আইএস প্রধান আবু বকর আল-বাগদাদি নিহত হবার পর সিরিয়ায় সংগঠনটির ভবিষ্যত কী?

ইসলামিক স্টেট নেতা আবু বকর আল-বাগদাদি

ছবির উৎস, AFP

ছবির ক্যাপশান,

ইসলামিক স্টেট নেতা আবু বকর আল-বাগদাদি

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ঘটা করে সামরিক অভিযানে ইসলামিক স্টেট গ্রুপ আইএসের নেতা আবু বকর আল-বাগদাদির মৃত্যুর খবর দিয়েছেন।

কিন্তু এরপর সিরিয়ায় আইএসের ভবিষ্যত কী?

আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ক গবেষণা প্রতিষ্ঠান চ্যাথাম হাউজের মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ক প্রোগ্রামের পরিচালক লীনা খাতিব আলোকপাত করেছেন তার ওপর।

তিনি বলছেন, আবু বকর আল-বাগদাদির মৃত্যুতে স্বয়ংক্রিয়ভাবে আইএসের অস্তিত্ব ধ্বংস বা সম্পূর্ণ পতন নিশ্চিত হবে না।

বরং কাছাকাছি সময়ে সিরিয়ার স্থানীয় রাজনৈতিক পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করবে আইএসের এখনকার ভবিষ্যত, তাতে দলটির নেতা থাকুক আর না থাকুক।

আইএসের জন্য বাগদাদি অনেক গুরুত্বপূর্ণ একজন নেতা ছিলেন, বিশেষ করে দলটি যখন একটি তথাকথিত রাষ্ট্র গঠনের পরিকল্পনা করছিল।

ছবির উৎস, Getty Images

ছবির ক্যাপশান,

বাগদাদিকে হত্যার জন্য চালানো অভিযানের পর সেখানকার পরিস্থিতি

যেহেতু খলিফা ছাড়া খিলাফত প্রতিষ্ঠা করা যায় না, সে কারণে আইএস বাগদাদিকে জনসম্মুখে একজন শক্তিমান নেতা হিসেবে হাজির করেছিল।

যে কারণে সিরিয়া এবং ইরাকে আইএসের পতনের পরেও এই গ্রুপের সমর্থকদের বিশ্বাস ছিল একদিন বাগদাদি আবার খিলাফত প্রতিষ্ঠা করবেন।

সাংবাদিক এবং দাতা সংস্থার কর্মী, যারা সিরিয়ার ভেতরে আল-হোল ক্যাম্পে আইএস যোদ্ধাদের স্ত্রী ও বিধবাদের সাক্ষাৎকার নিয়েছেন বিভিন্ন সময়, তারা জানিয়েছেন, বাগদাদির যেকোন বক্তৃতা তার সমর্থকদের উদ্দীপ্ত করতো।

উত্তর সিরিয়ায় তুরস্ক অভিযান চালানোর পর, আইএসের সামরিক শক্তি অনেকটাই হ্রাস পেয়েছিল, কিন্তু তারা তৎপর ছিল।

উত্তর-পূর্ব সিরিয়ায় আইএসের স্লিপার সেল বা গোপনে কাজ করে এমন ছোট ছোট দল সুযোগ পেলেই হামলা চালিয়েছে, বিশেষ করে বেসামরিক নাগরিকদের ওপর।

হোমসের কাছে পালমিরার উত্তরে সোখানা মরুভূমিতে আইএস সিরিয় এবং রুশ স্থাপনার ওপর আলাদাভাবে হামলা চালিয়েছে।

কেবল আইএসের নামে নয়, বহু সাবেক আইএস যোদ্ধা উত্তর পশ্চিম সিরিয়ায় স্থানীয় একটি জিহাদি দলে যোগ দিয়েছেন।

ইদলিবে আইএস ঘনিষ্ঠ ঐ দলটির নাম হুরাস আল-দ্বীন, এটি আল-কায়েদার সাথে সরাসরি সম্পর্কিত একটি দল।

এই দলটির সীমিত আকারে সামরিক শক্তি থাকলেও স্থানীয়দের মধ্যে এর জনপ্রিয়তা কম।

সিরিয়ায় আইএসের মূল কর্মকাণ্ড উত্তর-পূর্বে দেইর আল-যোওর এলাকায়, বিশেষ করে বসাইরার দক্ষিণে দিবানের দিকে।

এ এলাকাটি নিয়ন্ত্রণ করে সিরিয় ডেমোক্রেটিক ফোর্সেস এসডিএফ, কিন্তু এলাকাটি কুর্দি অধ্যুষিত হওয়ায় সেখানে নিজেদের গ্রহণযোগ্যতা নিয়েই সংকটে রয়েছে এসডিএফ।

সেখানকার বাসিন্দাদের বড় অংশটি বিভিন্ন আরব গোত্রের, যারা কেবল এসডিএফকেই নয়, বরং ঐ এলাকায় সক্রিয় সিরিয় সামরিক বাহিনী এবং ইরান সমর্থিত মিলিশিয়া বাহিনীকেও প্রত্যাখ্যান করে আসছে।

ছবির উৎস, Getty Images

ছবির ক্যাপশান,

আল বাগদাদিকে হত্যার ঘোষণা দিচ্ছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প

সিরিয়ার সরকার এবং ইরানের বিরুদ্ধে সম্প্রতি এই গোত্রগুলো বিক্ষোভ করেছে।

উত্তর সিরিয়ায় তুরস্কের অভিযানের আগে, দেইর আল-যোওরে সেখানকার আরব গোত্রসমূহ এবং এসডিএফের মধ্যে নিয়মিত বিবাদ সংঘর্ষ হতো।

