তিস্তা নিয়ে অন্তর্বর্তী চুক্তির সম্ভাবনা

তিস্তা ব্যারেজ
Image caption তিস্তা ব্যারেজ

বাংলাদেশের পানিসম্পদ মন্ত্রী রমেশ চন্দ্র সেন বলছেন, তিস্তা নদীর জল বন্টন প্রশ্নে আগামী ২০শে মার্চের মধ্যে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে একটি অন্তর্বর্তীকালীন চুক্তি স্বাক্ষরের সম্ভাবনা রয়েছে৻

আপনার ডিভাইস মিডিয়া প্লেব্যাক সমর্থন করে না

আসন্ন শুকনো মৌসুমকে সামনে রেখে বাংলাদেশ এখনই এই চুক্তি করতে আগ্রহী বলে তিনি জানান৻ সে লক্ষ্যেই ভারতের একটি কারিগরীদল এখন বাংলাদেশে যৌথভাবে জরিপকাজ চালাচ্ছে৻

বাংলাদেশের উত্তরের কয়েকটি জেলায় কৃষিকাজের জন্য তিস্তা নদীর পানি ব্যবহার করতে যে ব্যারেজ প্রকল্প রয়েছে। এর আওতায় এবার প্রায় ৫০ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো চাষ করা হচ্ছে৻ যার জন্য শুস্ক মৌসুমে পাঁচ হাজার কিউসেক পানি প্রয়োজন।

কিন্তু নদীতে এখন পানি অনেক কম আসছে বলে সংশ্লিষ্ট সরকারি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। পানিসম্পদ মন্ত্রী রমেশ চন্দ্র সেনও একই ধরনের পরিসংখ্যান দিয়েছেন।

মন্ত্রী উল্লেখ করেছেন, এখন শুস্কমৌসুমে পানির এই চাহিদা মেটাতে তিস্তা নদীর পানি বন্টনের ব্যাপারে বাংলাদেশ ভারতের সাথে একটি অর্ন্তবর্তীকালীন চুক্তি করার উদ্যোগ নিয়েছে।

সেজন্য ভারতের একটি কারিগরি দল বাংলাদেশে এসে জরিপ কাজ চালাচ্ছে, যা দু’একদিনের মধ্যে শেষ হবে।

মি. সেন বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারতে সফরে যে সমঝোতা হয়েছে, তার ভিত্তিতে বাংলাদেশ ২০শে মার্চের মধ্যে যৌথ নদী কমিশনের মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠক চেয়েছিল ।

সে অনুযায়ী এই বৈঠক হচ্ছে এবং এই বৈঠকেই অর্ন্তবর্তীকালীন চুক্তিটি সই হতে পারে বলে তিনি আশা করছেন৻

তিনি বলেন, অর্ন্তবর্তীকালীন চুক্তি সই হওয়ার পর পূর্নাঙ্গ হাইড্রোলজিকাল জরিপ চালিয়ে স্থায়ী চুক্তি সই করা হবে ।

এ বছরের মধ্যেই স্থাযী চুক্তি সই করার চেষ্টা দু’পক্ষ থেকেই রয়েছে বলে তিনি দাবি করেছেন৻