মেক্সিকো: গডফাদারদের মাদকের অর্থে যেখানে মেয়েরা প্লাস্টিক সার্জারি করে শরীর বদলায়

প্লাস্টিক সার্জারি করানোর ঝোঁক বেড়েছে সিনালোয়ার মেয়েদের একাংশের মধ্যে

ছবির উৎস, Getty Images

ছবির ক্যাপশান,

প্লাস্টিক সার্জারি করানোর ঝোঁক বেড়েছে সিনালোয়ার মেয়েদের একাংশের মধ্যে

মেক্সিকোর পশ্চিমাঞ্চলীয় সিনালোয়া প্রদেশটি হচ্ছে সেখানকার সবচেয়ে ভয়ংকর এবং ক্ষমতাধর মাদক চোরাচালানি চক্রের ঘাঁটি। এই মাদক ব্যবসা থেকে আসা অর্থের এক বিচিত্র প্রভাব পড়েছে সেখানকার তরুণী মেয়েদের জীবনেও - যা তাদের মধ্যে সৃষ্টি করেছে নিজেদের দেহকে আরো আকর্ষণীয় করে তোলার জন্য প্লাস্টিক সার্জারি করানোর মোহ। এ নিয়ে বিবিসির লিন্ডা প্রেসলি-র প্রতিবেদন।

কুলিয়াকান শহরে ডা. রাফায়েলা মার্টিনেজের ক্লিনিক।

তার ডেস্কের ওপর স্তুপ হয়ে আছে অসংখ্য মেয়ে 'মক্কেলের' কাছ থেকে আসা আবেদনপত্র। এই মেয়েদের সবাই প্লাস্টিক সার্জারি করানোর জন্য আবেদন করেছেন, অনেকে অপারেশনের জন্য অপেক্ষায় আছেন।

কী অপারেশন করাতে চান এই মেয়েরা ?

"এরা চান ক্ষীণ, সরু কোমর..... চওড়া নিতম্ব যাতে পেছন দিকটা অনেক বড় দেখায়.... আর যদি স্তনের কথা বলেন, তাহলে সেগুলো হতে হবে বিশাল" - বলছিলেন মার্টিনেজ।

মেয়েদের স্বাভাবিক শারীরিক গঠনকে আরো বেশি উগ্র করে তোলার এই যে চিন্তা - একে মেক্সিকোতে বলে লা বুশোনা।

বিশেষ করে যে মেয়েরা দামী চটকদার ডিজাইনার পণ্য পছন্দ করেন - এবং যাদের মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত একজন প্রেমিক আছে - তাদের মধ্যে প্লাস্টিক সার্জারি করে এ ধরনের শরীর বানানোর ভীষণ চাহিদা আছে।

কেউ কেউ এটার নাম দিয়েছেন 'নারকো-এস্থেটিক' - বলা যায় মাদকব্যবসার নন্দনতত্ত্ব।

'আঠারোর কম-বয়সী মেয়েরাও আসে'

"আমার কাছে যে মেয়েরা আসে তাদের গড় বয়স ৩০ থেকে ৪০ এর মধ্যে - কিন্তু প্রায়ই এর চেয়ে অনেক কমবয়সী মেয়েরাও আসে -যাদের বয়স এখনো ১৮ হয়নি এমন মেয়েরাও" - বলছিলেন এই ডাক্তার।

ডা. মার্টিনেজের কথায়, "তারা রীতিমত একে অপরের সাথে প্রতিযোগিতা করে , কার শরীর সবচেয়ে সুন্দর, কার কোমর সবচেয়ে সরু।"

বিবিসি বাংলায় সম্পর্কিত খবর:

ছবির উৎস, Getty Images

ছবির ক্যাপশান,

'লা বুশোনা' হতে ইচ্ছুক নারীরা নিজেদের দেহকে কিম কার্দাশিয়ানের মত বানাতে চান

এই মেয়েরা কখনো কখনো আসে তাদের মা বা বন্ধুদের নিয়ে। কেউ কেউ আসে একজন পুরুষকে নিয়ে - বা একা।

ডাক্তার মার্টিনেজ বলছেন, "প্রায়ই তাদের সাথে যে ছেলেবন্ধু আসে - সে-ই এই সার্জারির খরচটা দেয়।

এমনও হয় যে এই 'ভদ্রলোকরাই' ডাক্তারকে ফোন করে বলেন, 'এই যে ডাক্তার, আপনাকে আমি একটা মেয়ে পাঠাচ্ছি অপারেশনের জন্য।"