পরে সেখানে আইএসের তৎপরতা ক্রমে বাড়ে। কয়েক মাস আগে এসডিএফের এক চেকপয়েন্ট থেকে একজন আরব পথচারীকে হত্যার ঘটনা ঘটে।

এরপরের দুই সপ্তাহে দেইর আল-যোওরে স্লিপার সেলের হামলার সংখ্যা বেড়ে যায়।

তুরস্ক অভিযান চালানোর পর, ঐ এলাকায় এসডিএফ যেহেতু সরাসরি যুদ্ধে অংশ নেয়, তাদের অনুপস্থিতির এই সুযোগ পুরোপুরি কাজে লাগানোর চেষ্টা করে আইএস।

সেখানে নিজেদের কর্মকাণ্ড বাড়িয়ে দেয় তারা, যদিও নতুন করে ভূমি দখলের চেষ্টা এবার তারা করেনি।

এ সময় দলটি আইইডিএসের ব্যবহার করে, যা তেকে বোঝা যায় তাদের সামরিক সক্ষমতা ব্যাপক হ্রাস পেয়েছে।

একই সঙ্গে মার্কিন প্রশাসন জানায়, দেইর আল-যোওরে আইএস বিরোধী আন্তর্জাতিক জোট সেখানকার তেলক্ষেত্রগুলো রক্ষার দায়িত্ব নিয়েছে, সেটাও আইএসের কলেবর না বাড়াতে পারার আরেকটি বড় কারণ।

এখন কী করতে পারে দলটি?

এখন বাগদাদির মৃত্যুকে কাজে লাগিয়ে আইএস তার সমর্থকদের মধ্যে এ ঘটনার প্রতিশোধের বার্তা দেবে।

কিন্তু শেষ নিঃশ্বাস পর্যন্ত দলটির যোদ্ধারা যুদ্ধ করে যাবে, এমন দৃঢ়প্রতিজ্ঞা এখনে আর তাদের মধ্যে নাও দেখা যেতে পারে।

মৃত্যুর আগে সিরিয়ায় দলটির নেতা আবু আয়মান আল-ইরাকি মাত্র ছয়জন যোদ্ধাকে নিয়ে এসডিএফের বিরুদ্ধে লড়াই এ নেমেছিলেন।

কিন্তু মাঝপথে সব কয়জন যোদ্ধা তাকে রেখে পালিয়ে যায়। আইএসের স্বর্ণ সময়ে এমন পরিস্থিতির কথা কেউ কল্পনাও করতে পারতো না।

নতুন নেতা আসবে আইএসে?

আইএস হয়তো শীঘ্রই বাগদাদির একজন উত্তরসূরি এবং একজন শীর্ষ নেতা চূড়ান্ত করবে।

তবে দলটির কার্যক্রমের জন্য গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে, সিরিয়ার উত্তর-পূর্ব এবং উত্তর-পশ্চিম অঞ্চলের পরিস্থিতি কেমন থাকে।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেছিলেন, বাগদাদি ইদলিবে আছে, সেখানেই তাকে হত্যা করা হয়েছে, কারণ তিনি সেখানে আইএসকে সংগঠিত করার চেষ্টা করছিলেন।

এদিকে ইদলিবের জিহাদি দল হুরাস আল-দ্বীন আল-কায়েদার প্রতি আনুগত্যের কারণে হায়াত তাহরির আল-শাম নামে আরেকটি ইসলামি দল থেকে আলাদা হয়ে যায়।

কিন্তু এই দলটি কিংবা আইএস কেউই সেখানে ততটা জনপ্রিয় না হওয়ায়, এই প্রদেশে আইএস তাদের ঘাঁটি গড়ে তুলবে এমন সম্ভাবনা কম।

এছাড়া উত্তর-পূর্বে সিরিয়ার সেনাবাহিনী নিজেদের উপস্থিতি বাড়াচ্ছে, যদিও তাদের ক্ষমতা খুবই সীমিত।

তাদের সৈন্য সংখ্যা আর সামরিক যন্ত্রপাতির ঘাটতি যেমন আছে, তেমনি সিরিয়ার দক্ষিণাঞ্চল ও উত্তর-পশ্চিম অঞ্চলে ছোট কয়েকটি দলের অন্তর্দ্বন্দ্ব মেটাতেও হিমশিম খাচ্ছে তারা।

উত্তর-পূর্ব সিরিয়ার নিয়ন্ত্রণ এখনো কুর্দি যোদ্ধাদের হাতে।

একমাত্র আইএস বিরোধী আন্তর্জাতিক জোট দেইর আল-যোওর ত্যাগ করলেই, আইএস ঐ এলাকা টার্গেট করতে পারে।

এক্ষেত্রে তারা এসডিএফকে প্রত্যাখ্যানকারী আরব গোত্রসমূহের সহায়তা পাবে।

কিন্তু প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ইতিমধ্যেই জানিয়ে দিয়েছেন, এই জোট সেখানকার তেলক্ষেত্রগুলো ছেড়ে শীঘ্র নড়ছে না।

কিন্তু মনে রাখা দরকার, বাগদাদির মৃত্যুকে যদি একটি প্রতীকী বিজয় হিসেবেও দেখা হয়, তবু সেখানকার স্থানীয় দলগুলোর কোন্দল ও অন্তর্দ্বন্দ্ব আইএসের কাজ করার সুযোগ বহুগুণ বাড়িয়ে দেবে।

আরো পড়তে পারেন: