জামায়াত-শিবির কর্মী আটক

বাংলাদেশে বুধবার ঢাকা ও রাজশাহী থেকে পুলিশ ১১জন জামায়াতে ইসলামী ও ছাত্র শিবিরের কর্মীকে আটক করেছে।

আটককৃতদের মধ্যে রাজশাহী মহানগরের সাধারন সম্পাদকও আছেন।

এদিকে সারাদেশে পুলিশী অভিযানে আটক হওয়া নেতা কর্মীদের মুক্তির দাবীতে ঢাকায় ছাত্র শিবির কর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল বের করলে পুলিশের সাথে সংঘর্ষ হয় বুধবার। এতে পুলিশসহ বেশ ক‘জন আহত হয়েছে।

পল্টন থানার ওসি মো: মুজিবুর রহমান জানিয়েছেন বিনা অনুমতিতে ছাত্র শিবির কর্মীরা মাইক ব্যবহার করলে পুলিশ বাধা দেয় এবং একপর্যায়ে মিছিলকারীরা পুলিশের উপর ঢিল ছোড়ে।

Image caption গত কয়েকদিনে বহু জামায়াত-শিবির কর্মী গ্রেপ্তার

এতে পুলিশসহ বেশ ক’জন আহত হয়েছেন বলে পল্টন থানার ওসি বলেছেন।

মিছিল থেকে পুলিশ তিনজন ছাত্র শিবির কর্মীকে আটক করেছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অন্যদিকে বুধবার পুলিশ রাজশাহী মহানগর জামায়াতে ইসলামীর সাধারন সম্পাদক আবুল কালাম আজাদসহ আটজনকে আটক করেছে। আটককৃতরা সবাই জমায়াতে ইসলামী বা ইসলামী ছাত্র শিবিররের নেতা কিংবা কর্মী।

গত ৯ই ফেব্রুয়ারী রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র লীগের একজন কর্মী হামলায় নিহত হবার পর দায়ের করা কয়েকটি মামলায় এখন পর্যন্ত মোট ৫৪ জন জামায়াতে ইসলামী ও ছাত্রশিবির নেতা কর্মীকে গ্রেফতার করেছে।

ছাত্রলীগ কর্মী নিহত হবার ঘটনায় সংগঠনটি ও সরকারের তরফ থেকে জামায়েতে ইসলামী ও ছাত্র শিবিরকে দায়ী করছে।

পুলিশ বলছে ছাত্রলীগ কর্মী নিহত হবার ঘটনায় যাদের গ্রেফতার করা হয়েছে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে তাদের কাছ থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী বুধবার আটজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।