জাতিসংঘের প্রস্তাবে সম্মত ইরান

আহমেদিনেজাদ
Image caption ইরানের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আহমেদিনেজাদ

ইরানের প্রেসিডেন্ট মাহমুদ আহমেদিনেজাদ বলেছেন, তাঁর দেশ জাতিসংঘের প্রস্তাব অনুযায়ী স্বল্প মাত্রার পরিশোধিত ইউরেনিয়াম বাইরে পাঠিয়ে ‌বিনিময়ে উচ্চমাত্রার পরিশোধিত ইউরেনিয়াম পেতে রাজী৻ ইরানের একটি টেলিভিশন চ্যানেলে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে প্রেসিডেন্ট আহমেদিনেজাদ হঠাৎ করে তাঁর এই সিদ্ধান্তের কথা জানান৻ তিনি বলেন, পরমাণু কর্মসূচীর ব্যাপারে জাতিসংঘের প্রস্তাব মেনে নিতে ইরান রাজী৻

আপনার ডিভাইস মিডিয়া প্লেব্যাক সমর্থন করে না

প্রেসিডেন্ট আহমেদিনেজাদ বলছেন, কিছু মানুষ বিষয়টি নিয়ে অহেতুক শোরগোল করার চেষ্টা করছে৻ কিন্তু ইরানের এ নিয়ে কোন সমস্যা নেই৻ তিনি বলেন, তাঁরা এ নিয়ে চুক্তিতে রাজী৻ ইরান তিন দশমিক পাঁচ গ্রেডের ইউরেনিয়াম বাইরে পাঠাবে যাতে করে তার পরিশোধন করে বিশ মাত্রায় উন্নীত করা যায়৻ তিনি আরও বলেন, ইরান তার ইউরেনিয়াম বাইরে পাঠানোর পর তা আর ফেরত আসবে কিনা তা নিয়ে অনেকে সন্দিহান৻ কিন্তু যদি এরকমটা ঘটে তাতে ইরানের কোন সমস্যা নেই, কারণ যে মাত্রার ইউরেনিয়াম ইরান বাইরে পাঠাবে, তা উৎপাদনের ক্ষমতা ইরানের আছে৻ মাঝখান থেকে জাতিসংঘের পরমাণু শক্তি সংস্থা আইএইএ-ই বরং আস্থা হারাবে৻

প্রেসিডেন্ট আহমেদিনেজাদের এই হঠাৎ মত পরিবর্তন অনেককেই অবাক করেছে৻ তবে বিশ্লেষকরা তাঁর এই সম্মতিকে পশ্চিমা দেশগুলোর সঙ্গে ইরানের আস্থা বাড়ানোর পদক্ষেপ হিসেবে দেখছেন, একই সঙ্গে এর মাধ্যমে ইরান তাদের পরমাণু চুল্লীগুলোর জন্য পরমাণু জ্বালানীও পাবে৻ ইরানকে এই প্রস্তাবটি প্রথম দেয়া হয়েছিল গত অক্টোবর মাসে৻ ফ্রান্স, রাশিয়া এবং যুক্তরাষ্ট্র যৌথভাবে প্রস্তাবটি তোলে৻ কিন্তু এরপর প্রস্তাবটি নিয়ে আলোচনা এগোয়নি, কারণ তেহরান এর বিরোধিতা করে৻ পরিবর্তে ইরান ভিন্ন কিছু প্রস্তাব দেয়৻ সেসব প্রস্তাব বাকী বিশ্বের কাছে গ্রহনযোগ্য হয়নি৻

প্রেসিডেন্ট আহমেদিনেজাদের মন্তব্যের ব্যাপারে ওয়াশিংটন সতর্ক প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে৻ মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের মুখপাত্র পি জে ক্রাওলি বলেছেন, তেহরান যদি জতিসংঘের প্রস্তাব মেনে নিয়ে থাকে তাহলে জাতিসংঘের পরমানু শক্তি সংস্থা আইএইএ-কে সেটা তাদের জানানো উচিত৻ তবে তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র এ বিষয়টি নিয়ে আবার নতুন করে আলোচনায় রাজী নয়৻

ইরান যে এখন তার মত বদলেছে তা সত্ত্বেও তাদের মতিগতি সম্পর্কে সন্দেহ থেকেই যাবে৻ যুক্তরাষ্ট্র, ইরানের বিরুদ্ধে নতুন নিষেধাজ্ঞা আরোপের জন্য চাপ দিয়েই যাচ্ছে৻ মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন মাত্র গতকালই প্রেসিডেন্ট আহমেদিনেজাদের এই সম্মতির কথা জানার আগে ইরানকে নতুন করে হুঁশিয়ার করে দিয়েছিলেন৻ তিনি বলেছিলেন, ইরান যেভাবে নিজের দেশের জনগণকে দমন করছে তাতে তারা আসলে নিজেদের ধ্বংস নিজেরাই ডেকে আনছে৻ তাঁর ভাষায়, ইরানের বর্তমান শাসকগোষ্ঠী ক্ষমতা আঁকড়ে থাকার জন্য নিজেরাই তাদের ধ্বংসের বীজ বপন করছে৻ তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া এবং বাকী বিশ্বের সঙ্গে মিলে ইরানের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপের জন্য অগ্রসর হচ্ছে৻

ইরান কেন হঠাৎ করে তার মত পাল্টালো তা নিয়ে সন্দেহ অবশ্য থেকেই যাবে৻ অনেকের সন্দেহ ইরান হয়তো এভাবে কিছুটা সময় পেতে চাইছে, তাদের বিরুদ্ধে যারা এককাট্টা হয়ে দাঁড়িয়েছে, তাদের ঐক্য দুর্বল করতে চাইছে৻