"একদিন একজন লোক আমাকে ফোন করে বললো, শুনুন, আমার একটা মেয়ে আপনার কাছে আসবে। আপনি তো জানেন আমি কি পছন্দ করি। মেয়েটা কি বললো তা আপনার পাত্তা দেবার কোন দরকার নেই। সেজন্যই আপনাকে আমি এই অর্থ দিচ্ছি।"

"আমি তাকে বললাম, আপনি বরং মেয়েটার সাথে কথা বলে ব্যাপারটা ঠিক করে নিন। কারণ সে যখন আমার অপারেশন থিয়েটারে ঢুকবে, তখন সিদ্ধান্ত নিতে হবে তাকেই।"

এই লোকটি রাফায়েলা মার্টিনেজের কাছে প্রায় ৩০ জন মেয়েকে প্লাস্টিক সার্জারির জন্য পাঠিয়েছে। শরীরের গঠন বদলানোর এ অপারেশন সস্তা নয়, এ জন্য দিতে হয় ৬,৫০০ ডলার। প্রায়ই এ অর্থ পরিশোধ করা হয় নগদ।

মাটিনেজ বলছেন, এসব ক্ষেত্রে স্পষ্টই বোঝা যায় যে মাদক ব্যবসা থেকেই এ টাকাটা এসেছে।

তার কথায় তিনি এখন আর অর্থের উৎস বা এর ভালোমন্দ নিয়ে মাথা ঘামান না। কারণ সিনালোয়াতে রেস্তোরাঁ, বার, হাসপাতাল - সবকিছুই মাদক চোরাচালানের ওপর নির্ভরশীল।

ছবির উৎস, US Attorney's Office

ছবির ক্যাপশান,

মাদকচক্রের নেতা এল চ্যাপোর সাথে একজন সহকারী ও তার বান্ধবী

তবে তিনি প্লাস্টিক সার্জারি করাতে আসা মেয়েদের কাছে জানতে চান যে তার পুরুষবন্ধুর ইচ্ছামত অপারেশনে তার সম্মতি আছে কিনা।

"আমি এটাও বোঝাই যে কিছুদিন পর কিন্তু ছেলেবন্ধুটি আর থাকবে না, এবং এই শরীর তাকে বাকি জীবন বয়ে বেড়াতে হবে। কাজেই সে কি চায় তা তাকেই ঠিক করতে হবে। "

'মাদক-ব্যবসায়ীর পাশে একজন সুন্দরী মেয়ে থাকা দরকার'

একজন মাদকব্যবসায়ীর সাথে কথা হয় - যার বয়স ত্রিশের কোঠায়, শক্তপোক্ত শরীর। তিনি তার নাম প্রকাশ করতে চান না।

ধরা যাক তার নাম - পেদ্রো। তিনি নিজেকে পরিচয় দেন একজন ব্যক্তিগত প্রশিক্ষক হিসেবে, এবং সিনালোয়ার মাদক-চোরাচালানোর চক্রগুলোর মধ্যে তার অবাধ যাতায়াত আছে।

"একজন নারকো বা মাদকব্যবসায়ীর জন্য পাশে একটি সুন্দরী মেয়ে থাকাটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ"- বলেন পেদ্রো।

"নারীর জন্য পুরুষদের মধ্যে প্রতিযোগিতা হয়। আপনার স্ত্রী হচ্ছে এমন একজন যে আপনার সন্তানদের দেখাশোনা করবে। কিন্তু আপনার অন্য যে নারীরা আছে - তারা হলো অনেকটা ট্রফি বা খেলায়-জেতা পদকের মত।"

পেদ্রো বলছেন, এতে কিছু আদিম ব্যাপারও কাজ করছে।

তার কথায় - "পুরুষরা উজ্জীবিত হয় যৌন কামনা দিয়ে, বিশাল স্তন ও নিতম্বের জন্য। এটাকে কামনা ছাড়া অন্য কিছু বলা যায়না।"

পেদ্রো এ পর্যন্ত দুজন নারীর প্লাস্টিক সার্জারির খরচ দিয়েছেন।

"ধরুন আপনার পরিচিত কেউ একজন বললো, আমার বান্ধবী তার স্তন বা নিতম্ব ঠিক করাতে চায়, বা তার নাকটা আরো সুন্দর করাতে চায়। সে একজন পৃষ্ঠপোষক খুঁজছে।"

তখন তাদের মধ্যে একটা চুক্তি হয়।

"মেয়েটি হয়তো আপনাকে বললো. ওকে, যদি আপনি অপারেশনের খরচটা দেন, তাহলে ৬ মাসের জন্য আমার শরীরটা হবে আপনার।"

