আমেরিকার কোন‌ কোন প্রেসিডেন্ট কেন অভিশংসিত হয়েছেন?

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের ক্ষমতায় থাকতে পারা না পারা নির্ভর করছে সেনেটের বিচারের ওপর।

ছবির উৎস, Getty Images

ছবির ক্যাপশান,

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের ক্ষমতায় থাকতে পারা না পারা নির্ভর করছে সেনেটের বিচারের ওপর।

যুক্তরাষ্ট্রে কংগ্রেসের নিম্ন-কক্ষ হাউজ অফ রিপ্রেজেন্টেটিভে অভিশংসিত হয়েছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

রিপাবলিকান পার্টি থেকে নির্বাচিত এই প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে অভিযোগ দুটি ।

একটি হলো - তিনি তার পদকে ব্যবহার করে তার ডেমোক্র্যাট রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেনের বিরুদ্ধে তদন্ত করতে ইউক্রেনের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে চেষ্টা করেছিলেন, এবং দ্বিতীয়টি হলো অভিশংসনের তদন্ত-কাজে সহায়তা করতে অস্বীকার করে তিনি কংগ্রেসের কাজে বাধা সৃষ্টি করেছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে তৃতীয় প্রেসিডেন্ট হিসেবে প্রতিনিধি পরিষদে অভিশংসিত হলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প।

এখন তার প্রেসিডেন্ট থাকতে পারা না পারা নির্ভর করছে আগামী জানুয়ারি মাসে কংগ্রেসের উচ্চ কক্ষ সেনেটের শুনানির ওপর।

এর আগে আরো যে দুজন মার্কিন প্রেসিডেন্ট অভিশংসিত হয়েছেন তারা হচ্ছেন অ্যান্ড্রু জনসন এবং বিল ক্লিনটন।

তাদের কাউকে‌ সেনেটে অভিশংসনের পক্ষে দুই-তৃতীয়াংশ ভোট না পড়ায় শেষ পর্যন্ত ক্ষমতা ছাড়তে হয়নি।

ছবির উৎস, Alamy

ছবির ক্যাপশান,

যৌন কেলেঙ্কারির অভিযোগে অভিশংসিত হন প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন।

বিল ক্লিনটন

আজ থেকে প্রায় ২০ বছর আগে অভিশংসিত হয়েছিলেন ডেমোক্র্যাট পার্টি থেকে নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন।

মিথ্যা কথা বলে শপথ-ভঙ্গ করা এবং বিচারে বাধা সৃষ্টির অভিযোগে তাকে অভিশংসিত করা হয়েছিল।

হোয়াইট হাউজেরই একজন ইন্টার্ন মনিকা লিউনস্কির সাথে যৌন সম্পর্কের ব্যাপারে মিথ্যা বলেছিলেন তিনি।

শুধু তাই নয়, এবিষয়ে তিনি মনিকা লিউনস্কিকেও মিথ্যা বলতে বলেছিলেন বলে অভিযোগ ছিল।

কিন্তু পরে ১৯৯৯ সালে যখন এসব অভিযোগে উচ্চ কক্ষ সেনেটে বিল ক্লিনটনের বিচার হয় তখন তাকে আর দোষী সাব্যস্ত করা যায়নি।

কারণ এসব অভিযোগের পক্ষে দুই-তৃতীয়াংশ সেনেটরের সমর্থন পাওয়া যায়নি।

ফলে বিল ক্লিনটনকে ক্ষমতা ত্যাগ করতে হয়নি।

আরো পড়তে পারেন:

ছবির উৎস, Getty Images

ছবির ক্যাপশান,

অভিশংসনের হাত থেকে অল্পের জন্য রক্ষা পান প্রেসিডেন্ট অ্যান্ড্রু জনসন।

অ্যান্ড্রু জনসন

আজ থেকে প্রায় দেড়শো বছর আগে আমেরিকার ইতিহাসে প্রথম অভিশংসিত হয়েছিলেন ডেমোক্র্যাট নেতা প্রেসিডেন্ট ‌অ্যান্ড্রু জনসন।

১৮৬৮ সালে কংগ্রেসের ইচ্ছার বিরুদ্ধে গিয়ে তিনি সেক্রেটারি অফ ওয়ার বা যুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী এডউইন স্ট্যানটনকে বরখাস্ত করেছিলেন। তার বিরুদ্ধে আরো অভিযোগ ছিল ক্ষমতার অপব্যবহার ও বিচারে বাধা দেওয়ার।

সেবার তাকেও ক্ষমতা হারাতে হয়নি। অল্পের জন্যে বেঁচে গিয়েছিলেন তিনি।

একটি মাত্র ভোটের অভাবে তার অভিশংসনের জন্যে প্রয়োজনীয় দুই-তৃতীয়াংশ সমর্থন পাওয়া যায় নি।

অনেকে বলে থাকেন যে অভিযোগ থেকে খালাস পাওয়ার পর প্রেসিডেন্ট জনসন কেঁদেছিলেন এবং বলেছিলেন যে নিজের মর্যাদা উদ্ধার করার লক্ষ্যে তিনি কাজ করবেন।

এর পরে যতোটুকু সময় তিনি ক্ষমতায় ছিলেন তার পক্ষে দেশ চালানো খুব একটা সহজ ছিল না।

১৮৬৯ সালে ডেমোক্র্যাটরা রিপাবলিকানদের কাছে পরাজিত হলে হোয়াইট হাউজ থেকে তিনি বিদায় নেন।

প্রেসিডেন্ট অ্যান্ড্রু জনসন ছিলেন এক দরিদ্র পরিবারের সন্তান। কখনো স্কুলে যান নি তিনি।

ছবির উৎস, BETTMANN/GETTY IMAGES

ছবির ক্যাপশান,

অভিশংসনের উদ্যোগ নেওয়ার আগেই ক্ষমতা ছেড়ে দেন প্রেসিডেন্ট রিচার্ড নিক্সন।

আরো একজন প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে অভিশংসনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল। তিনি প্রেসিডেন্ট রিচার্ড নিক্সন।

ওয়াটারগেট কেলেঙ্কারির অভিযোগে তার বিরুদ্ধে অভিশংসনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল ১৯৭৪ সালে।

তার বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল যে ১৯৭২ সালে নির্বাচনী প্রচারণার সময় ওয়াশিংটন ডিসিতে ডেমোক্র্যাটিক পার্টির অফিসে তার দল আড়ি পেতেছিল।

তদন্তে দেখা যায় যে দুজন অফিসের ভেতরে গোপনে যন্ত্র বসিয়েছিল, তাদেরকে প্রেসিডেন্ট নিক্সনের প্রচারণা তহবিল থেকে অর্থ দেওয়া হয়েছিল।

পরের দুবছর ধরে তিনি এই কেলেঙ্কারি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করে ব্যর্থ হন।

তাকে অভিশংসনের জন্যে ভোটের ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। কিন্তু সেই ভোট আর হয়নি, কারণ তার আগেই তিনি পদত্যাগ করেন।

তার অভিশংসিত হওয়া মোটামুটি নিশ্চিত ছিল।

ভিডিওর ক্যাপশান,

ট্রাম্পকে কী আসলেই ক্ষমতাচ্যুত করা সম্ভব?

আরো পড়তে পারেন: