ছাত্র মৃত্যুর দায় অস্বীকার পুলিশের

উত্তপ্ত শিক্ষাঙ্গন
Image caption উত্তপ্ত শিক্ষাঙ্গন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র আবু বকর সিদ্দিকের মৃত্যুর জন্য কাঁদানে গ্যাসের শেলের আঘাত লাগার অভিযোগ অস্বীকার করেছে পুলিশ৻

ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার শহীদুল হক শুক্রবার সাংবাদিকদের বলেছেন, এই শেলের আঘাতে কখনো মানুষের শরীরে জখম হতে পারে না৻

আপনার ডিভাইস মিডিয়া প্লেব্যাক সমর্থন করে না

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এ এফ রহমান হলে ছাত্রলীগের দুটি গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষের সময় ইসলামের ইতিহাস বিভাগের ছাত্র আবু বকর সিদ্দিক আহত হয়েছিলেন গত সোমবার।

দুদিন পর ঢাকা মেডিক্যাল কলেজে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হলে অভিযোগ ওঠে যে রাজনীতির সাথে সংশ্লিষ্টতা না থাকলেও পুলিশের টিয়ার শেলের আঘাতে ঐ ছাত্রের মৃত্যু হয়েছে।

ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার শহীদুল হক দাবি করেছেন পুলিশের টিয়ার শেলের আঘাতে ওই ছাত্রের মারা যাওয়ার যৌক্তিকতা নেই।

তিনি উল্লেখ করেছেন,পুলিশ যে ধরনের কাঁদানে গ্যাস শেল ব্যবহার করে তাতে শক্ত অংশ না বেরিয়ে নরম অংশটুকুই শুধু ছড়িয়ে পড়ে। আর তাতে মানুষের শরীরে জখম হতে পারে না।

ঘটনাটির ব্যাপারে এখনও তদন্ত চলছে। এছাড়াও ওই ছাত্রের মৃতদেহের ময়নাতদন্তের রিপোর্টও পুলিশ এখনও পায়নি।ময়নাতদন্তের সঙ্গে জড়িত ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের দুজন চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা কিছু বলতে রাজী হননি।

অবশ্য পুলিশ কমিশনার জানিয়েছেন তারা ময়নাতদন্তের সুরতহাল রিপোর্ট পেয়েছেন। এই রিপোর্ট অনুযায়ী তাদের মনে হচ্ছে ইট বা লাঠির আঘাতে ঐ ছাত্র আহত হয়েছিল।

তবে পুলিশের বক্তব্য আস্থায় নিতে পারছেন না এ. এফ. রহমান হলের সাধারণ ছাত্ররা। তাদের মধ্যে একাংশ বলছেন, ছাত্রলীগের দুটি গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষের সময় পুলিশ হলে ঢুকে কাঁদানে গ্যাস ছুড়েছিল । তখনই আবু বকর সিদ্দক আহত হয়েছিল। সেকারনে তারা সুষ্ঠু তদন্ত এবং বিচার চান।

এদিকে পুলিশ বলছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র আবু বকর সিদ্দিক মৃত্যুর ঘটনায় যে মামলা হয়েছে সেই মামলায় অভিযুক্ত আটজনকে গ্রেপ্তার করে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।