বোমা হামলার চক্রান্ত স্বীকার

Image caption নাজিবুল্লাহ জাজি

আফগান বংশোদ্ভূত মার্কিন অভিবাসী নাজিবুল্লাহ জাজি নিউ ইয়র্কের পাতাল রেলে আত্মঘাতী হামলা চালানোর চক্রান্ত করার অভিযোগ স্বীকার করেছেন৻

নিউ ইয়র্কের ফেডারেল আদালতে দেওয়া স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দীতে তিনি জানিয়েছেন, আফগানিস্তান ও পাকিস্তানের সীমান্তবর্তী এলাকায় আল কায়দা তাঁকে প্রশিক্ষণ দিয়েছে৻

মার্কিন এটর্নি জেনারেল এরিক হোল্ডার বলেছেন, ২০০১ সালের ১১ই সেপ্টেম্বরের সন্ত্রাসী হামলার পর, এটাই ছিল সবচাইতে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার চক্রান্ত৻

তিনি বলছেন, মি. জাজি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে গণবিধ্বংসী মারণাস্ত্র ব্যবহার, হত্যাকান্ডের চক্রান্ত এবং আল কায়দাকে সহযোগিতা করার তিনটি অভিযোগই স্বীকার করেছেন৻

মি. জাজি আরো স্বীকার করেছেন যে, তিনি গত বছর ১০ই সেপ্টেম্বর নিউ ইয়র্ক শহরের পাতাল রেলে হামলার উদ্দেশ্যে বিস্ফোরক নিয়ে যান৻

নাজিবুল্লাহ জাজি ডেনভার বিমানবন্দরে শাটল বাসের ড্রাইভার হিসাবে কাজ করতেন৻

স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দীতে মি. জাজি বলেছেন, তিনি নিউ ইয়র্ক শহরের পাতাল রেলে, তাঁর ভাষায়, গণবিধ্বংসী মারণাস্ত্র ব্যবহার করে আত্মঘাতী হামলা চালানোর পরিকল্পনা করেছিলেন৻

নিউ ইয়র্ক থেকে বিবিসির সংবাদদাতা ম্যাথিউ প্রাইস জানাচ্ছেন, নাজিবুল্লাহ জাজি, আফগানিস্তানে মার্কিন অভিযানের প্রতিশোধ নিতে এই হামলার চক্রান্ত করেছিলেন বলে স্বীকার করেছেন৻

নাজিবুল্লাহ জাজি মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা বিভাগকে ঠিক কতটুকু তথ্য সরবরাহ করেছেন তা নিশ্চিত হয়ে বলা যাচ্ছেনা৻ তবে ম্যাথিউ প্রাইস জানাচ্ছেন নিশ্চিতভাবেই তিনি গোয়েন্দাদের তদন্তে সহযোগিতা করছেন৻

মি. জাজি দোষ স্বীকার না করলে, অপরাধ প্রমাণিত হলে তাঁর মৃত্যুদন্ড হতে পারত৻ কিন্তু তিনি সরকারী কৌশুলিদের সঙ্গে সমঝোতার ভিত্তিতে তাঁর বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ স্বীকার করেছেন৻

এতে করে তাঁর সর্বোচ্চ যাবজ্জীবন কারাদন্ড হতে পারে৻ ম্যাথ্যিউ প্রাইস জানাচ্ছেন, মি. জাজি এক রকম নিশ্চিতভাবেই যাবজ্জীবন কারাদন্ডে দন্ডিত হতে যাচ্ছেন এবং তাঁর কখনই মুক্তি পাবার সম্ভাবনা নেই৻

মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা বিভাগ আদালতে যে তথ্য প্রমাণ উপস্থাপন করেছে তাতে দাবী করা হয়েছে যে, নাজিবুল্লাহ জাজি আটক হওয়ার বেশ কিছু দিন আগে থেকেই গোয়েন্দা বিভাগগুলোর নজরবন্দী ছিলেন৻

মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা বিভাগ জানিয়েছে যে, ২০০৮ সালের অগাস্ট মাসে মি. জাজি তাঁর আরো কয়েকজন সঙ্গীকে নিয়ে নিউ ইয়র্ক বিমান বন্দর থেকে পাকিস্তানের পেশাওয়ারের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন৻

বলা হচ্ছে তাঁর উদ্দেশ্য ছিল তালেবানের হয়ে মার্কিন বাহিনীর বিরুদ্ধে লড়াই করা৻ কিন্তু আল কায়দা তাঁকে বিস্ফোরক তৈরীর প্রশিক্ষণ দিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ফেরত পাঠায়৻

নাজিবুল্লাহ জাজি এরপর ডেনভারে বসবাস শুরু করেন৻ কলোরাডো থেকে তিনি বিপুল প্রসাধনী সামগ্রী কিনে তা দিয়ে বিস্ফোরক তৈরী করেন৻

এরপর ২০০৯ সালের সেপ্টেম্বরে তিনি ডেনভার থেকে নিউ ইয়র্কে গাড়ী চালিয়ে যান, যা গোয়েন্দাদের সন্দেহ বাড়িয়ে দেয়৻

কারণ এত দূরবর্তী একটি এলাকায় গাড়ি চালিয়ে যাওয়াটা অস্বাভাবিক ঘটনা৻

কার্যত এই ব্যাপারটি বুঝতে পেরেই নিউ ইয়র্কের পাতাল রেলে বিস্ফোরণের পরিকল্পনা বাতিল করে মি. জাজি ডেনভারে ফিরে আসেন এবং নিরাপত্তা বিভাগের কর্মীরা তাঁকে আটক করে৻

গত মাসে নাজিবুল্লাহ জাজির অপর দুই কথিত সহযোগী আদিস মেদুন জানিন এবং জাসরিন আহমেদজাইকে আটক করা হয়েছে৻