পি ভি সিন্ধু: বিবিসির বর্ষসেরা ভারতীয় নারী ক্রীড়াবিদ হয়েছেন সপ্তাহে এক লাখ তেষট্টি হাজার ডলার আয় করা ব্যাডমিন্টন তারকা

২০১৬ সালে অলিম্পিকে রৌপ্য জেতেন পিভি সিন্ধু

ছবির উৎস, Getty Images

ছবির ক্যাপশান,

২০১৬ সালে অলিম্পিকে রৌপ্য জেতেন পিভি সিন্ধু

এবারই প্রথম বিবিসি ভারতের সেরা নারী ক্রীড়াবিদের পুরষ্কার দিয়েছে, যা জিতে নিয়েছেন ব্যাডমিন্টন তারকা পি ভি সিন্ধু।

এই পুরষ্কার দেয়া হয়েছে পাবলিক ভোটের নিরীখে।

২০১৯ সালে ব্যাডমিন্টনের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে স্বর্ণ জেতেন পি ভি সিন্ধু। তিনিই প্রথম ভারতীয় হিসেবে এই কীর্তি গড়েন।

চলতি বছরের অলিম্পিকেও সম্ভাব্য মেডেল জয়ীদের তালিকায় ওপরের দিকে আছেন তিনি।

দৌড়বিদ দ্যুতি চান্দ, বক্সার ম্যারি কম, কুস্তিগীর ভিনেশ ফোগাত এবং প্যারা-ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড় মানসী জোশীকে হারিয়ে বিবিসির বর্ষসেরা নারী ক্রীড়াবিদের পুরষ্কার জেতেন সিন্ধু।

চব্বিশ বছর বয়সী এই অ্যাথলিট নিজের ভক্ত ও সমর্থকদের ধন্যবাদ দেন এবং যারা ভোট দিয়ে তাকে জিতিয়েছেন, তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

সিন্ধুর মোট পাঁচটি বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপ পদক আছে - তিনিই প্রথম ভারতীয় একক ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড়, যিনি অলিম্পিকে রৌপ্যপদক জিতেছেন।

বিবিসি বাংলায় কিছু খবর:

"এই ধরণের পুরষ্কার আমাদের ও আমাদের দেশের মেয়েদের অনুপ্রেরণা জোগায়। আমি সকল নারী ক্রীড়াবিদদের বলতে চাই, পরিশ্রমই সবকিছুর মূলে আছে। আমি নিশ্চিত আগামীতে ভারত থেকে আরো অনেক মেয়ে অনেক কিছু জিতবে।"

২০১২ সালে মাত্র ১৭ বছর বয়সে বিশ্ব র‍্যাঙ্কিংয়ের ১২তে স্থান পান সিন্ধু। গত চার বছরে তিনি আছেন সেরা দশে।

পি ভি সিন্ধু শুধু ভারতেরই না, বিশ্বের অন্যতম সর্বোচ্চ আয় করা নারী ক্রীড়াবিদও।

২০১৬ সালে তিনি পাঁচ লাখ ডলার আয় করেন শুধু কোর্টে। এছাড়া আশি লক্ষ ডলার আয় করেন নানা পণ্যের মুখপাত্র হয়ে।

ছবির উৎস, Narendra Modi

ছবির ক্যাপশান,

পিভি সিন্ধুকে নিয়ে নরেন্দ্র মোদীর টুইট

ছবির উৎস, Sachin Tendulkar

ছবির ক্যাপশান,

পিভি সিন্ধুকে নিয়ে শচীন টেন্ডুলকারের টুইট

প্রতি সপ্তাহে ১ লাখ ৬৩ হাজার ডলার আয় করেন পি ভি সিন্ধু, যা ২০১৮ সালের ইউএস ওপেন জয়ী রোমানিয়ান টেনিস তারকা সিমোন হালেপের চেয়েও বেশি।

ফোর্বসের একটি তালিকায় সর্বোচ্চ উপার্জনকারী নারী ক্রীড়াবিদদের মধ্যে সিন্ধু ছিলেন সাত নম্বরে। তালিকার সেরা দশে একমাত্র ব্যাডমিন্টন খেলোয়াড় তিনিই।

বিবিসির এই পুরষ্কার প্রদানের অনুষ্ঠান আয়োজিত হয় দিল্লীতে। ওই অনুষ্ঠানে অনুপ্রেরণাদায়ী ক্রীড়াবিদ, ক্রীড়া লেখক ও আরো অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

ভারতের সাবেক নারী দৌড়বিদ পি টি উষাকে দেয়া হয় আজীবন সম্মাননা পুরষ্কার।

ভারতের ক্রীড়ায় তাঁর অবদান ও বিভিন্ন প্রজন্মের খেলোয়াড়দের অনুপ্রেরণার জন্যই এই পুরষ্কার পান পি টি উষা।

১০০টিরও বেশি আন্তর্জাতিক পদক জিতেছেন পি টি উষা। ভারতের অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন তাকে শতাব্দীর সেরা নারী ক্রীড়াবিদ উপাধি দিয়েছিল।

১৯৮৪ সালে লস অ্যাঞ্জেলেস অলিম্পিকসে ৪০০ মিটার দৌড়ে চতুর্থ হন পি টি উষা।