অনেক সময় একটা গাড়ি, বা বাড়ি, নগদ অর্থ বা বিলাসদ্রব্যের জন্যও এমন চুক্তি হয়ে থাকে - বলছেন পেদ্রো।

গডফাদার হচ্ছেন অর্থ ও নিরাপত্তার উৎস

সিনালোয়া এমন একটি জায়গা যেখানে ব্যাপক দারিদ্র্য আছে, তা ছাড়া এতগুলো সশস্ত্র গ্রুপের কর্মকাণ্ডের জন্য নিরাপত্তা ঝুঁকিও অনেক।

এই সিনালোয়ার সবচেয়ে বড় শহর কুলিয়াকানের একটি মেয়ের নাম কারমেন (আসল নাম নয়)।

ছবির উৎস, Alamy

ছবির ক্যাপশান,

নেটফ্লিক্স সিরিজ নারকোজ:মেক্সিকোতে একটি নারী চরিত্রে অভিনয় করেছেন তেরেসা রুইজ

গ্রামীণ পরিবারে দারিদ্র্যের মধ্যে বড় হওয়া কারমেন বলছেন, তিনি এমন জীবন চেয়েছিলেন যা তিনি শৈশবে দারিদ্র্যের কারণে পাননি।

১৬ বছর বয়সেই তিনি তার মাকে বলেন, তিনি একা একা থাকা শুরু করবেন। তিনি কুলিয়াকানে এসে এমন একটি পরিবারের সাথে থাকতে শুরু করেন - যাদের সাথে অপরাধীচক্রের যোগাযোগ ছিল।

এ বাড়িতে তিনি যৌন আক্রমণের শিকার হন। তবে এসময়ই একজন লোকের সাথে তার যৌন সম্পর্ক হয় - যে তার 'গডফাদার' হবার প্রস্তাব দেয়, এবং কারমেন তা গ্রহণ করেন।

তার কথায় - তার গডফাদারের লোকজন সবাই তাকে চেনে এবং নিজেকে 'পুরোপুরি সুরক্ষিত' বলে মনে করেন তিনি।

কারমেন জানেন না এই লোকটি সাথে অন্য আরো মেয়ের একই রকম সম্পর্ক আছে কিনা। তিনি সাহসী এবং দৃঢ়চেতা নারী, তার স্বপ্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার, এবং একসময় নিজের একটা ব্যবসা শুরু করার।

তিনি এটাও জানেন, যে লোকটির সঙ্গী হবার মাধ্যমে তিনি তার লক্ষ্য অর্জন করতে পারবেন বলে মনে করছেন - সে অত্যন্ত বিপজ্জনক একজন লোক।

ভিডিওর ক্যাপশান,

স্তনের আকার বাড়ানো কতটা নিরাপদ?

"তার ব্যাপারে আমার ভয় এখনো কাটে নি। যখনই তার সাথে আমার দেখা হয়, তখনই মাফিয়া, ব্যবসা এসব কথা শুনি, আর তা আমাকে আতংকিত করে।"

"আমি যা শুনি এবং যা দেখেছি তা ভুলে থাকার চেষ্টা করি। না হলে আমার বিপদ হতে পারে। আমার পৃষ্ঠপোষক লোকটি খারাপ নয়, কিন্তু সে খারাপ কাজ করেছে। সে হয়তো আমার কোন ক্ষতি করবে না - কিন্তু সে চাইলেই আমাকে অদৃশ্য করে দিতে পারে।"

প্লাস্টিক সার্জারির চাপ

সম্প্রতি কারমেনের গডফাদারটি তাকে চাপ দিচ্ছে প্লাস্টিক সার্জারি করার জন্য ।

তবে এখন পর্যন্ত কারমেন নানা ভাবে ডাক্তারের সাথে দেখা করাটা এড়িয়ে চলেছেন।

সিনালোয়ার সমাজে এখন প্লাস্টিক সার্জারির মোহ ছড়িয়ে পড়েছে।

কুলিয়াকানে এখন দেখা যায় বড় বড় বিলবোর্ডে সার্জনদের বিজ্ঞাপন।

টিনএজ মেয়ে থেকে শুরু করে পুরুষরাও নিজেদের শরীর আরো আকর্ষণীয করাতে এসব সার্জারি করাচ্ছেন।

একটি বড় হেয়ার এ্যান্ড বিউটি সালোঁর মালিক জ্যানেট কুইনটারে। তিনি বলছেন তিনি ২০ বারেরও বেশি প্লাস্টিক সার্জারি করিয়েছেন।

