করোনাভাইরাস: মুজিব জন্মশতবার্ষিকীর অনুষ্ঠান কাটছাঁট, নরেন্দ্র মোদীসহ বিদেশি অতিথিরা আসছেন না

  • কাদির কল্লোল
  • বিবিসি বাংলা, ঢাকা
মুজিব জম্মশতবার্ষিকীর উদ্ভোধনী হওয়ার কথা রয়েছে ১৭ই মার্চ।

ছবির উৎস, JEWEL SAMAD

ছবির ক্যাপশান,

মুজিব জম্মশতবার্ষিকীর উদ্ভোধনী হওয়ার কথা রয়েছে ১৭ই মার্চ।

করোনাভাইরাসের ঝুঁকির মুখে বাংলাদেশের সরকার সে দেশের প্রতিষ্ঠাতা রাষ্ট্রপতি শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনের অনুষ্ঠান পুনর্বিন্যাস করেছে।

মুজিব জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন কমিটির প্রধান সমন্বয়ক কামাল আব্দুল নাসের চৌধুরী বিবিসিকে জানিয়েছেন, এই উদযাপনের অন্যান্য অনুষ্ঠানগুলো পরিকল্পনা মতোই চলবে। তবে জনসমাগম হবে যেসব অনুষ্ঠানে সেই অনুষ্ঠানগুলো আপাতত এড়িয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, আগামী ১৭ই মার্চ ঢাকায় জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে যে জনসমাগম কর্মসূচি নেয়া হয়েছিল, তা আপাতত স্থগিত করা হয়েছে।

পরে এব্যাপারে নতুন তারিখ ঘোষণা করা হবে বলে মি. চৌধুরী জানান।

রোববার রাতে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে উদযাপন কমিটির এক বৈঠকের পর এসব সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

তেজগাঁওয়ের পুরোনো বিমান বন্দর এলাকায় জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে এ জন্মশতবার্ষিকীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের নেতাদের উপস্থিত থাকার কথা ছিল।

কামাল আব্দুল নাসের চৌধুরী বিবিসি বাংলাকে বলেন, যেসব বিদেশি অতিথিকে এই রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল - করোনাভাইরাসের ঝুঁকির কথা বিবেচনায় এনে তাদের প্রতি নতুন করে আমন্ত্রণ পাঠানো হবে।

ছবির উৎস, SOPA Images

ছবির ক্যাপশান,

ঢাকায় একটি কোয়ারেন্টিন সেন্টারে কঠোর নিরাপত্তা।

বিশ্বের প্রায় ৮০টি দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণ হয়েছে। এতে মৃত্যু হয়েছে তিন হাজারের বেশি মানুষের।

সম্পর্কিত খবর:

এই ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে নানা পদক্ষেপ নিচ্ছে বিভিন্ন দেশের সরকার।

ইতালির কর্তৃপক্ষ সে দেশের মোট জনসংখ্যার প্রায় এক চতুর্থাংশ অর্থাৎ প্রায় এক কোটি ৬০ লক্ষ্য লোকের ওপর ব্যাপক বিধিনিষেধ আরোপ করেছে।

সে দেশের লোম্বার্ডি অঞ্চল এবং আরও ১৪টি প্রদেশে মানুষের চলাফেরা এবং কাজকর্মের ওপর এই বিধিনিষেধ জারি করা হয়েছে।

একান্ত জরুরি প্রয়োজন ছাড়া এসব অঞ্চল থেকে কাউকে বাইরে যেতে নিষেধ করা হয়েছে।