ভারতজুড়ে আদমশুমারি ও নতুন জনসংখ্যা জরিপ হবে আগামী বছর

নাগরিকত্ব আইন নিয়ে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ চলছে ভারতজুড়ে

ছবির উৎস, EPA

ছবির ক্যাপশান,

নাগরিকত্ব আইন নিয়ে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ চলছে ভারতজুড়ে

ভারতের কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা আদমশুমারি ও জনসংখ্যা জরিপ (ন্যাশনাল পপুলেশন রেজিস্টার) হবে আগামী বছর। তবে, সমালোচকেরা বলছেন, তালিকাটি হবে মুসলমান বিরোধী তালিকা।

জরিপ চালানোর সময় কোন নাগরিক সম্পর্কে যদি কর্তৃপক্ষের সন্দেহ হয়, তাকে প্রমাণ করতে হবে যে তিনি ভারতের নাগরিক।

ভারতে নাগরিকত্ব আইন নিয়ে অব্যাহত বিক্ষোভের মধ্যেই, নতুন করে একটি আদমশুমারি ও জনসংখ্যা জরিপের জন্য তহবিল অনুমোদন করেছে দেশটির মন্ত্রিসভা।

যদিও কর্তৃপক্ষ বলছে, এই জরিপ ভারতের সকল ধর্ম-বর্ণের মানুষের ওপর চালানো হবে।

ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের পরিকল্পনা হচ্ছে ২০২০ সালের এপ্রিল থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এই আদমশুমারি ও জনসংখ্যা জরিপ চালানো ।

এজন্য সরকার প্রায় চার হাজার কোটি রুপি বরাদ্দ করেছে। এছাড়া আরো প্রায় নয় হাজার কোটি রুপি ব্যয় হবে আদমশুমারি চালানোর জন্য।

দেশটির একজন মন্ত্রী প্রকাশ জাভেদাকার বলেছেন নতুন ডেটাবেইস সরকারকে নতুন নীতি প্রণয়নে সহায়তা করবে।

বিবিসি বাংলায় আরও পড়ুন:

ছবির উৎস, Getty Images

ছবির ক্যাপশান,

ভারতে নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসি-র বিরুদ্ধে প্রতিবাদ

কর্তৃপক্ষ বলছে, এটি হবে একটি পূর্ণাঙ্গ জরিপ, অর্থাৎ ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকল রাজ্যের সব সাধারণ বাসিন্দার ওপর একযোগে এই জরিপ চালানো হবে।

সরকার বলছে, কোন নাগরিক যদি কোন এলাকায় অন্তত ছয় মাস বাস করে অথবা কোন নির্দিষ্ট এলাকায় ছয় মাস বা তার বেশি সময় বসবাসের পরিকল্পনা করে, তাহলে তাকে সাধারণ বাসিন্দা হিসেবে গণ্য করা হবে।

এর মানে হচ্ছে এখন ভারতে বসবাসরত বিদেশীরাও এই নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের অন্তর্ভুক্ত হবেন।

কিন্তু সমালোচকেরা বলছেন, জরিপ চালানোর সময় কোন নাগরিক সম্পর্কে যদি কর্তৃপক্ষের সন্দেহ হয়, তাকে প্রমাণ করতে হবে যে তিনি ভারতের নাগরিক।

এর ফলে যে কোন নাগরিকের অ-ভারতীয় হিসেবে হেনস্থা হবার আশংকা থেকে যায় বলে মনে করেন সমালোচকেরা।

এদিকে, দেশটির বিতর্কিত নাগরিকত্ব আইন এবং প্রস্তাবিত এনআরসির বিরুদ্ধে গত কয়েক দিনের বিক্ষোভে এ পর্যন্ত ২০ জন মানুষ নিহত হয়েছেন।