তিনি এ জন্য খুবই গর্বিত ও খুশি।

"আমার বয়স যখন ২০-এর কোঠায় ছিল তখন সিনালোয়ায় সবচেয়ে বিখ্যাত নিতম্ব ছিল আমার।"

তবে তার মতে এখন ফ্যাশন পাল্টাচ্ছে। কিছু নারী এখন তাদের বুক ও নিতম্বের মাপ কমিয়ে আনতে সার্জারি করাচ্ছেন।

নারীঘটিত খুনোখুনি

সিনালোয়ায় এই মাদক ব্যবসার প্রসারের ফলে তৈরি হয়েছে এক নারকো-সংস্কৃতি। আটত্রিশ বছর বয়স্ক প্লাস্টিক-সার্জারি করানো এক সন্তানের মা গ্যাব্রিয়েলা (আসল নাম নয়) বলছেন, এখানে একজন পুরুষের একাধিক প্রেমিকা ছাড়াও তিন-চারজন নারী থাকাটা স্বাভাবিক ব্যাপার হয়ে গেছে।

"এটা এখন সংস্কৃতির অংশ। এ জন্য পুরুষরা নির্লজ্জ হয়ে উঠছে। আর মেয়েরা আর্থিক ভরণপোষণ নিশ্চিত থাকলে এসব ব্যাপার মেনে নেয়, দেখেও না দেখার ভান করে" - বলছেন তিনি।

ছবির উৎস, Getty Images

ছবির ক্যাপশান,

কুলিয়াকানে মাদকচক্রের সাথে গোলাগুলিতে নিহত পুলিশের স্ত্রীর কান্না

এখানে এমন একটা ধারণা তৈরি হয়েছে যে নারীরা এক ধরনের "সম্পত্তি" - যার মালিক পুরুষরা। বহু দশক ধরে এখানে নারীদের জন্য কাজ করছেন আইনজীবী মারিয়া তেরেসা গুয়েরা।

তিনি বলছেন, এতে নারীর বিরুদ্ধে সহিংসতার ঝুঁকি বেড়ে যাচ্ছে।

"মাদক পাচারকারীর সঙ্গিনী হবার কারণে, বা কোন পুরুষ নিজেদের প্রতারিত বলে মনে করলে মেয়েদের খুন করা হয়েছে। মাদক ব্যবসায়ীরা এই বার্তাটা সবাইকে দিতে চায় যে তারাই যেন মেয়েদের মালিক।"

মেক্সিকোর অন্য এলাকার তুলনায় সিনালোয়াতে বন্দুকের গুলিতে নিহত নারীর সংখ্যা দ্বিগুণ বেশি।

গুয়েরা বলছেন, "কুলিয়াকানে নারীদের বিরুদ্ধে সহিংসতা ও বর্বরতার ঘটনা অনেক বেশি। অনেক সময় মেয়েদের এমন মৃতদেহ পাওয়া গেছে - যা অত্যাচারের পর পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে।"

"একটি তরুণী মেয়ের কথা আমার মনে আছে - তার ছেলে বন্ধু ছিল একজন মাদকব্যবসায়ী বা 'নারকো'। সে নিজের খরচে মেয়েটির প্লাস্টিক সার্জারি করিয়েছিল। তাকে যখন খুন করা হয়, তখন সেই ঘাতকরা ঠিক সেই জায়গাগুলোতেই গুলি করেছিল - যেগুলো বড় করতে সেই নারকো টাকা ঢেলেছিল।"

এই নারকো-দের হাত থেকে বেরিয়ে আসতে চায় এমন মেয়েদের আমি চিনি, কিন্তু ব্যাপারটা জটিল।

"কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে তেমন কিছু করতে চায় না। সংঘবদ্ধ অপরাধচক্রের বিরুদ্ধে তেমন কোন তৎপরতা নেই, বরং সংশ্লিষ্টতা আছে। মাদকব্যবসায়ীদেরই এখানে সুরক্ষা দেয়া হয়, নারীদের নয়।"

কারমেন - যিনি নিজে একটি মাদকচক্রের বড় নেতার প্রেমিকা - তিনি অবশ্য এসব নিয়ে ভাবতে চান না।

তিনি এটাও জানেন না আর কতদিন তিনি তার স্তন ও নিতম্ব বড় করতে প্লাস্টিক সার্জারি করানোর চাপ ঠেকাতে পারবেন।

"এখন অন্ততঃ সে এমন আচরণ করে যেন আমি একজন দেবী" - বলেন কারমেন।

ভিডিওর ক্যাপশান,

মাদক ব্যবসায়ীকে ধরেও কেন ছেড়ে দিল পুলিশ?