করোনা ভাইরাস ভ্যাকসিন: অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা কোভিশিল্ড পর্যালোচনায় বৈঠকে বসছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা

টিকা

ছবির উৎস, Getty Images

ছবির ক্যাপশান,

ইউরোপের ১১টি দেশে অ্যাস্ট্রাজেনেকার তৈরি করোনাভাইরাস টিকা দেওয়া স্থগিত করা হয়েছে

জার্মানি, ইটালি, স্পেন ও ফ্রান্সসহ ইউরোপের এগারোটি দেশ অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা উদ্ভাবিত টিকা প্রদান স্থগিত করার পর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ভ্যাকসিন সুরক্ষা বিশেষজ্ঞরা আজ মঙ্গলবার টিকাটির পর্যালোচনা করতে বৈঠক করতে যাচ্ছেন।

ইউরোপের কয়েকটি দেশে এই টিকা দেয়ার পর ব্লাড ক্লট বা শরীরে রক্ত জমাট বেধে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সাধারণ সময়ে এ ধরণের যত ঘটনা ঘটে এই সংখ্যা তার চেয়ে অস্বাভাবিক নয়।

ইউরোপের ওষুধ বিষয়ক কেন্দ্রীয় সংস্থা ইউরোপিয়ান মেডিসিন এজেন্সিও আজ বৈঠক করবে।

বৈঠকের পর ধারণা করা হচ্ছে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার বিষয়ে বৃহস্পতিবার একটি সিদ্ধান্ত জানাবে সংস্থাগুলো।

ইউরোপ এবং যুক্তরাজ্যের ১৭ মিলিয়ন মানুষকে এই ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ দেয়া হয়েছে, এর মধ্যে ৪০টির কম ক্ষেত্রে রক্ত জমাট বেধে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা।

আরো পড়তে পারেন:

ছবির উৎস, Francesco Pecoraro/Getty

ছবির ক্যাপশান,

অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার উদ্ভাবিত ভ্যাকসিন

অপ্রমাণিত এই দাবির সঙ্গে জার্মানি, ফ্রান্স, ইতালি এবং স্পেনসহ ইউরোপের ১১টি দেশে এই টিকাটি প্রদান স্থগিত করার যোগসূত্র থাকতে পারে।

অস্ট্রিয়াসহ কয়েকটি দেশে সতর্কতা হিসেবে নির্দিষ্ট কয়েকটি ব্যাচের টিকা প্রদান বন্ধ রেখেছে।

কিন্তু বেলজিয়াম, পোল্যান্ড, চেক রিপাবলিক এবং ইউক্রেন জানিয়েছে তারা অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা প্রদান অব্যাহত রাখবে।

এদিকে, থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী প্রায়ুথ চ্যান-ওচাকে টিকা প্রদানের মাধ্যমে দেশটিতে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকাদান কর্মসূচী শুরু হয়েছিল।

তিনি এবং তার মন্ত্রীসভার সদস্যদের শুক্রবারে দ্বিতীয় ডোজ দেবার কথা, কিন্তু ইউরোপে কয়েকটি দেশে টিকাদান স্থগিত করার পর থাই কর্তৃপক্ষ তাদের কর্মসূচী থামিয়ে দিয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কি বলছে?

রক্ত জমাট বেধে যাওয়ার ঘটনাগুলো খতিয়ে দেখছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

সোমবার সংস্থাটির একজন মুখপাত্র বলেছিলেন, রক্ত জমাট বেধে যাওয়ার ঘটনাগুলো ভ্যাকসিন দেয়ার কারণে হয়েছে এখন পর্যন্ত এমন কোন প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

ছবির উৎস, Getty Images

কিন্তু কেন এমনটা ঘটছে সে সম্পর্কে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কোন নিশ্চিত তথ্য ও প্রমাণ পাওয়ার সাথে সাথে জনগণকে জানিয়ে দেবে বল জানান ওই কর্মকর্তা।

