'মানসিক চাপ' কমাতে মনিকা লিউনস্কির সঙ্গে সম্পর্ক: ক্লিনটনের দাবি

'হিলারি' নামের একটি ধারাবাহিক তথ্যচিত্রের অংশ হিসাবে তিনি ওই মন্তব্য করেন।

ছবির উৎস, EPA

ছবির ক্যাপশান,

'হিলারি' নামের একটি ধারাবাহিক তথ্যচিত্রের অংশ হিসাবে তিনি ওই মন্তব্য করেন।

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন দাবি করেছেন, মানসিক চাপ এবং উদ্বেগ কমানোর উপায় হিসাবেই মনিকা লিউনস্কির সঙ্গে তার সম্পর্ক হয়েছিল।

'হিলারি' নামের একটি ধারাবাহিক তথ্যচিত্রের অংশ হিসাবে তিনি ওই মন্তব্য করেন। ২০১৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হিলারি ক্লিনটনের পাবলিক জীবন নিয়ে ওই তথ্যচিত্রটি তৈরি করা হয়েছে।

মনিকা লিউনস্কির সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে তদন্তকারীদের কাছে মিথ্যা বলার অভিযোগে ১৯৯৮ সালে বিল ক্লিনটনকে ইমপিচ করা হয়। কিন্তু সিনেটের শুনানিতে তিনি রেহাই পান।

তাদের ওই সম্পর্কের সময় মিজ লিউনস্কি ছিলেন হোয়াইট হাউজে ২২ বছর বয়সী একজন শিক্ষানবিশ।

মার্কিন টেলিভিশন নেটওয়ার্ক এবং তথ্যচিত্র নির্মাতা প্রতিষ্ঠান 'হুলু'কে মি. ক্লিনটন বলেছেন, ''আমি যা করেছি, তা খারাপ ছিল, কিন্তু এটা এরকম ছিল না যে, কাজটা আমি ভেবেচিন্তে করেছি।''

আরো পড়ুন:

ছবির উৎস, Reuters

ছবির ক্যাপশান,

ওই সম্পর্কের জন্য প্রতিদিন অনুশোচনায় ভোগেন মনিকা লিউনস্কি

''আপনি নিজেকে একটা টলটলায়মান অবস্থায় দেখতে পাবেন- আপনি হয়তো ১৫ রাউন্ডের লড়াইয়ের জন্য নেমেছেন, তারপর দেখতে পেলেন সেটা ৩০ রাউন্ডের লড়াই হয়ে গেছে। এরপর আপনার সামনে এমন কিছু আসলো যে, সবকিছু থেকে আপনার চিন্তাভাবনা সরিয়ে নিতে পারলেন। সবার জীবনেই চাপ রয়েছে, অসন্তোষ এবং ভীতি ইত্যাদি রয়েছে- বছরের পর বছর ধরে চলা মানসিক চাপ, উদ্বেগ সামলাতে আমি সেসব কাজ করেছি।''

১৯৯০ এর দশকের শেষদিকে প্রেসিডেন্ট থাকাকালীন মনিকা লিউনস্কির সঙ্গে তার সম্পর্কের বিষয়টি সংবাদমাধ্যমে প্রধান খবর হয়ে ওঠে। প্রথমে ওই সম্পর্কের কথা অস্বীকার করেন মি. ক্লিনটন। তবে পরবর্তীতে স্বীকার করেন যে, তার সঙ্গে ' অসঙ্গত ঘনিষ্ঠ শারীরিক সংস্পর্শ' হয়েছিল।

১৯৯৮ সালে মার্কিন গণমাধ্যমে এ সংক্রান্ত খবর প্রকাশিত হওয়ার পর মি. ক্লিনটনের প্রাথমিক প্রতিক্রিয়া ছিল-''ওই নারীর সঙ্গে আমার কোন যৌন সম্পর্ক ছিল না''।

মিজ লিউনস্কি উল্লেখ করেনে যে, সাবেক প্রেসিডেন্টের সঙ্গে তার সম্পর্ক পারস্পরিক সম্মতিতে হয়েছে কিন্তু তিনি একে 'ক্ষমতার চরম অপব্যবহার' বলে বর্ণনা করেছেন।

''তার 'শক্তিশালী অবস্থান' রক্ষার জন্য যখন আমাকে একটি বলির ছাগল বানানো হয়েছিল তখন কোনও 'আপত্তি' আসেনি.....,'' ২০১৪ সালে ভ্যানিটি ফেয়ার পত্রিকাকে বলেছিলেন মিজ লিউনস্কি।

তিনি বলেছেন, সেই সময় পরে কী হতে পারে, তা নিয়ে তার সামান্যই ধারণা ছিল। সেই সম্পর্ক করার জন্য তিনি প্রতিদিনই অনুশোচনায় ভোগেন।

ওই তথ্যচিত্রে মি. ক্লিনটন বলেছেন, তাদের সম্পর্কের কারণে মনিকা লিউনস্কির জীবন বিশেষভাবে চিহ্নিত হয়েছে, ভাবতেও তার ভয়ানক খারাপ লাগে।

''বছরের পর বছর ধরে আমি দেখতে চেয়েছি সে যেন একটি স্বাভাবিক জীবন ফিরে পায়। কিন্তু স্বাভাবিক জীবনের মানে একেকজনের কাছে একেকরকম,'' তিনি বলছেন।

বিবিসি বাংলার অন্যান্য খবর:

ছবির উৎস, Getty Images

ছবির ক্যাপশান,

মনিকা লিউনস্কির সাথে প্রেসিডেন্ট ক্লিনটন।

ওই ঘটনার সম্পর্কে জানতে চাইলে হিলারি ক্লিনটন বর্ণনা করছিলেন যে, তিনি কতটা ভেঙ্গে পড়েছিলেন।

''ব্যক্তিগতভাবে আমি খুবই আহত হয়েছিলাম এবং আমি বিশ্বাস করতে পারছিলাম না যে, তুমি মিথ্যা বলেছ। এটা ছিল ভয়ানক এবং আমি বলেছিলাম, এটা যদি জনসম্মুখে প্রকাশ পায়, তাহলে চেলসির কাছে তোমাকেই বলতে হবে।''

তিনি ব্যাখ্যা করছিলেন যে, খবর প্রকাশ হয়ে যাওয়ার পর কেন তিনি ' তার (ক্লিনটনের) সঙ্গে কোন কিছু না করার সিদ্ধান্ত নেন।'

''আমি আমার স্বামীর সঙ্গে থেকে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেই। অনেকে হয়তো মনে করেন যে, আমি ঠিক কাজটি করেছি এবং অনেকে মনে করেন আমার সিদ্ধান্ত ছিল ভুল"।

মি. ক্লিনটন ওই তথ্যচিত্রে বলেছেন, তাদের কন্যার কাছে এই সম্পর্কের বিষয়ে বলার ব্যাপারটি ছিল সবচেয়ে ভয়াবহ।