কোভিড: কোভ্যাক্স থেকে ১০ লাখ অ্যাস্ট্রাজেনেকা টিকা পাচ্ছে বাংলাদেশ, বলছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়

কোভ্যাক্স থেকে ১০ লাখ অ্যাস্ট্রাজেনেকা টিকা পাচ্ছে বাংলাদেশ

ছবির উৎস, Getty Images

ছবির ক্যাপশান,

কোভ্যাক্স থেকে ১০ লাখ অ্যাস্ট্রাজেনেকা টিকা পাচ্ছে বাংলাদেশ

ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে গণমাধ্যমে আজ শুক্রবার পাঠানো এক বার্তায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেনকে উদ্ধৃত করে জানানো হয়েছে, কোভ্যাক্স কর্মসূচি থেকে ১০ লাখ ৮০০ ডোজ অ্যাস্ট্রাজেনেকা টিকা পেতে যাচ্ছে বাংলাদেশ।

তবে কবে নাগাদ এ টিকা বাংলাদেশের হাতে আসবে কিংবা কীভাবে বাংলাদেশ এটি সংগ্রহ করতে পারবে - তা নিশ্চিত করা হয়নি।

যদি এ টিকা আসে তাহলে বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের টিকার প্রথম ডোজ নিয়ে যাদের দ্বিতীয় ডোজ দেয়া যাচ্ছে না - তাদের সমস্যার সমাধান হবে আশা করা হচ্ছে।

কর্মকর্তারা অবশ্য জানিয়েছেন, প্রথম ডোজ পেয়ে দ্বিতীয় ডোজ পাননি এমন ব্যক্তির সংখ্যা ১৪ লাখ।

প্রসঙ্গত, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নেতৃত্বে গ্লোবাল অ্যালায়েন্স ফর ভ্যাকসিনস অ্যান্ড ইমিউনাইজেশনস বা গ্যাভি এবং কোয়ালিশন ফর এপিডেমিক প্রিপেয়ার্ডনেস ইনোভেশনসের গড়া প্ল্যাটফর্ম হল কোভ্যাক্স।

এটি গঠন করা হয়েছিলো যাতে করে বিশ্বের সব মানুষের সংক্রামক রোগের প্রতিষেধক পাওয়া নিশ্চিত করা যায়।

বিবিসি বাংলায় আরও পড়ুন:

ছবির উৎস, Getty Images

ছবির ক্যাপশান,

টিকার ঘাটতি মেটাতে এখন বাংলাদেশ সরকার নানামুখী তৎপরতা চালানোর কথা বলছে।

চলতি বছরের শুরুতে বিভিন্ন দেশে টিকা বণ্টনের যে তালিকা কোভ্যাক্স প্রকাশ করেছিল, তাতে জুনের শেষ নাগাদ বাংলাদেশ ১ কোটি ২৭ লাখ ৯২ হাজার ডোজ কোভিড-১৯ টিকা পাওয়ার কথা।

কিন্তু কোভ্যাক্স এই টিকার বড় অংশ আবার ভারতের সিরাম ইন্সটিটিউট থেকে সংগ্রহ করার কথা থাকলেও ভারত সরকার টিকা রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা দেয়ায় কোভ্যাক্সও সময়মত টিকা সংগ্রহ করতে পারেনি বলে সামগ্রিক টিকা পরিকল্পনায় ব্যাপক পরিবর্তন আনতে হয়েছে।

প্রাথমিক পরিকল্পনায় কোভ্যাক্স চলতি বছরের প্রথমার্ধে অন্তত ৩৩ কোটি ডোজ টিকা বিতরণ করার কথা বলেছিল, যার বড় অংশই অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা।

তবে টিকা নিয়ে ভারত সরকারের সিদ্ধান্তের কারণে কোভ্যাক্সের মতোই সংকটে পড়েছে বাংলাদেশ, কারণ অগ্রিম টাকা নিয়েও সিরাম ইন্সটিটিউট সময়মত বাংলাদেশকে টিকা দেয়নি।

জুন মাসের মধ্যে তাদের তিন কোটি টিকা দেয়ার কথা থাকলেও এ পর্যন্ত তারা বাংলাদেশকে মাত্র ৭০ লাখ ডোজ দিতে সক্ষম হয়।

ছবির উৎস, Getty Images

ছবির ক্যাপশান,

বাংলাদেশ অগ্রীম টাকা দিয়েও সিরাম ইন্সটিটিউট থেকে সময়মত টিকার চালান পায়নি

ফলে সময়মত টিকা না আসায় সংকটে পড়ে বাংলাদেশের টিকাদান কার্যক্রম যা গত ফেব্রুয়ারিতে শুরু হয়েছিলো।

এমন পরিস্থিতিতে বিশ্বের নানা দেশের সাথে যোগাযোগ করলেও টিকা সংকটের সমাধান হয়নি।

যদিও বৃহস্পতিবার পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন ঢাকায় এক অনুষ্ঠানে জানিয়েছেন খুব শিগগিরই টিকা দেশে উৎপাদনের বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসবে।

"তবে বাংলাদেশে কারা উৎপাদন করবেন - সেটি সক্ষমতা পর্যালোচনা করে ঠিক করবে টিকা উৎপাদনকারী মূল বিদেশী কোম্পানিগুলো।"

তিনি বলেন, চীন থেকে ইতোমধ্যে পাঁচ লাখ ডোজ টিকা এসেছে এবং আগামী ১৩ই জুন আরও ছয় লাখ ডোজ টিকা আনার কথা রয়েছে।

সব মিলিয়ে টিকা নিয়ে এমন পরিস্থিতির মধ্যে আজ কোভ্যাক্স থেকে দশ লাখ ডোজ অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা পাওয়ার কথা ঘোষণা করলো পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।