ইউরোপের ওষুধ বিষয়ক কেন্দ্রীয় সংস্থা ইএমএ'ও এই মূহুর্তে রক্ত জমাট বেধে যাওয়ার ঘটনা পর্যালোচনা করছে। সংস্থাটি বলছে, টিকা প্রদান চালিয়ে যাওয়া যেতে পারে।

ইএমএ আরো বলছে, টিকার উপকারিতার তুলনায় পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ার ঘটনা এখনো অনেক কম।

যুক্তরাজ্যের ওষুধ বিষয়ক সংস্থা বলছে, ভ্যাকসিন দেয়ার কারণে রক্ত জমাট বেধেছে, সে বিষয়ে প্রমাণ মেলেনি, এবং দেশটির নাগরিকদের যথাসময়ে টিকা দেয়ার আহ্বান জানিয়েছে সংস্থাটি।

অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা কী বলছে?

অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা বলছে, টিকা দেয়ার ফলে রক্ত জমাট বেধে যাওয়ার ঝুঁকি বাড়ে এমন কোন প্রমাণ নেই।

সংস্থাটি বলছে, পুরো ইউরোপ এবং যুক্তরাজ্য মিলে যারা টিকা দিয়েছেন তাদের মধ্যে ডিপ-ভেইন থ্রম্বোসিস ডিভিটি—মানে শিরায় রক্ত জমাট বেধে যাওয়ার মোট ১৫টি ঘটনা ঘটেছে। এছাড়া পালমোনারি এম্বোলিজম---মানে যেখানে জমাট বাধা রক্তের কণিকা ফুসফুসে চলে যাবার ২২টি ঘটনা ঘটেছে।

এই মূহুর্তে ফাইজার বায়োএনটেকের টিকা পৃথিবীর ৭০টি দেশে দেয়া হচ্ছে, অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা দেয়া হচ্ছে ৬৫টি দেশে।

মর্ডানার টিকা দেয়া হচ্ছে ৩২ টি দেশে এবং সিনোফার্মের টিকা দেয়া হচ্ছে ১৯টি দেশে।

এছাড়া রাশিয়ার স্পুটনিক ভি ১৭টি দেশে, চীনের সিনোভ্যাক ১১টি দেশে দেয়া হচ্ছে।

বাংলাদেশে কী বলছে

বাংলাদেশের স্বাস্ব্য সচিব মোঃ আবদুল মান্নান বিবিসি বাংলাকে বলছেন, ''বাংলাদেশ আমরা টিকা স্থগিতের মতো কোন সিদ্ধান্ত পৌঁছেনি। যে পাঁচ-ছয়টি বা সাতটি দেশে তারা বন্ধ করেছে, তারা সন্দেহের বশবর্তী হয়ে সেটা করেছে। এখন পর্যন্ত বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা অন্য দেশগুলো থেকে লিখিতভাবে কোন বারণ করেনি।''

''অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকায় যে উপাদানগুলো রয়েছে, রক্ত জমাট বাঁধার সঙ্গে তার কোন সম্পর্ক নেই বলে বিশেষজ্ঞরা বলেছেন। যেহেতু সম্পর্ক নেই, আমরা তাৎক্ষণিকভাবে বাংলাদেশে এই কার্যক্রম বন্ধ করতে পারি না। কারণ বাংলাদেশের মতো দেশগুলো শতভাগ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রটোকল মেনে চলেছে'', স্বাস্থ্য সচিব বলেন।

''অক্সফোর্ডের যে টিকা আমরা নিয়ে এসেছি, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা যদি আনুষ্ঠানিকভাবে বলে যে, এটা দেয়া যাবে না, এটার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া রয়েছে, আনুষ্ঠানিকভাবে যদি তারা আমাদের চিঠি দেয়, তাহলে তাহলে আমরা সিদ্ধান্ত নেবো। আমরা অপেক্ষায় আছি।'' বলছেন মি. মান্নান।