শিশুরা বিভিন্ন উৎস থেকে এই অর্থ উপার্জন করে করছে। এর মধ্যে রয়েছে বিজ্ঞাপন, বিভিন্ন ব্র্যান্ডের সহযোগিতা থেকে পাওয়া অর্থ, মানুষের সামনে উপস্থিতি এবং স্পন্সর পোস্ট।

শীর্ষ দশ শিশুর এই তালিকায় মূলত স্থান পেয়েছে ইউটিউব এবং ইনস্টাগ্রামের মতো সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্মে সর্বাধিক অর্থ উপার্জন করা শিশুরা।

এবার দেখা নেয়া যাক অর্থ উপার্জনের হিসেবে কারা শীর্ষে জায়গা করে নিয়েছে।

ছবির কপিরাইট RYANTOYSREVIEW
Image caption শীর্ষে উঠে এসেছে রায়ান কাজির নাম।

১. রায়ান কাজী

সাত বছর বয়সী রায়ান কাজীর নিজের উপার্জিত মোট সম্পদের পরিমাণ এক কোটি ৭১ লাখ পাউন্ড।

রায়ান যুক্তরাষ্ট্রে থাকে এবং ইউটিউবে তার সর্বাধিক জনপ্রিয় ভিডিওগুলিতে দেখা যায় সে তার উপহারের বাক্স খুলে বিভিন্ন খেলনা বের করে।

সেই খেলনাগুলো পর্যালোচনা করে রিভিউ দেয় রায়ান। এভাবে ঘণ্টায় অন্তত দুই হাজার ডলার উপার্জন করছে এই শিশু।

ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption কাইলি গিয়ার্সডর্ফ

২. কাইল গিয়ার্সডর্ফ

দ্বিতীয় স্থানে আছে গেমিং ইনফ্লুয়েন্সার কাইল গিয়ার্সডর্ফ।

১৬ বছর বয়সী কাইল ফোর্টনাইট বিশ্বকাপ জয় করেছে। এর মাধ্যমে সে পুরষ্কার হিসেবে অর্জন করেছেন ২৬ লাখ পাউন্ড।

এখন তার ইনস্টাগ্রামে ফলোয়ার সংখ্যা প্রায় ১৪ লাখ।

ছবির কপিরাইট SAVANAHLABRANT/INSTAGRAM
Image caption মায়ের সঙ্গে এভারলেয় রোজ সুটাস

৩. এভারলেয় রোজ সুটাস

এভারলেয়ের বয়স মাত্র ছয়, তবে ইতিমধ্যে তার অর্জিত সম্পদের পরিমাণ প্রায় ১৮ লাখ পাউন্ড।

পরিবারকে অনুসরণ করেই ইউটিউবার হয়েছে সে। তার মা সাভানাহ সুটাস এবং বাবা কোল ল্যাব্রান্টের আলাদা একটি ইউটিউব চ্যানেল রয়েছে।

এভারলেয় মূলত বিভিন্ন পণ্যের বাক্স খুলে সেটা যাচাই বাছাইয়ের ভিডিও করে থাকে। তার এই আনবক্সিং ভিডিওগুলো বেশ জনপ্রিয়তা কুড়িয়েছে।

হাতে তৈরি বিভিন্ন জিনিস বানানো বা ক্রাফট চ্যালেঞ্জের পাশাপাশি এখন মডেলিংকে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছে এভারলেয় ।

ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption সোফিয়া গ্রেস ব্রাউনলি

৪. সোফিয়া গ্রেস ব্রাউনলি

এলেন ডিজিনিয়ার্স শো'তে সোফিয়া তার চাচাতো বোন রোজির সাথে মেগান ট্রেইনরের সুপারব্যাস গেয়ে ব্যাপক খ্যাতি অর্জন করেন।

আট বছর ধরে বেশ সফলতার সঙ্গে তিনি তার একটি ইউটিউব চ্যানেল পরিচালনা করে আসছে সোফিয়া।

তার সম্পদের পরিমাণ ১৪ লাখ পাউন্ড এবং তার সাবস্ক্রাইবার সংখ্যা প্রায় ৩০ লাখ।

ছবির কপিরাইট Getty Images
Image caption মিলা এবং এমা স্টাফার বিভিন্ন ব্র্যান্ডের সাথে কাজ করেন।

৫. মিলা ও এমা স্টাফার

পঞ্চম স্থানে আছে যমজ শিশু মিলা এবং এমা স্টফার, তাদের সম্পদের পরিমাণ ৯ লাখ ৬০ হাজার পাউন্ড।

তাদের মায়ের ইনস্টাগ্রামে তাদের একটি ভিডিও পোস্ট করলে সেটা ভাইরাল হয়ে যায়।

রাতারাতি তারকা বনে যান এই দুই বোন।

আরও পড়তে পারেন:

অনলাইনের ভুল তথ্য থেকে শিশুকে যেভাবে রক্ষা করবেন

ক্ষতির মুখে পড়বেন বাংলাদেশের ইউটিউবাররা?

যেভাবে রাতারাতি ইউটিউব তারকা হলেন এক তরুণী

নিজেদের ভিডিওতে তারা মূলত বড় হয়ে কী হতে চান সে সম্পর্কে কথা বলেন।

এই দুই বোন এখন বিভিন্ন ব্র্যান্ডের বিজ্ঞাপনেও অংশ নিয়েছেন।

সেরা দশে অন্য বিজয়ীদের মধ্যে রয়েছেন ইনস্টাগ্রাম তারকা তেয়তুম ও ওকলে ফিশার, গেমিং ইনফ্লুয়েন্সার কাইলি জ্যাকসন, ইন্সটা তারকা আভা মেরি এবং লেয় রোজ, ইউটিউবার গ্যাভিন ম্যাগনাস এবং ফোর্টনাইট তারকা বেঞ্জি ডেভিড ফিশ।